ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

মনোকথা

শৈশবের আবেগপ্রবণতা থেকে হাইপারটেনশন

মনোকথা ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৩৩ ঘণ্টা, মে ৫, ২০১৫
শৈশবের আবেগপ্রবণতা থেকে হাইপারটেনশন

ঢাকা: শৈশবের আবেগপ্রবণতার সঙ্গে রক্তচাপের সম্পর্ক রয়েছে। যে কারণে শিশুকালের যৌন হয়রানি ও পরিবার থেকে অবজ্ঞার মতো প্রায় ১০টি ভিন্ন কারণ ভবিষ্যতে হাইপারটেনশন এবং করনারি আরটেরি রোগের কারণ হতে পারে বলে মনে করছেন গবেষকরা।



সম্প্রতি প্রকাশিত একটি জার্নালে এমন তথ্য জানিয়েছেন জর্জিয়া রিজেন্ট ইউনিভার্সিটির আওতাধীন মেডিকেল কলেজ অব জর্জিয়ার জেনেটিক ইপিডেমিওলজিস্ট ডা. সায়ং সু।
তিনি বলেন, পারিবারিক কলহের মধ্যে বেড়ে ওঠা একটি শিশুর ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটতে পারে। শৈশবের নানা অপ্রীতিকর অভিজ্ঞতা শরীরের রক্তচাপ বাড়ায়। এটি এক পর্যায়ে প্রবণতা হয়ে দাঁড়ায়।

জর্জিয়া মেডিকেলের পর্যবেক্ষণে থাকা ব্যক্তিদের অতীত তথ্য পর্যালোচনা করা হয় এ গবেষণায়। সমান সংখ্যক নারী ও পুরুষ এবং কৃষ্ণাঙ্গ ও শ্বেতাঙ্গ উভয়ের রক্তচাপ বিশ্লেষণ করা হয়।

গবেষণায় অংশগ্রহণকারী উচ্চ ও মধ্যবিত্ত পরিবারের শতকরা ৫০ শতাংশ শিশু জানায়, অতীতে তাদের অপ্রীতিকর অভিজ্ঞত‍া রয়েছে এবং প্রায় ৪০ শতাংশ শিশু জানায় তারা ক্রমাগত পরিবার থেকে অবজ্ঞা পেয়ে বড় হয়েছে। তবে শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় কৃষ্ণাঙ্গদের সহ্য ক্ষমতা তুলনামূলক বেশি।

২০১০ সালে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, মধ্য বয়সী নারীরা হাইপারটেনশনে বেশি আক্রান্ত হন। এদের অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, অতীতে কোনো অপ্রীতিকর অভিজ্ঞতা রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩১ ঘণ্টা, মে ০৪, ২০১৫
এটি/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa