ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

আইন ও আদালত

ধর্ষণ মামলায় বিআইডব্লিউটিএ কর্মচারীসহ দুজন রিমান্ডে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭১২ ঘণ্টা, মার্চ ২, ২০২১
ধর্ষণ মামলায় বিআইডব্লিউটিএ কর্মচারীসহ দুজন রিমান্ডে

ঢাকা: ব্যাংকে চাকরি দেওয়ার কথা বলে এক নারীকে (৩৫) বাসায় ডেকে গণধর্ষণের অভিযোগে বিআইডব্লিউটিএ-এর এক কর্মচারীসহ দুজনকে ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (০২ মার্চ) দুপুরে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সত্যব্রত শিকদার এ আদেশ দেন।

এ দিন মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা আসামিদের আদালতে হাজির করে মামলার তদন্তের স্বার্থে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক এ আদেশ দেন।

দুই আসামি হলেন—বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) কর্মচারী সঞ্জীব কুমার দাস ও তার সহযোগী আনিকা।

গত ১ মার্চ রাতে মাদারটেক এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে সবুজবাগ থানা পুলিশ।

জানা যায়, কেরানীগঞ্জের বাসিন্দা এক নারীকে ব্যাংকে চাকরি দেওয়ার নাম করে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ মাদারটেকের একটি বাসায় ডেকে আনে সঞ্জীব দাস। তার সঙ্গে রাসেল, জামাল, আজিজুর রহমান ও আনিকা নামে এক নারী ওই বাসায় ছিলেন। সেই বাসাতেই ওই নারীকে সঞ্জীবসহ বাকিরা পালাক্রমে ধর্ষণ করেন।

এ ঘটনায় ১ মার্চ সবুজবাগ থানায় সঞ্জীবকে ১ নম্বর আসামি করে মোট পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ধর্ষণের শিকার ওই নারী। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে আনিকা ও সঞ্জীবকে গ্রেফতার করে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ধর্ষণের শিকার ওই নারী মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, পাঁচ বছর আগে স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় তার। এরপর একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। গত ১০ ফেব্রুয়ারি পূর্বপরিচিত সঞ্জীবের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে কুশল বিনিময়ের সময় তিনি তার সন্ধানে ব্যাংকে ভালো চাকরি থাকার কথা জানান। পরে চাকরি দেওয়ার কথা বলে মাদারটেকের ওই বাসায় ডেকে নেন। এক পর্যায়ে সেখানে উপস্থিত পুরুষ সদস্যরা তাকে গণধর্ষণ করেন। সেখানে উপস্থিত নারী আনিকা এ কাজে তাদের সহায়তা করেন।

এ ঘটনা জানাজানি হলে সঞ্জীব তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন বলেও মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৭১০ ঘণ্টা, মার্চ ০২, ২০২১
কেআই/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa