ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১১ মহররম ১৪৪৬

জাতীয়

গরুর চামড়ার সঙ্গে ছাগলের চামড়া ফ্রি

শরীফ সুমন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৩৬ ঘণ্টা, জুন ১৯, ২০২৪
গরুর চামড়ার সঙ্গে ছাগলের চামড়া ফ্রি

রাজশাহী: মার্কেটে গিয়ে এক জোড়া চামড়ার জুতা কিনতে গেলে নিম্নে তিন থেকে চার হাজার টাকা গুনতে হয়। কিন্তু কোরবানির ঈদের সময় আস্ত একটা গরুর চামড়া বিক্রি করতে গেলে এক হাজার টাকা দামও ওঠে না কেন? হ্যাঁ, কোরবানির চামড়া বিক্রি করতে গিয়ে মেজাজ হারিয়ে ফেলে আজ এমন প্রশ্নই ছুঁড়ে দিয়েছিলেন আজমত আলী।

 

ঈদের দ্বিতীয় দিন গরু কোরবানি দিয়ে নিজেই চামড়া বিক্রি করতে গিয়েছিলেন মহানগরীর সপুরা এলাকায়। কিন্তু গরুর চামড়ার দাম ৬০০ টাকা বলায় ব্যবাসায়ীর ওপর বেজায় চটে গিয়েছিলেন আজমত আলী। তবে কোরবানির পশুর চামড়া নিয়ে এমন প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেও শেষ পর্যন্ত তার কোনো সদুত্তর পাননি তিনি।

তবে কেবল আজমত আলীই নন, রাজশাহীতে কোরবানির পর পশুর চামড়া বিক্রি করতে গিয়ে সবারই এখন নাজেহাল অবস্থা। সরকার কোরবানির মৌসুমে চামড়ার দাম নির্ধারণ ও পাচার রোধে নানা উদ্যোগ নিলেও এর সুফল ভোগ করতে পারছেন না কেউই। গেল কয়েক বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও চামড়ার বাজারের কেনাবেচায় ধস নেমেছে।  

আড়তগুলোতে ছোট-বড় আকৃতি মোটামুটি যাই হোক গরুর চামড়া গড়ে ২০০-৭০০ টাকা ও ছাগলের চামড়া ৫-১০ টাকা হারে কিনছেন। অনেক ক্ষেত্রে (যাদের গরু ছাগল দুটোই ছিল) গরুর চামড়ার সঙ্গে ছাগলের চামড়া ‘ফ্রি’ও নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।  

এ ছিল ঈদুল আজহার প্রথম দিন ও দ্বিতীয় দিনে রাজশাহীর চামড়ার বাজারের হালহকিকত। এ বছর কোরবানির পশুর চামড়ার বিক্রি করতে গিয়ে দাম নিয়ে খুশি হতে পারছেন বিক্রেতারা। সর্বোচ্চ এক বা দুই লাখ টাকার গরুর চামড়াও ৭০০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছে না। আর ছাগলের চামড়া কিনছেনই না ব্যবসায়ীরা। প্রথম দিন কেউ কেউ পাঁচ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত ছাগলের চামড়ার দাম পেলেও আজ দ্বিতীয় দিনে দিয়েছেন বিনামূল্যেই।

এছাড়া ছোটখাটো অজুহাতে কোরবানির পশুর চামড়া ত্রুটিপূর্ণ উল্লেখ করে ফিরিয়ে দিচ্ছেন অনেককেই। যারা না বুঝেশুনে পাড়া-মহল্লায় গিয়ে বাড়তি দামে কোরবানির পশুর চামড়া কিনেছেন তারা তো চোখে সর্ষে ফুল দেখছেন।

রাজশাহী মহানগরীর সপুরা এলাকা ছাড়াও নওদাপাড়া, শালবাগান, দড়িখরবোনা, লক্ষ্মীপুর ও তালাইমারীসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে অভিন্ন চিত্র দেখা গেছে।

এর আগে ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে গত ৩ জুন কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দেয় সরকার। সেই অনুযায়ী রাজধানী ঢাকায় গরুর প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫৫-৬০ টাকা, যা গত বছর ছিল ৫০-৫৫ টাকা। আর ঢাকার বাইরে গরুর প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫০-৫৫ টাকা, যা গত বছর ছিল ৪৫-৪৮ টাকা। তবে গত বছরের তুলনায় এ বছর চামড়ার দাম কিছুটা বাড়লেও তার কোনো প্রভাব পড়েনি রাজশাহীর মতো বিভাগীয় শহরে বা বাইরের জেলায়।

রাজশাহী মহানগরীর শালবাগান এলাকায় কথা হয় ব্যবসায়ী ফরিদ হোসেনের সঙ্গে। তিনি জানান, গরু-ছাগলের কাঁচা চামড়া (লবণ ছাড়া) ব্যবসার সেই রমরমাভাব আর নেই। এ বছরই প্রথম নয়, কমপক্ষে ৯ থেকে ১০ বছর থেকে একই অবস্থা চলছে। গরুর চামড়া কিনে কিছুটা দাম পাওয়া গেলেও ছাগলের চামড়া কিনে পরে ফেলে দিতে হয়। আড়তদারও নানা কারণ দেখিয়ে নিতে চান না। তাই এবার তেমন কেউই ছাগলের চামড়া কিনছেন না। বাড়িতে থাকলে পচে দুর্গন্ধ বের হবে। এ ভয়ে উপায় না পেয়ে অনেকে টাকা ছাড়াই তাদের হাতে তুলে দিয়েছেন ছাগলের চামড়া। তারা বেশিরভাগ গরুর চামড়া সর্বনিম্ন ২০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৭০০ টাকা পর্যন্ত কিনেছেন। গতবার সর্বোচ্চ ৬০০ টাকায় কিনেছিলেন। কিন্তু এ বছর দাম একটু বাড়ায় তারাও একটু বাড়তি দাম দিয়ে কিনেছেন। এছাড়া ছোট ও মাঝারি গরুর চামড়া ২০০, ৩০০ ও ৫০০ টাকা পিস করে কিনেছেন বলেও জানান।

অন্যদিকে মহানগরীর মালদহ কলোনি এলাকার মো. সোহেল নামে এক মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ী বলেন, চামড়ার দাম বেশি মনে করে তিনি কোনো কিছু সেভাবে না বুঝেশুনেই গড়ে ছোট, মাঝারি ও বড় আকৃতির চামড়া কিনেছিলেন। সর্বনিম্ন ৫০০ থেকে সর্বোচ্চ ৮০০ টাকা পর্যন্ত ৫০ পিস চামড়া কিনেছিলেন।  

পরে সপুরার পাইকারি আড়তে গিয়ে বুঝতে পারেন মস্তবড় ভুল করে ফেলেছেন। এরপর আর কী, লোকসানেই চামড়াগুলো বিক্রি করে দিয়েছেন। লাভ তো দূরে থাক মৌসুমি এ ব্যবসায় সামান্য কিছু পুঁজি লাগিয়ে তাও তুলতে পারেননি। আর পাড়া-মহল্লা ঘুরে ঘুরে চামড়া কেনার হাড়ভাঙা খাটুনির কথা তো বাদই।

রাজশাহী চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আসাদুজ্জামান মাসুদ বলেন, এ বছর চামড়ার দাম গত বছরের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে ঠিকই। তবে তার খুব একটা প্রভাব কেনাবেচায় পড়েনি। কিন্তু সব জায়গায় যে সর্বোচ্চ ৭০০ চামড়া কেনা-বেচা হয়েছে বিষয়টি তেমন নয়। কোথাও কোথাও এক হাজার টাকায়ও গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে। তবে ছাগলের চামড়ার দম কম। আর এটা বরাবরই এমনই।  

তিনি বলেন, অধিকাংশ মানুষ ছাগলের চামড়া ছাড়ানোর সময় সতর্ক থাকেন না। এতে চামড়া ফুটো হয়ে, কেটে যায় ও নষ্ট হয়ে যায়। এজন্য আড়তদাররা ত্রুটিপূর্ণ এ চামড়া কিনতে চান না। আর এবার কী পরিমাণ চামড়া সংগ্রহ বা কেনা-বেচা হয়েছে তার সঠিক হিসাব এখনও পাওয়া যায়নি। কারণ অধিকাংশ মানুষই প্রথম দিন কোরবানি দিয়েছেন। তবে আজও অনেক মানুষ পশু কোরবানি করেছেন। তাই এর সঠিক হিসাব পেতে সময় লাগবে। তবে দামের তারতম্য থাকলেও আমদানি ভালো বলে উল্লেখ করেন এ চামড়া ব্যবসায়ী নেতা।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৩৩ ঘণ্টা, জুন ১৯, ২০২৪
এসএস/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।