bangla news

বঙ্গবন্ধুর কারণেই বিশ্বে প্রকৃত বাঙালিত্বের অস্তিত্ব

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৮-১৬ ২:৩০:০৯ পিএম
‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা

‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা

কলকাতা: আমি অত্যন্ত সৌভগ্যবান যে, বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে কলেজে পড়েছিলেন ও নেতৃত্ব দেয়ার দক্ষতা অর্জন করেছিলেন আমি এখন এই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ।

বাঙালিত্বের যে তত্ত্ব বঙ্গবন্ধু সূচনা করেছিলেন সেই আদর্শের কারণেই আজ বিশ্বে প্রকৃত বাঙালিত্বের অস্তিত্ব রয়েছে বলে মন্তব্য করেন মৌলানা আজাদ কলেজের অধ্যক্ষ ড. সুভাশিস দত্ত।

বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভার বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এমন মন্তব্য করেছেন। বঙ্গবন্ধুর পাঠস্থান মৌলানা আজাদ কলেজের (ইসলামিয়া কলেজ) রেজা আলি ওয়াশাথ হলে অনুষ্ঠানটি আয়োজন করেন কলকাতা বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন। 

আলোচনায় অংশ নিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মিজানুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীরা বাংলার কথা বললেও তারা ছিল যুগে যুগে বাঙালিত্বে বিরোধীতা করা ধর্মাশ্রয়ী প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী। যারা বাংলাদেশে জন্ম গ্রহণ করেও বাংলা ভাষা, বাঙালির স্বায়ত্ত্বশাসন ও সর্বোপরি স্বাধীকার আন্দোলনের বিরোধীতা করেছিল।

১৫ আগস্টে বাংলাদেশকে আবার পূর্বপাকিস্তানে রুপান্তর করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীরা জয়বাংলার বদলে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ প্রতিষ্ঠা করেছিল বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মিজানুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে অনেকটা পথ এগিয়েছে। যা বিশ্ববাসীর কাছে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে এখন বিবেচিত।

সভাপতির বক্তব্যে উপ-হাইকমিশনার তৌফিক হাসান বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন। বঙ্গবন্ধুর সাহসী ও বীরত্বপূর্ণ নেতৃত্বের জন্য বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশে জায়গা করে নিয়েছে। 

কাউন্সিলর শাহানাজ আখতার রানুর উপস্থাপনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক পঙ্কজ সাহা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ‘চিরঞ্জিব বঙ্গবন্ধু’ শিরোনামে একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। যা দেখে হল ভর্তি দর্শক আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

বাংলাদেশ সময়: ০০২৩ ঘণ্টা, আগস্ট ১৭, ২০১৮
ভিএস/এসআই/এসআরএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

কলকাতা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2018-08-16 14:30:09