ঢাকা, শনিবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৭, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭ সফর ১৪৪২

জাতীয়

দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা: দায়সারা তদন্তের কথা স্বীকার বাবরের, নিজামী শ্যোন অ্যারেস্ট

রমেন দাশগুপ্ত, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৫, ২০১০
দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা: দায়সারা তদন্তের কথা স্বীকার বাবরের, নিজামী শ্যোন অ্যারেস্ট

চট্টগ্রাম: চাঞ্চল্যকর দশ ট্রাক অস্ত্র আটকের ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলার দায়সারা তদন্ত করে প্রকৃত ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর।

অস্ত্রের চালান খালাসের বিষয়টি সরকার ও দলের শীর্ষমহলের কাছ থেকে আগে থেকে অবগত থাকার কথা এবং খালাসের তত্তাবধানকারী এনএসআইকে বাঁচাতে ব্যাপক তৎপরতার কথাও স্বীকার করে নিয়েছেন বাবর।



রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বাবর এসব কথা স্বীকার করেছেন বলে মামলার তদন্তকারী সংস্থা সিআইডির কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে। পাঁচদিনের রিমান্ড শেষে বাবর এবং এনএসআই’র সাবেক মহাপরিচালক আব্দুর রহিমকে বুধবার রাতে চট্টগ্রামের একটি আদালতে হাজির করা হয় বাবরকে।  

এছাড়াও মামলার অপর আসামী জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) সাবেক মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুর রহিমকেও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেড মাহবুবুর রহমানের আদালতে হাজির করা হয়।

পাঁচ দিনের রিমান্ডের পর আদালতে হাজির করা হলে তাদের দুজনকেই কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে বাংলানিউজকে জানিয়েছেন সিএমপির সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্ত্তী।

আদালতে বাবরের পক্ষে সুচিকিৎসা ও জামিন আবেদন জানানো হলে ১৯ ডিসেম্বর তার শুনানির নির্দেশ দেওয়া হয় বলেও জানান তিনি।

সিআইডির নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, সরকার এবং দলের শীর্ষমহল কারা এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী  খালেদা জিয়া, শিল্পমন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী, ক্ষমতাধর হাওয়া ভবনের নিয়ন্ত্রক তারেক রহমানের এ বিষয়ে কোন নির্দেশনা ছিল কিনা এ সম্পর্কে রিমান্ডে মুখ খোলেননি বাবর।

এ অবস্থায় সাবেক শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামীকে দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিআইডি। সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, এ মামলায় বাবরকে আরও এক দফা রিমান্ডে নেওয়া হতে পারে। এরপর দু’জনকে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

এ প্রসঙ্গে দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় রাষ্ট্রপরে আইনজীবী ও মহানগর পিপি এডভোকেট কামালউদ্দিন আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, ‘বাবর স্বীকার করুন আর না করুন নিজামীকে এ মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখাতেই হবে। কারণ সাবেক শিল্পসচিব শোয়েব আহম্মেদ সহ তিনজন সাীর জবানবন্দীতে নিজামীর নাম এসেছে। ’

পিপি বলেন, ‘এখন নিজামীকে দ্রুত জিজ্ঞাসাবাদ করলে আশা করছি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার এবং হাওয়া ভবনের প্রভাবশালীদের নাম বেরিয়ে আসবে। ’

তবে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্য নিয়ে আইনগত মতামত জানতে সিআইডির কর্মকর্তারা কয়েক দফা একজন সরকারি আইন কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। বাংলানিউজের পক্ষ থেকে ওই আইন কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বেশ কিছু বিষয় স্বীকার করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সিআইডির চট্টগ্রাম অঞ্চলের এক কর্মকর্তা বাংলানিউজকে বলেন, ‘দশ ট্রাক অস্ত্র আটকের ঘটনা তদন্তের জন্য গঠিত কমিটির কয়েকজন সদস্য এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের সাবেক এক কর্মকর্তার জবানবন্দীতে মতিউর রহমান নিজামী এবং সরকারের হাইয়েস্ট অথরিটি অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীরও বিষয়টি সম্পর্কে অবগত থাকার কথা উল্লেখ আছে। ’

বাবর জিজ্ঞাসাবাদে শীর্ষ মহলের নির্দেশের কথা বললেও নাম ষ্পষ্ট করেননি, জানান সিইআইডির ওই কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য দশ ট্রাক অস্ত্র আটকের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির তিনজন সদস্য, সাবেক শিল্পসচিব শোয়েব আহমেদ, শিল্প মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) এর তৎকালীন চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল মো. ইমামুজ্জামান বীরবিক্রম এবং তৎকালীন পুলিশ কমিশনার এরই মধ্যে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন।

জবানবন্দীতে তাদের দেওয়া তথ্য নিয়ে পাঁচদিনের রিমান্ডে বাবর এবং আব্দুর রহিমকে কয়েক দফা মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বলেও জানান ওই কর্মকর্তা।

এর আগে গত ৩ অক্টোবর সিআইডির আবেদনের পরিপ্রেেিত বাবরকে দশ ট্রাক অস্ত্র আটকের ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর নির্দেশ দেন আদালত। এরপর সিআইডির আবেদনের পরিপ্রেেিত পহেলা নভেম্বর বাবরের প্রথম দফায় পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এরই মধ্যে তাকে প্রথম দফা জিজ্ঞাসাবাদও করেছে সিআইডি।

এরপর গত ৬ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় বাবরের আবারও পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এছাড়া গত ১ ডিসেম্বর এ মামলায় জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) সাবেক মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুর রহিমের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

গত ১১ ডিসেম্বর বাবর এবং রহিমকে ঢাকায় সদর দপ্তরে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে সিআইডি।

উল্লেখ্য ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল চট্টগ্রামের রাষ্ট্রায়ত্ত সার কারখানা সিইউএফএল’র জেটিতে দশ ট্রাক অস্ত্র আটকের ঘটনায় অস্ত্র আটক ও চোরাচালান আইনে দুটি মামলা দায়ের হয়। দুটি মামলায় পুলিশ এর আগে চার্জশীট দাখিল করলেও বিগত তত্তাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৮ সালের ১২ ফেব্র“য়ারি মহানগর দায়রা জজ মামলা অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেন।

অধিকতর তদন্ত শুরুর পর থেকে মামলার তদন্তকারী সংস্থা সিআইডি এ পর্যন্ত সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের সাবেক দুই মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুর রহিম, সাবেক পরিচালক উইং কমান্ডার শাহাবুদ্দিন, উপ-পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর লিয়াকত হোসেন, ফিল্ড অফিসার আকবর হোসেন, সিইউএফএল’র সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহসিন উদ্দিন চৌধুরী, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) একেএম এনামুল হককে গ্রেপ্তার করে।

বাংলাদেশ সময় ২১৫৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৫, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa