bangla news

আরও পাঁচ মামলায় বাবুল চিশতি গ্রেফতার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৩-০৮ ৫:০১:৫৬ পিএম
মাহবুবুল হক চিশতী

মাহবুবুল হক চিশতী

ঢাকা: ১৩৫ কোটি ৪৫ লাখ টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ফারমার্স ব্যাংকের (পদ্মা ব্যাংক) সাবেক এমডি মাহবুবুল হক চিশতীকে পাঁচ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

এ সংক্রান্ত দুদকের আবেদন মঞ্জুর করে রোববার (০৮ মার্চ) ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ আদেশ দেন।  

দুদকের আদালত পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। 

ফারমার্স ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারির অভিযোগে বেশ কয়েকটি মামলায় এর আগেই তিনি গ্রেফতার হয়ে কারাগারে রয়েছেন। এ অবস্থায় গত ২৫ ফেব্রুয়ারি এসব মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ ফয়সাল বাবুল চিশতিকে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করেন। সেদিন আসামির উপস্থিতিতে গ্রেপ্তার দেখানোর বিষয়ে শুনানির জন্য ৮ মার্চ দিন ধার্য করেন আদালত। 

সে অনুযায়ী রোববার বাবুল চিশতিকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। শুনানি শেষে আদালত তাকে এসব মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেন।

গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ দুদকের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ ফয়সাল বাদী হয়ে বাবুল চিশতি ও তার পরিবারের চার সদস্যের বিরুদ্ধে পৃথক পাঁচটি মামলা দায়ের করেন। এর মধ্যে দুটি মামলায় বাবুল চিশতির সঙ্গে তার স্ত্রী রোজী চিশতি, ছেলে রাশেদুল হক চিশতি, মেয়ে রিমি চিশতি ও ছেলের বউ ফারহানা আহমেদকেও আসামি করা হয়। এসব মামলায় বাবুল চিশতির স্ত্রী রোজী চিশতি ও মেয়ে রিমি চিশতি সম্প্রতি আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, দুদকের অনুসন্ধানে বাবুল চিশতীর নামে ২৮ কোটি ৫৫ লাখ ৬১ হাজার ৫৯০ টাকার অবৈধ সম্পদ, স্ত্রী রোজি চিশতীর নামে ৩৭ কোটি ৩৮ লাখ টাকার সম্পদ, ছেলে রাশেদুল হক চিশতীর নামে ৩২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা, ছেলের বউ ফারহানা আহমেদের নামে ১৩ কোটি ৬৮ লাখ টাকার সম্পদ এবং মেয়ের নামে ২১ কোটি ২০ লাখ ৯০ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ সম্পদের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭০০ ঘণ্টা, মার্চ ০৮, ২০২০
কেআই/জেডএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-03-08 17:01:56