ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৩০ মে ২০২৪, ২১ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

বরিশালের দুর্গাসাগরে অষ্টমী স্নানোৎসব

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭১০ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০২৪
বরিশালের দুর্গাসাগরে অষ্টমী স্নানোৎসব

বরিশাল: বরিশালের ঐতিহ্যবাহী দুর্গাসাগরে অনুষ্ঠিত হয়েছে অষ্টমী স্নানোৎসব। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের এ উৎসবে যোগ দিতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাজারো মানুষ মাধবপাশার দুর্গাসাগর পাড়ে জড়ো হয়।

 

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) ভোর থেকেই পুণ্যার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে মাধবপাশার এ দুর্গাসাগর পাড়।  

চৈত্র মাসের অষ্টমী তিথিতে এ দুর্গাসাগরে স্নান করে পাপ মোচনের আশায় প্রতি বছরই বিভিন্ন স্থান থেকে সনাতন ধর্মাবলম্বী এখানে আসেন। সনাতন ধর্মাবলম্বী পুণ্যার্থীরা গঙ্গাদেবীর চরণে ফুল সমর্পণ করে পূজা, অর্চনা ও প্রার্থনাসহ নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পাপমুক্তির বাসনার স্নান সমাপ্ত করেন। অনেকে মানত ক‌রে মনোবাসনা পূরণের জন্য। আগত ভক্তদের বিশ্বাস, এ জল স্পর্শমাত্রই সবার পাপমোচন হয়। এ পবিত্র জলে স্নান করলে চিরমোক্ষ লাভ করা যায়।  

পুণ্য লা‌ভের আশায় স্না‌ন কর‌তে আসা ব‌রিশাল নগরের কাঠের পোল এলাকার নারায়ন চন্দ্র ব‌লেন, গত এক যুগ ধ‌রে এ অষ্টমী তি‌থির দি‌নে পুণ্য লা‌ভের আশায় স্নান কর‌ছি। ব্রহ্মা দেব ও গঙ্গা দেবীর কৃপা লাভ করাই মূল উদ্দেশ্যে।  

পু‌রো‌হিতরা জানান, অষ্টমী স্না‌নের তি‌থি সোমবার (১৫ এপ্রিল) বিকেল ৪টা ২০ মিনিটে শুরু হয়ে, শেষ হবে মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) বিকেল ৪টা ৫৬ মিনিটে।

স্না‌নোৎসব‌কে কেন্দ্র ক‌রে দুর্গাসাগ‌রের পা‌শের স্কুল মা‌ঠেই ছি‌ল গ্রামীণ শিল্প মেলার আ‌য়োজন। বাহা‌রি মি‌ষ্টির পসরাসহ বিভিন্ন খেলনার দোকান দেখা গে‌ছে মেলায়।  

এদিকে পুণ্যার্থীদের নিরাপত্তায় পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের পাশাপাশি র‌্যাব ও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।  

ব‌রিশাল মে‌ট্রোপ‌লিটন পু‌লি‌শের এয়ার‌পোর্ট থানার প‌রিদর্শক (তদন্ত) লোকমান হো‌সেন বাংলানিউজকে ব‌লেন, দুর্গাসাগর পাড় ও এর আশপাশে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব‌্যবস্থা গ্রহণ করা হ‌য়ে‌ছে। পাশাপা‌শি অতিরিক্ত পু‌লিশ মোতায়েন করা র‌য়ে‌ছে।  

এদিকে দূর্গাসাগরে পূর্ণ স্নানে গিয়ে পানিতে ডুবে মন্দিপ মণ্ডল নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে।  

প্রসঙ্গত, ১৭৮০ খ্রিস্টাব্দে চন্দ্র দ্বীপ পরগনার তৎকালীন রাজা শিব নারায়ণ এলাকাবাসীর পানির সংকট নিরসনে মাধবপাশায় একটি বৃহৎ দিঘি খনন করেন। মা দুর্গাদেবীর নামে দিঘিটির নামকরণ করা হয় দুর্গাসাগর। প্রত্নতত্ত্ব সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিবর্তে দুর্গাসাগর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করছে জেলা প্রশাসন। দুর্গাসাগরের তিন দিকে ঘাটলা ও দিঘির ঠিক মাঝখানে ৬০ শতাংশ ভূমির ওপর টিলা।  

দিঘির জলাভূমির আয়তন ২৭ একর। এর চারপাশে রয়েছে বিভিন্ন বৃক্ষ শোভিত বন। সবমিলিয়ে দুর্গাসাগরের আয়তন ৪৫ দশমিক ৪২ একর। দিঘির মধ্যখানে রয়েছে গাছ-গাছালিতে ছায়া দৃষ্টিনন্দন একটি দ্বীপ।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭১০ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০২৪
এমএস/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।