bangla news

প্রেস কাউন্সিলের বিবৃতি প্রত্যাহার চায় এলআরএফ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৯-১৭ ৮:৪৫:১৪ পিএম
ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের প্রেস বিজ্ঞপ্তি

ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের প্রেস বিজ্ঞপ্তি

ঢাকা: বিচারাধীন মামলার রায়কে প্রভাবিত করতে পারে এমন কোনো বিষয় গণমাধ্যমে প্রকাশ না করার অনুরোধসংক্রান্ত প্রেস কাউন্সিলের বিবৃতি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম (এলআরএফ)।

মঙ্গলবার (সেপ্টেম্বর) এলআরএফ সভাপতি ওয়াকিল আহমেদ হিরণ ও সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আহসান প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আইন, আদালত ও সংবিধান বিষয়ক সাংবাদিকদের সংগঠন ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম (এলআরএফ) বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করছে, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) একটি বিবৃতি দিয়েছে। যা তথ্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। বিবৃতিতে গত ৭ আগস্টের হাইকোর্টের রায়ের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে ‘কোনো মামলার শুনানিতে বিচারক ও আইনজীবীদের মধ্যে কথোপকথন ও যুক্তিতর্ক সংবাদপত্রে প্রকাশ করা যাবে না। এ যুক্তিতর্ক একান্তভাবে কোর্টের সম্পদ এবং এটি সংবাদপত্রে প্রকাশ যোগ্য নয়।’

এ পরিস্থিতিতে এলআরএফ মনে করে, প্রেস কাউন্সিলের এমন বিবৃতিটি গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও কণ্ঠরোধের শামিল। এলআরএফ লক্ষ্য করছে, হাইকোর্টের রায়ে এমন কোনো নির্দেশনা নেই। তবে গণমাধ্যমকর্মীদের সংবাদ প্রকাশে সতর্ক ও দায়িত্বশীল হতে বলা হয়েছে ওই রায়ে। এ প্রেক্ষাপটে প্রতীয়মান হয়, হাইকোর্টের রায়ের ভুল ব্যাখ্যা দিয়েছে প্রেস কাউন্সিল। যা অনাকাঙ্ক্ষিত ও অপ্রত্যাশিত। এ বিবৃতির তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে এলআরএফ।

গত ১৬ মে বিচারাধীন বিষয় নিয়ে সংবাদ প্রকাশ না করতে হাইকোর্ট বিভাগ একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করলেও তা ২১ মে সংশোধন করেন সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। সংশোধনীর পর গণমাধ্যমকর্মীরা আগের মতোই আদালতের বিচারাধীন বিষয় ও কথোপকথন নিয়ে রিপোর্ট করে আসছে। এরও আগে গত ৯ এপ্রিল প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এক সৌজন্য সাক্ষাতে এলআরএফ নেতাদের বলেছিলেন, ‘আদালতে যা দেখবেন, তা-ই লিখবেন।’

এরপর প্রেস কাউন্সিলের এ রকম বিবৃতি দেওয়ার অবকাশ নেই বলে মনে করে এলআরএফ। এ অবস্থায় অবিলম্বে ওই বিবৃতি প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছে এলআরএফ। অন্যথায় স্বাধীন সাংবাদিকতার স্বার্থে এলআরএফ পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করবে।

বাংলাদেশ সময়: ২০৩৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯
ইএস/টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   আইন
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আইন ও আদালত বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-09-17 20:45:14