ঢাকা, সোমবার, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

লন্ডন

বঙ্গবন্ধু জয় বাংলা বলেছেন, আমি সেখানে ছিলাম

আনাস পাশা, লন্ডন করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৪৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৪
বঙ্গবন্ধু জয় বাংলা বলেছেন, আমি সেখানে ছিলাম ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

লন্ডন: প্রবীণ সাংবাদিক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এক সময়ের প্রেস সেক্রেটারি আমিনুল হক বাদশাহ এখন গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় লন্ডনের প্রিন্স রয়েল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির জনক বিষয়ক ইতিহাসের অংশ এই প্রবীণ সাংবাদিক বঙ্গবন্ধু পরিবারের একজন সদস্যের মতোই ছিলেন।



১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানের সেই ঐতিহাসিক জনসমুদ্রে বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে যেসব ছাত্রনেতা মঞ্চে ছিলেন তাদেরই একজন আমিনুল হক বাদশাহ। জাতির জনকের স্নেহভাজন এই সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বঙ্গবন্ধুর প্রেস সেক্রেটারির দায়িত্বও পালন করেছেন। বিভিন্ন সময় লন্ডনে বিভিন্ন সভা সমাবেশ ও আড্ডায় বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও ৭ই মার্চের সেই ঐতিহাসিক ভাষণ নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন এই প্রবীণ সাংবাদিক।

সহকর্মী সাংবাদিকদের সঙ্গে আড্ডায় ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, জয়বাংলা’ ৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর সেই বিশ্ব সেরা অন্যতম ভাষণের এই অংশটুকু নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন বাদশা, তার জীবনের সেই সেরা সময়গুলো নিয়ে গর্বিত আমিনুল হক বাদশাহ বিভিন্ন সময় বাংলানিউজ প্রতিবেদকের কাছেও এ বিষয়ে করেছেন অনেক গল্প।

সম্প্রতি মুক্তিবাহিনীর উপ সেনাপতি মুক্তিযুদ্ধকালে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ডেপুটি চিফ অব স্টাফ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার ভাইস মার্শাল এ কে খন্দকারের সদ্য প্রকাশিত  ‘১৯৭১ : ভেতরে-বাইরে’ বইতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ নিয়ে নতুন বিতর্ক উস্কে দিলে ইতিহাসের অংশ আমিনুল হক বাদশার পুরোনো সেই স্মৃতিচারণ আবারও নতুন করে জানার প্রয়োজন পড়ে।

তার খোঁজ নিয়ে জানা যায় জনাব বাদশাহ গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন ধরে লন্ডনের প্রিন্স রয়েল হাসপাতালে শয্যাশায়ী রয়েছেন তিনি। রোববার দুপুরে হাসপাতাল বেডে তাকে দেখতে গেলে চেতন-অবচেতন অবস্থায় পাওয়া যায় আমিনুল হক বাদশাকে। অবেচতন অবস্থায় তাকে ডাক দিলে প্রথমে কোনই সাড়া নেই, কিছুক্ষণ পর চোখ খুলে সামনে এই প্রতিবেদককে দেখে তার সেই পরিচিত হাসি উপহার দিলেন তিনি।

এরপর আবারও চোখ বন্ধ। কিছুক্ষণ পর আবারো চোখ খুললে কিছুটা ভালোভাবেই কিছুক্ষণ কথা বলেন এই প্রতিবেদকের সঙ্গে। তাকে জানানো হয় এ কে খোন্দকারের সাম্প্রতিক ইতিহাস বিকৃতির সেই চেষ্টার কথা। বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চের ভাষণের পর কি জয়বাংলা বলেছিলেন? এমন প্রশ্ন করলে হাঁ সূচক জবাব দেন তিনি।

আপনি কি ওই সময় সেখানে ছিলেন? আবারো এমন প্রশ্ন করলে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে অবস্থানকারী প্রবীণ এই সাংবাদিকের তেজদীপ্ত জবাব, ‘অফকোর্স ছিলাম, অফকোর্স ছিলাম’। এরপর আরো অনেক কিছু বলতে চাইলেন মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অংশ এই সাংবাদিক। কিন্তু কিছুই বোঝা গেলোনা, কথা অস্পষ্ট হয়ে গেলো, খেই হারিয়ে ফেললেন। এরপর আবারো অবচেতন। এরপর দীর্ঘ কিছু সময় অপেক্ষা করার পরও বাদশা আর চোখ খোলেননি।

উল্লেখ্য, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আমিনুল হক বাদশা দীর্ঘ মাস খানেক ধরে প্রিন্স রয়েল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আরো দুই দুই বার বাইপাস অপারেশন ও হৃদপিণ্ডে বাল্ব সংযুক্ত করার পরও আবারও হৃদরোগে আক্রান্ত হন বঙ্গবন্ধুর প্রেস সেক্রটারির দায়িত্ব পালনকারী সৌভাগ্যবান এই সাংবাদিক। সেই থেকে হাসপাতালই এখন তার আপাতত স্থায়ী নিবাস। জনাব বাদশার পরিবারের পক্ষ থেকে তার রোগমুক্তির জন্যে দোয়া কামনা করা হয়েছে।

** বঙ্গবন্ধুর নামেই মুক্তিযুদ্ধ পরিচালিত হয়েছে
** ‘জয়বাংলা’ বলেই থেমেছিলেন বঙ্গবন্ধু’

বাংলাদেশ সময় : ০৭৪৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa