ঢাকা, রবিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

ফতুল্লায় অপহৃত দুই যুবক উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭০১ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০২৩
ফতুল্লায় অপহৃত দুই যুবক উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার গ্রেফতার মাজহারুল

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার দাপায় পাঁচ লাখ মুক্তিপণ চেয়ে দুই যুবককে অপহরণের ১৮ ঘণ্টা পর হাত-পা বাধাবস্থায় উদ্ধারসহ অপহরণকারীচক্রের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ।

শুক্রবার (২৪ মার্চ) আসামিকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ফতুল্লা দাপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন চন্দ্রা বাড়ির ভেতরে অভিযান চালিয়ে অপহৃতদের উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার ব্যক্তির নাম মাজহারুল।  

তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় অপহরণকারী চক্রের মূল হোতা কামরুল ও তার অপর সহোযোগিরা। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাল টেপ পেঁচানো বেশ কিছু লাঠি ও লোহার রড উদ্ধার করে।

অপহরণকারীদের কবল থেকে উদ্ধার পাওয়া যুবকরা হলেন- ফতুল্লা মডেল থানার শিয়াচর সাউথ কমিউনিটি সেন্টার সংলগ্ন মৃত কাজী আবু তাহেরের ছেলে ইয়াসীন (৪৩) ও শিয়াচর হাজী হাজী বাড়ির শামিম মিয়ার ভাড়াটিয়া আব্দুল খালেক তালুকদারের ছেলে মনির (৩৬)।

গ্রেফতার মাজহারুল ইসলাম ফতুল্লা মডেল থানার দাপা ইদ্রাকপুর আনোয়ার হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া মো. সাইদুর রহমানের ছেলে।  

এ বিষয়ে অপহৃত ইয়াসীনের বড়ভাই কাজী মো. ইদ্রিস বাদী হয়ে শুক্রবার (২৪ মার্চ) ফতুল্লা মডেল থানায় গ্রেফতার মাজহারুলসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, বাদীর ভাই ইয়াসীন ও মনির বুধবার (২২ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে শারজাহান রোলিং মিলস্থ বাজারের একটি চায়ের দোকানে বসে চা খাচ্ছিলেন। চা পান শেষে পায়ে হেঁটে বাসায় যাওয়ার পথে শারজাহান রোলিং মিলস খা বাড়ীর সামনে পৌঁছামাত্র গ্রেফতার মাজহারুল, অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা কামরুল (২২), আল আমিন (২৪), রাসেল (২১), মমিন (২১), তারেক (২৫), রবিন (২৭) সহ অজ্ঞাতনামা আরও ২-৩ জন দেশীয় তৈরী ধারালো অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ইয়াসীন ও মনিরকে পরিত্যক্ত চন্দ্রাবাড়ীর একটি টিনশেড ঘরের ভেতর নিয়ে আটকে রেখে হাত-পা বেঁধে মারধর করে। এক পর্যায়ে মনিরের ফোন দিয়ে বাদীর ভাই অপহৃত ইয়াসীনের ছেলে রায়হানের (১৬) কাছে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। মুক্তিপণের দাবিতে অভিযুক্তরা অপহৃতদের মারধর অব্যাহত রাখে। পরে সকালে বিষয়টি ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশকে লিখিতভাবে জানানো হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ রিজাউল হক দিপু জানান, অভিযোগের সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় অপহরণকারীদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে দাপা পরিত্যক্ত চন্দ্রাবাড়ীর একটি টিনশেড ঘরে অভিযান চালিয়ে অপহরণকারীদের কবল থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয় অপহৃতদের। এসময় গ্রেফতার করা হয় অপহরণকারীচক্রের এক সদস্যকে সেই সঙ্গে উদ্ধার করা হয় লোহার রড, টেপ পেঁচানো লাঠি। গ্রেফতার ব্যক্তিকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। জড়িত অপর আসামিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৯ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০২৩
এমআরপি/এসএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।