ঢাকা, সোমবার, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩

লন্ডন

স্টকহোমে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কনফারেন্স

সৈয়দ আনাস পাশা, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩২৬ ঘণ্টা, এপ্রিল ২, ২০১৬
স্টকহোমে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কনফারেন্স ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

স্টকহোম: একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির অল ইউরোপীয় কনফারেন্সে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমের সেনসাস স্টুডিওতে অনুষ্ঠিত ওই সমাবেশে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির, সাধারণ সম্পাদক কাজি আতিকুর রহমান মুকুলসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের নির্মূল কমিটির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

কনফারেন্স আয়োজনে সহযোগিতায় ছিলো SENSUS এবং BHBSUC।

কনফারেন্সের প্রথম অধিবেশনে ইউরোপীয় কমিটিগুলোর নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সুইডেন চ্যাপ্টারের সভাপতি আখতার জামান, সাধারণ সম্পাদক তরুণ কান্তি চৌধুরী, ব্রটেন চ্যাপ্টারের সহসাধারণ সম্পাদক জামাল খান, কেন্দ্রীয় সদস্য আনসার আহমেদ উল্লা, সুইজারল্যান্ড চ্যাপ্টারের আহ্বায়ক রহমান খলিলুর প্রমুখ।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সভাপতি শাহরিয়ার কবির ও সাধারণ সম্পাদক কাজি আতিকুর রহমান মুকুলও এই অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন।

অধিবেশনে তরুণ কান্তি চৌধুরীকে সভাপতি ও আনসার আহমেদ উল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করে সংগঠনের অল ইউরোপীয় কমিটি গঠন করা হয়। সংগঠনের ইউরোপীয় দেশগুলোর প্রেসিডেন্ট ও সেক্রেটারি পদাধিকার বলে এই কমিটির সদস্য থাকবেন বলে জানানো হয়। একই অধিবেশনে আখতার জামানকে প্রেসিডেন্ট ও তরুণ কান্তি চৌধুরীকে সেক্রেটারি করে নির্মূল কমিটির সুইডেন শাখার কমিটিও ঘোষিত হয়।

কনফারেন্সের দ্বিতীয় অধিবেশনে শাহরিয়ার কবির ও আখতার জামানের যৌথ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় সেমিনার। এতে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুইডেনের সাবেক ইন্টিগ্রেশন মিনিস্টার ও লিবারেল পার্টির গ্রুপ লিডার সৈয়দ আশিফ শাহকার, স্টকহোম কাউন্টির সাবেক বিচারক, সুইডিস পেন এর প্রেসিডেন্ট ওঁলা লার্জমো, সুইডেনে বাংলাদেশের অ্যাম্বাসেডর মো. গোলাম সরোয়ার ও লন্ডন হাইকমিশনের মিনিস্টার প্রেস নাদিম কাদির প্রমুখ।

ঘোষণায় একাত্তরের মানবতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের উদ্যোগে সমর্থন ও সন্তোষ প্রকাশ করে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল বিরোধী জামাতি ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সজাগ থাকতে সবার প্রতি আহবান জানানো হয়।

কনফারেন্স ঘোষণায়, ধর্মের নামে বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাস সৃষ্টির মৌলবাদীদের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে ইউরোপের মুসলিম সম্প্রাদায়ের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
 
একাত্তরে বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে গণহত্যায় নিহতদের স্মরণে প্রদীপ প্রজ্জলনের মাধ্যমে ঘোষিত হয় কনফারেন্সের সমাপ্তি।

বাংলাদেশ সময়: ২৩২৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ০২, ২০১৬
এমজেএফ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa