ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১৮ মহররম ১৪৪৬

আইন ও আদালত

শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান প্রধান বিচারপতির

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬০৯ ঘণ্টা, জুলাই ১০, ২০২৪
শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান প্রধান বিচারপতির

ঢাকা: সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

বুধবার (১০ জুলাই) মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করে জারি করা পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের বিষয়ে চার সপ্তাহের স্থিতাবস্থা দেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের আপিল বেঞ্চ।

আগামী ৭ আগস্ট এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি হবে।

এ সময় প্রধান বিচারপতি আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সকল প্রতিবাদী কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের স্ব স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফিরে গিয়ে নিজ নিজ কাজে অর্থাৎ পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে বলা হলো। দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও প্রক্টর এবং অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানেরা তাদের ছাত্র-ছাত্রীদের স্ব স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফিরিয়ে নিয়ে শিক্ষার উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করবেন বলে এই আদালত আশা করে।

আদালত আরও বলেন, স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিবাদকারী ছাত্র-ছাত্রীরা চাইলেও আইনজীবীর মাধ্যমে তাদের বক্তব্য এই আদালতের সামনে তুলে ধরতে পারেন। আদালত মূল আবেদন নিষ্পত্তির সময় তাদের বক্তব্য বিবেচনায় নেবেন।

এরপর আদালত রায়ের ওপর চার সপ্তাহের জন্য স্থিতাবস্থা দেন। একইসঙ্গে আগামী ৭ আগস্ট শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।

এর আগে বেলা পৌনে ১২টার দিকে আপিল বিভাগে এ বিষয়ে শুনানি হয়। প্রথমে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, ২০১৮ সাল থেকে সরকারি চাকরিতে কোটা ছাড়াই নিয়োগ হয়ে আসছে। বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিসের লিখিত পরীক্ষা হয়েছে, মৌখিক পরীক্ষা হবে। অপরদিকে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের প্রিলিমনারি পরীক্ষা হয়েছে। এখন লিখিত পরীক্ষার অপেক্ষা। হাইকোর্ট থেকে কোটা নিয়ে একটি রায় এসেছে। এই রায়ে পরিপত্র বাতিল করা হয়েছে। নিয়োগ নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। এই অবস্থায় আপনারা আমাদের রায়ের বিরুদ্ধে নিয়মিত আপিল করতে বলেছেন। কিন্তু রায় এখনও স্বাক্ষর হয়নি। তাই আমরা হাইকোর্টের রায় স্থগিত চাচ্ছি।

এরপর শাহ মঞ্জুরুল হক বলেন, আমরা দুজন ছাত্রের পক্ষে আবেদন করেছি। যদিও এ দুজনের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের কোনো সম্পর্ক নেই। তদুপরি শিক্ষার্থী হিসেবে আমরা নিজেদের মতামত জানাতে চেম্বার জজে আবেদন করেছিলাম। চেম্বার আদালত আজ শুনানির জন্য রেখেছেন। আমরা চাচ্ছি চূড়ান্ত শুনানি না হওয়া পর্যন্ত এই রায়টা স্থগিত থাকুক।

এরপর রিটকারীদের আইনজীবী মুনসুরুল হক চৌধুরী বলেন, আমরা কোটা ব্যবস্থা পুনর্বহাল চাইনি। আমরা শুধু মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল রাখার জন্য বলেছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালে মুক্তিযোদ্ধা কোটা চালু করেন। ’৭৫ সালের পর ২১ বছর মুক্তিযোদ্ধা কোটা প্রয়োগ হয়নি। এরপর ১৯৯৭ সাল থেকে চার বছর এই কোটা প্রয়োগ হয়। এরপর ২০১৮ সালে নাতি-নাতনির জন্য কোটা প্রয়োগের বিধান হলেও তা প্রয়োগ হয়নি।

তিনি বলেন, বলা হচ্ছে মুক্তিযোদ্ধারা মেধাহীন। অথচ কোটায় চাকরি পেতে হলেও তাকে সব পরীক্ষায় সমভাবে প্রতিযোগিতা করেই পাস করে আসতে হয়।

তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, রায়টা যেহেতু আমাদের সামনে নেই, তাই সেখানে কী আছে আমরা কেউ বলতে পারছি না। এ রায় নিয়ে রাস্তায় আন্দোলন করছে। এখন তারা আদালতে এসেছে এজন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই। কারণ হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে কিছু করতে হলে এটা এখান থেকেই করতে হবে। আমরা এটা বহাল, বাতিল বা সংশোধন করতে পারি। আমরা সরকারকেও আদেশ দিতে পারি।

এরপর কোটা বাতিল করে জারি করা পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের ওপর স্থিতাবস্থা দেন সর্বোচ্চ আদালত।

এ আদেশের ফলে আপাতত কোটা বাতিল করে দেওয়া পরিপত্র বহাল থাকবে বলে জানিয়েছেন দুই শিক্ষার্থীর আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক।

তিনি বলেন, হাইকোর্টের রায়ের ওপর স্থিতাবস্থা থাকছে। এর ফলে নিয়োগ পদ্ধতিতে আপাতত কোটা পদ্ধতি প্রয়োগ হবে না। ২০১৮ সালের পর যেভাবে নিয়োগ হয়ে আসছিল, সেই পদ্ধতিই বহাল থাকবে।

অপরদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে আমি বলব, আপনাদের আর আন্দোলন করার যৌক্তিক কারণ নেই। যেহেতু আদালত একটি অন্তর্বর্তী আদেশ দিয়েছেন। আপনারা সবাই রাস্তা ছেড়ে দেন। জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করবেন না, জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে মানুষের সমস্যা হয়। মানুষের সমস্যা হলে রাষ্ট্রকে দেখতে হয়। এ কথাগুলো বিবেচনা করে অবশ্যই আপনারা আপনাদের আন্দোলন প্রত্যাহার করুন।

এর আগে বুধবার সকাল ১০টার দিকে আবেদনটি শুনানির জন্য উপস্থাপিত হয়। তখন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন শুনানির জন্য সাড়ে ১১টায় সময় দেওয়া হয়েছে। দুটি আবেদন একসঙ্গে শুনানি হোক। এ জন্য সময় চান। তবে আদালত সময় নামঞ্জুর করে বেলা সাড়ে ১১টায় রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের আবেদন শুনানির জন্য সময় নির্ধারণ করেন।

এর আগে মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আল সাদী ভুইয়া এবং উর্দু বিভাগের শিক্ষার্থী আহনাফ সাঈদ খান চেম্বার কোর্টের অনুমতি নিয়ে একটি সিএমপি (হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে) আবেদন করেন। ওই দিনই আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে সেই আবেনের শুনানির জন্য আজকের দিন ধার্য করেন চেম্বার আদালত।

মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের এক রিটে জারি করা রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে গত ৫ জুন কোটা পুনর্বহাল করে বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ রায় দেন।

পরে রাষ্ট্রপক্ষ রায়টি স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেন। আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত গত ৯ জুন আবেদনটি শুনানির জন্য ৪ জুলাই নিয়মিত বেঞ্চে পাঠান। ৪ জুলাই হাইকোর্টের রায় স্থগিত করা হয়নি। তবে রায়ের অনুলিপি পাওয়ার পর রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করতে বলা হয়েছে।

হাইকোর্টের রায় স্থগিতে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের ওপর ৪ জুলাই প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ ‘নট টু ডে’ (আজ শুনানি নয়) আদেশ দেন। রিট আবেদনকারী পক্ষের সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ আদেশ দেন সর্বোচ্চ আদালত।

নবম গ্রেড (পূর্বতন প্রথম শ্রেণি) ও ১০ম থেকে ১৩তম গ্রেডের (পূর্বতন দ্বিতীয় শ্রেণি) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করে ২০১৮ সালে সরকার পরিপত্র জারি করে।

২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর জারি করা এমন পরিপত্র চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে রিট দায়ের করেন অহিদুল ইসলামসহ সাত শিক্ষার্থী। একই বছরের ৭ ডিসেম্বর হাইকোর্ট রুল জারি করেন। ওই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে চলতি বছরের ৫ জুন রায় দেন হাইকোর্ট।

রায়ের পর জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. মুনসুরুল হক চৌধুরী জানান, পুরো কোটা বাতিল না করে কেবল নবম থেকে ১৩তম গ্রেডের কোটা বাতিল করা হয়েছিল। এটি অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। এখন থেকে এসব গ্রেডে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় তাদের সন্তানদের নিয়োগে আর কোনো বাধা নেই।

এরপর ওই রায় স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে আবেদন করে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৮ ঘণ্টা, জুলাই ১০, ২০২৪
কেআই/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।