ঢাকা, সোমবার, ১১ ভাদ্র ১৪২৬, ২৬ আগস্ট ২০১৯
bangla news

শান্তিপুরের রাজা-রানি (পর্ব-২)  

আব্দুস সালাম  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-১৯ ৯:২২:১৫ পিএম
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

শান্তিপুরের রাজা-রানি (পর্ব-১)
দুই রাজ্যের মাঝ দিয়ে একটি প্রধান পাকা রাস্তাও ছিল। ওই রাস্তাটি উভয় রাজ্যের লোকজনেরা ব্যবহার করতো। পার্শ্ববর্তী কোনো রাজ্যে যেতে হলে বা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে হলে ওই প্রধান সড়ক ব্যবহার করতে হতো।

একদিন হাকিমপুরের রাজা পাশের কোন রাজ্যে যাওয়ার উদ্দেশে বের হয়েছিলেন। রাজার সঙ্গে পাইক, পেয়াদা, উজির, নাজির ছিল। সে সময় নূরনগরের রানি প্রমোদভ্রমণের জন্য রাস্তা দিয়ে হাঁটছিলেন। রানির সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন অনেকেই। তাই রানির সফরসঙ্গীরা হাকিমপুরের রাজাকে যেতে বাধা দিলেন। এতে উভয়পক্ষ্যের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। 

হাকিমপুরের রাজা ও নূরনগরের রানি তাদের গন্তব্য স্থলে না গিয়ে নিজ নিজ রাজপ্রাসাদে ফিরে গেলেন। রাজপ্রাসাদে ফিরে গিয়ে তারা ঘোষণা দেন যে, রাজ্যের মাঝখানে যেসব হাটবাজার, পাঠশালা ও খেলাধুলার মাঠ রয়েছে তা এখন থেকে বন্ধ থাকবে। দুই রাজ্যের কেউই এগুলো ব্যবহার করতে পারবে না। এমনকি নদীতে মাছধরাও বন্ধ থাকবে। এতে সব সমস্যা আরও প্রকট আকার ধারণ করলো। এই দুই রাজ্যের আর্থিক অবস্থা দিন দিন খুব খারাপ হতে থাকলো।

একদিন শান বাঁধানো নদীর ঘাটে রাজার মেয়ে তার সখীদের নিয়ে স্নান করতে এলো। ঠিক সেই সময় নৌকায় করে রানির ছেলে তার কয়েকজন সখাকে সঙ্গে নিয়ে প্রমোদভ্রমণ করছিল। তখন রানির ছেলে রাজকুমারীকে দেখে মুগ্ধ হলেন। রানির ছেলে আগে কখনো এমন সুন্দরী মেয়েকে দেখেনি। একইভাবে রাজকুমারীও আগে কখনো এমন সুদর্শন ছেলেকে দেখেনি। তারা একে অপরকে খুব পছন্দ করলো। কিন্তু তারা কোন কথা বলার সাহস পেলো না। 

বেশ কিছুদিন পর রানির ছেলে একাকী নৌকায় করে প্রমোদভ্রমণ করছিল। আর মনে মনে রাজকুমারীর কথা ভাবছিল। ঠিক ওই সময় রাজকুমারীও একাকী নদীর ঘাটে বসে বসে বিশ্রাম নিচ্ছিল আর রাজকুমারের কথা ভাবছিল। কি সৌভাগ্য! তাদের দু’জনার সঙ্গে দেখা হয়ে গেলো। রানির ছেলে তার নৌকাটি ঘাটে ভেড়ালেন এবং রাজকুমারীর সঙ্গে কথা বললেন। এতে রাজকুমারীও মনে মনে খুশি হলো। তাদের দু’জনার মধ্যে পরিচয় হলো। পরিচয় হওয়ার পর তারা খুব ভয় পেয়ে গেলো। কারণ বিষয়টি তাদের মা-বাবা জানতে পারলে আর রক্ষা নেই। তারা তাদের বন্দি করে রাখবেন।

চলবে....

বাংলাদেশ সময়: ২১১৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৯, ২০১৯সদ
এএ 

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ইচ্ছেঘুড়ি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-04-19 21:22:15