ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৭ আগস্ট ২০২০, ১৬ জিলহজ ১৪৪১

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

জঙ্গলমহলে দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে প্রচার চালালেন চিদাম্বরম

রক্তিম দাশ. সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৩১ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০১১
জঙ্গলমহলে দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে প্রচার চালালেন চিদাম্বরম

কলকাতা: বিধানসভা ভোটের প্রচারের জন্য একদিনের ঝটিকা সফরে সোমবার পশ্চিমবঙ্গে এসেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদাম্বরম।

এদিন তিনি দলীয় প্রার্থীদের সমর্থনে তিনিটি জনসভা করেন।



সকাল ৯টায় তিনি দিল্লি থেকে বিমানযোগে কলকাতায় আসেন। এরপর হেলিকপ্টারে করে সাড়ে ১০টায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলার কানিংয়ে দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে জনসভা করেন।

ওখান থেকে তিনি হেলিকপ্টার করে সাড়ে ১২টা নাগাদ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার জঙ্গলমহলের গড়বেতায় এসে কংগ্রেস প্রার্থী হেমা চৌবের জনসভায় অংশ নেন। এরপর সর্বশেষ জনসভাটি করেন বেলা ২টায় কেশপুুরে।
মাওবাদী অধ্যুষিত গড়্েবতা ও কেশপুরে এদিন তার নিরাপত্তার জন্য ব্যাপক পুলিশি ব্যবস্থা গ্রহণ করে প্রশাসন।

এদিনের ৩টি জনসভায় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজ্যের শাসকদল বামফ্রন্টের তীব্র সমালোচনা করে তৃণমুল ও কংগ্রেসের জোটের পক্ষে সওয়াল করেন। বিধানসভায় পরির্বতনের জন্য এদিন তিনি রাজ্যবাসীকে আগাম অভিনন্দন জানান।

তিনি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকার দেশের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ। জঙ্গলমহলের অনুন্নয়নের জন্য দায়ী বামেরা। তাই জন্যই মাওবাদী সমস্যা। শেষ দুবছর ৪মাস ধরে আমি বারবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে বলেছি এই বিষয়ে। তিনি বিশ্বাস করেননি। ’

এদিন তিনি আরও বলেন, আমি বলেছিলাম রাজ্যে সিপিএমের সশস্ত্র শিবির রয়েছে। নেতাই গণহত্যার পর তা প্রমান হয়ে যায়। বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর মুখ্যমন্ত্রী থাকার কোন অধিকার নেই।

জনসাধারণকে ভয় না পেয়ে ভোট দিতে বলে তিনি বলেন, বিধানসভার ভোটের পর যতদিন নতুন সরকার না আসবে ততদিন পর্যন্ত তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবে ভারত সরকার।

রাজ্যে পরিবর্তন হলে মমতা ব্যানার্জির সরকারকে কেন্দ্রীয় সরকার সবরকমের সহযোগিতা করবেন বলেও এদিন তিনি জানান।

ভারতীয় সময়: ১৮৩০ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০১১

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা এর সর্বশেষ

Alexa