ঢাকা, বুধবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৬ রজব ১৪৪৪

জাতীয়

বরগুনায় কোটি টাকার সুপারি বিক্রির প্রত্যাশা

জাহিদুল ইসলাম মেহেদী, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৫৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১, ২০২২
বরগুনায় কোটি টাকার সুপারি বিক্রির প্রত্যাশা

বরগুনা: উপকূলীয় জেলা বরগুনায় সবচেয়ে বেশি সুপারি উৎপাদন হয়। এখানকার সুপারি আকারে ছোট হলেও খেতে মিষ্টি হওয়ায় স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় চাহিদা মিটিয়ে থাকে।

মৌসুমের শুরু থেকেই দেশের বিভিন্ন জেলার ব্যবসায়ীরা এসে সুপারি কিনে নেন।  

ব্যবসায়ীরা জানান, ছোট-বড় প্রায় সব বাজারেই চলছে সুপারির জমজমাট বেচাকেনা। এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় জেলার ছয়টি উপজেলার গাছ থেকে এবার কোটি টাকার সুপারি বিক্রি করা যাবে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

পাথরঘাটা ও বরগুনা সদর উপজেলার একাধিক ব্যবসায়ী বাংলানিউজকে জানান, এবার প্রতিটি সুপারি দেড় থেকে ২ টাকা দিয়ে কিনতে হচ্ছে। প্রতি কুড়ি (২২০টি) সুপারি ৩৫০-৪১০ টাকা পর্যন্ত বেচাকেনা হয়। গত দুই সপ্তাহের তুলনায় চলতি সপ্তাহে সুপারির দাম বেড়েছে। ব্যবসায়ী ও সুপারি চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে। এভাবে দুই পক্ষ লাভবান হওয়ার সুবাদে দিন দিন এই অঞ্চলে সুপারিবাগানের সংখ্যা ও পরিধি বাড়ছে। এবার সুপারি উৎপাদন কম হওয়ায় দাম বেশি। তবে আশানুরূপ বৃষ্টি না হওয়ায় এ বছর সুপারির আকার অনেকটা ছোট। বেশি দামে কিনলেও পরে বিক্রি করতে গেলে দাম কমে যাওয়ার শঙ্কা করছেন তারা।

স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অক্টোবর থেকে নভেম্বর পর্যন্ত বরগুনার পাথরঘাটা, আমতলী, তালতলী, বামনা, বেতাগী ও সদর উপজেলার প্রতিটি এলাকায় সুপারি কেনাবেচা হয়। এখন প্রতিদিনই স্থানীয় বাজারগুলোতে বিক্রি হচ্ছে লাল রঙের পাকা সুপারি। মৌসুমের এসময়ে অস্থায়ী সাপ্তাহিক হাট-বাজারগুলো পুরোদমে জমজমাট থাকে। বিভিন্ন এলাকার পাইকারি ব্যবসায়ীরা সাপ্তাহিক হাট-বাজার থেকে সুপারি কিনে সংরক্ষণ করেন এবং অন্য মৌসুমে বিক্রি করেন। আবার বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা বরগুনায় এসে সুপারি কিনে নানাপ্রান্তে নিয়ে যান। সুপারির দাম অনেকাংশেই নির্ভর করে চাহিদার ওপর। সাধারণত সুপারি কাঁচা, ভেজা ও শুকিয়ে বিক্রি করা হয়। আগের চেয়ে এখন বেশি মানুষ সুপারি খায়। সবাই জানে, এটি স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ; এরপরও লোকজন আসক্তির কারণে খেয়েই চলেছে। এটা অনেকটা চা খাওয়ার মতো অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। তবে তা ভয়ানক একটা বদঅভ্যাসই বটে!

সদর উপজেলার ফুলঝুড়ি ইউনিয়নে মীরার হাট এলাকার বাসিন্দা কাওসার সিদ্দিকী বলেন, বাপ-দাদারা বাগান রেখে গেছেন। এর নারিকেল-সুপারি বিক্রি করেই আমার সংসার চলে। সুপারির ওপর অনেক মানুষের জীবন-জীবিকা নির্ভর করে। চারা রোপণের পর সাধারণত ৫ বছরে গাছে ফল ধরে। ১০-৪০ বছর পযর্ন্ত সবোর্চ্চ ফলন হয়। একটি গাছে ৩-৫টি ছড়া হতে পারে।

বরগুনা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু সৈয়দ মো. জোবায়দুল আলম বলেন, গেল বছরের চেয়ে এ বছর এ অঞ্চলে ৩০ শতাংশ বেশি সুপারির ফলন হয়েছে। সুপারি হলো এ অঞ্চলের কৃষকদের বাড়তি আয়ের একটি ফসল। মৌসুমি অর্থকরী ফসল উৎপাদনে উৎসাহিত করতে মাঠ পর্যায়ে কৃষি কর্মকর্তাদের তৎপরতায় এ জেলায় সুপারির বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষকেরা লাভবান হওয়ায় এলাকাভিত্তিক সুপারি চাষ ক্রমশ বাড়ছে। বসতভিটার চারদিকে, পরিত্যক্ত জমিতে, রাস্তার দু'ধারে সুপারি গাছ লাগিয়ে কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন। গেল কয়েকবছর ধরে অনেক কৃষক বাণিজ্যিকভাবে সুপারি উৎপাদন করছেন। সুপারি গাছ লাগানোর ৬-৭ বছর পরই কৃষকরা ফলন পেতে শুরু করেন।

বাংলাদেশ সময়: ১০৫০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০১, ২০২২
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa