ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২২ মে ২০২৪, ১৩ জিলকদ ১৪৪৫

আইন ও আদালত

মোটরসাইকেলের জন্য চালককে হত্যা: চারজনের যাবজ্জীবন

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০০৪ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০২৪
মোটরসাইকেলের জন্য চালককে হত্যা: চারজনের যাবজ্জীবন

রাজবাড়ী: রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মঞ্জু শেখ (২৮) নামে এক ব্যক্তিকে হত্যা করে মোটরসাইকেল নিয়ে যাওয়ার অপরাধে চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে এক বছর করে কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ না পাওয়ায় মো. রুবেল বেপারী নামে এক আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত।  

তবে ছিনতাই করা মোটরসাইকেলটি কিনে লুকিয়ে রাখার অপরাধে ৪১১ ধারায় তাকে তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন-রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার সোহরাব মণ্ডল পাড়ার মো. সুলতান মৃধার ছেলে মো. শাহাদাত মৃধা লাভলু, একই উপজেলার আব্দুল আজিজ মৃধা পাড়ার মো. বিল্লাল মোল্লার ছেলে মো. মনোয়ার হোসেন মনু, সোহরাব মণ্ডল পাড়ার মো. বাতেন সরদারের ছেলে মো. রিপন সরদার ও মিনাজ উদ্দিন শেখ পাড়ার মো. আক্কাস শেখের ছেলে মো. কোবাদ শেখ।

বুধবার (১৫ মে) বিকেলে রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র বিচারক মোসাম্মৎ জাকিয়া পারভীন এ রায় দেন।  

রায় ঘোষণার সময় দণ্ডিত পাঁচজনের মধ্যে চার আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পলাতক আসামি শাহাদাত মৃধা লাভলুর নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

মঞ্জু শেখ গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের চর দৌলতদিয়া রহমান ফকিরের পাড়ার বাবলু শেখের ছেলে। তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন বড়। তার মুসলিমা নামে ১০ বছর বয়সী এক মেয়ে রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, মঞ্জু শেখ ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর রাতে মঞ্জুকে হত্যা করে মরদেহ দৌলতদিয়া আক্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের পেছনে আইনউদ্দিন বেপারিপাড়ায় পদ্মা নদীর শাখা খালের পাড়ে ফেলে তার ডিসকভার মোটরসাইকেলটি নিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। পরদিন ২৭ অক্টোবর সকালে স্থানীয় কৃষকরা জমিতে কাজ করতে গিয়ে মরদেহটি দেখতে পেয়ে থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে।  

এ ঘটনায় ২৭ অক্টোবর মঞ্জুর বাবা বাবলু শেখ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তে নেমে মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নেওয়ার পর মঞ্জুকে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জানতে পারে পুলিশ। তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত পাঁচজনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। দীর্ঘ শুনানি বুধবার এ রায় দেন আদালত।

তবে মামলার রায় অসন্তোষ প্রকাশ করে মঞ্জু শেখের বাবা বাবলু শেখ বলেন, এ রায়ের বিরুদ্ধে আমি উচ্চ আদালতে আপিল করব।

রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট উজির আলী শেখ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০০৩ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০২৪
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।