ঢাকা, শনিবার, ৩০ চৈত্র ১৪৩০, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৩ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

বরগুনা প্রেসক্লাবে মারধরে আহত সাংবাদিকের মৃত্যু, ১৩ জনের নামে মামলা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩০ ঘণ্টা, মার্চ ৪, ২০২৪
বরগুনা প্রেসক্লাবে মারধরে আহত সাংবাদিকের মৃত্যু, ১৩ জনের নামে মামলা তালুকদার মাসউদ

বরগুনা: বরগুনা প্রেসক্লাবে আটকে রেখে মারধরের পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাংবাদিক তালুকদার মাসউদের মৃত্যুর ঘটনায় হত্যা মামলা করা হয়েছে।  

মৃত্যুর দুইদিন পর আজ সোমবার (৪ মার্চ) দুপুরে তালুকদার মাসউদের স্ত্রী সাজেদা বেগম বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে বরগুনা সদর থানায় মামলাটি করেন।

আসামিদের মধ্যে পাঁচজন সাংবাদিক রয়েছে।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে বরগুনা প্রেসক্লাবে তালুকদার মাসউদকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। পরে খবর পেয়ে বরগুনা সদর থানার পুলিশ তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার তার মৃত্যু হয়।

তালুকদার মাসউদ দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার বরগুনা জেলা প্রতিনিধি ছিলেন। এ ছাড়া বরগুনা সদর উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ছিলেন।

এ ঘটনায় হওয়া মামলার আসামিরা হলেন- এনটিভির বরগুনা জেলা প্রতিনিধি আ স ম হাফিজ আল আসাদ ওরফে সোহেল হাফিজ, যমুনা টেলিভিশনের প্রতিনিধি ফেরদৌস খান ইমন, ডিবিসি নিউজের আবদুল মালেক, সময় টেলিভিশনের সাইফুল ইসলাম, মোহনা টেলিভিশনের জাফর হোসেন হাওলাদার এবং তাদের সহযোগী আরিফুল ইসলাম (২৮), মো. কাসেম হাওলাদার (৩০), মো. ছগির হোসেন (২৮), ওয়ালিউল্লাহ ইমরান (২৮), জাহিদুল ইসলাম (২৮), সোহাগ হাওলাদার (২৫), এ এস এম সিফাত (২৭) ও শহিদুল ইসলাম (৪৫)।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, তালুকদার মাসউদ সাংবাদিকতা করায় বরগুনা প্রেসক্লাবের সদস্য হওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পরে ২০১৫ সালের ২৯ জুলাই ‘বরগুনা জেলা প্রেসক্লাব’ নামে একটি সংগঠন করেন। এতে বরগুনা প্রেসক্লাবের নেতৃস্থানীয় কিছু সদস্য তালুকদার মাসউদের ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টার দিকে বরগুনা প্রেসক্লাবের সদস্য মুশফিক আরিফের সঙ্গে বরগুনা প্রেসক্লাবে গিয়ে ক্যারাম খেলছিলেন তালুকদার মাসউদ। সেটি দেখে এনটিভির বরগুনা প্রতিনিধি সোহেল হাফিজ ক্ষিপ্ত হয়ে তালুকদার মাসউদকে গালিগালাজ শুরু করেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে তর্ক শুরু হয়। একপর্যায়ে সোহেল হাফিজসহ আসামিরা প্রেসক্লাবের গেট বন্ধ করে তাকে মারধর করেন।  

এজাহারের বর্ণনা অনুযায়ী, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালেও আসামিরা গেট তালাবদ্ধ করে রাখেন। প্রায় এক ঘণ্টা প্রেসক্লাবে আটক থাকার পর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুর রহমান, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি বশিরুল আলম প্রেসক্লাবে প্রবেশ করে তাকে উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালের শের-ই–বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনার ১৩ দিন পর শনিবার রাত ১১টার দিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তালুকদার মাসউদ।

তালুকদার মাসউদের স্ত্রী সাজেদা বেগম বলেন, ‘জেলা প্রেসক্লাব গঠনের পর থেকেই বরগুনা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এনটিভির প্রতিনিধি সোহেল হাফিজ ও তার অনুসারী কিছু সাংবাদিক আমার স্বামীর ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন। জেলা প্রেসক্লাব বন্ধ করতে বেশ কয়েকবার সোহেল হাফিজ আমার স্বামীকে হুমকিও দিয়েছেন। এ কারণেই সোহেল হাফিজসহ অন্যরা আমার স্বামীকে প্রেসক্লাবে আটকে রেখে নির্যাতন করেন। ফলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমার স্বামী মৃত্যুবরণ করেন। ’ 
স্বামীর মৃত্যুর পর ছেলে-মেয়েকে নিয়ে দিশাহারা হয়ে পড়েছেন উল্লেখ করে সাজেদা বলেন, ‘আমি এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই। ’
এ বিষয়ে জানতে হাফিজ আল আসাদ ওরফে সোহেল হাফিজের মোবাইল ফোনে সোমবার বিকেলে কয়েক দফা যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

বরগুনা প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম মোস্তফা কাদের বলেন, এ ঘটনায় মামলা হওয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রেসক্লাবে অপ্রীতিকর ঘটনায় মাসউদ আহত হলেও চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে তিনি বরগুনায় এসেছিলেন। পরে আবার অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন।

বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম মো. মিজানুর রহমান বলেন, সাংবাদিক তালুকদার মাসউদের স্ত্রী সাজেদা বেগম বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেছেন। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৫ ঘণ্টা, মার্চ ০৪, ২০২৪
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।