ঢাকা, সোমবার, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮, ০২ আগস্ট ২০২১, ২২ জিলহজ ১৪৪২

ইসলাম

সিলেটে ঈদ জামাতে ফরিয়াদ ‘মহামারি থেকে মুক্তি দিন মাবুদ’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬০২ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০২১
সিলেটে ঈদ জামাতে ফরিয়াদ ‘মহামারি থেকে মুক্তি দিন মাবুদ’ ঈদ জামাত। ছবি: বাংলানিউজ

সিলেট: চারিদিকে বিষাদের সুর। আতঙ্ক জীবন সংহারের।

রাত থেকে বৃষ্টি ঝরছে অবিরত। শ্রাবণের আকাশ যেন কান্ন থামাচ্ছে না। বৈরী আবহাওয়া যেন মানুষকে আটকে রাখতে চায় ঘরে। তারপরও বৃষ্টি ও ভয়কে উপেক্ষা করে মসজিদগুলোতে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা।  

বুধবার (২১ জুলাই) সিলেটে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় হযরত শাহজালাল (র.) দরগাহ মসজিদে সকাল ৮টায়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মুসল্লিদের নামাজ আদায় করতে দেখা গেছে।  

একইভাবে শহর ও গ্রামের মসজিদগুলোতেও মসজিদে জামাতে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা। নামাজ শেষে খুতবা পরবর্তী দোয়ায় করোনা থেকে সুরক্ষায় মহান মাবুদের দরবারে দু’হাত তুলে প্রার্থনা করা করা হয়। ইমামের সঙ্গে দু’হাত তোলা মুসল্লিরা ক্রন্দনরতাবস্থায় মহান রবের কাছে করোনা থেকে মহামারি থেকে মুক্তির ফরিয়াদ করেন। অদৃশ্য এই মহামারি থেকে মানবজাতিকে রক্ষায় আল্লাহর দরবারে আকুল আবেদন জানান। সহস্র কন্ঠে আমিন ধ্বনিতে মুখরিত ছিল মসজিদ অঙ্গন। যেখানে লাখো মুসল্লিরা ঈদ জামাতে শরিক হতেন, সেখানে করোনার ভয়াবহতায় হাজার পাঁচেক মুসল্লির অংশগ্রহণের অনুষ্ঠিত হয় শাহজালাল (র.) মাজার মসজিদে পবিত্র ঈদুল আজহার প্রধান জামাত।

এছাড়া নগরের কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদে ৩টি জামাত, কালেক্টরেট জামে মসজিদে ৩টি, নগরের বন্দরবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে একটি, হযরত শাহপরান (রহ.) মাজার মসজিদ, কাজীরবাজার মাদরাসা মসজিদে, খোজার খলা মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃষ্টি মাথায় নিয়েই এসব ঈদ জামাতে মুসল্লিরা হাজির হন।
এদিকে পবিত্র ঈদুল আজহায় সিলেট মহানগর ও জেলায় সব মিলিয়ে ৩ হাজার ৮২৩ মসজিদে ও ঈদগাহে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও বৈরী আবহা্ওয়ার কারণে ২১২টিতে ঈদগাহে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়নি। পরিবর্তে মসজিদগুলোতে নামাজ আদায় করেন মুসল্লিরা।

এবারো স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকা ও ইউনিয়নসমূহ মিলিয়ে মেট্রোপলিটন এলাকার সাড়ে ১১শ’ মসজিদে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। পাশাপাশি জেলার ১৩ উপজেলায় ২ হাজার ৬৭৩টি মসজিদ ও ঈদগাহে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টির বাগড়ায় ২১২ ঈদগাহে ঈদের জামাত পড়তে পারেননি মুসল্লিরা।  

সিলেট মহানগর ও জেলা পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে ঈদের নামাজের পর নগর-শহরের বিভিন্ন স্থানে পশু কোরবানি দেওয়া হচ্ছে। সিসিকের পক্ষ থেকে কোরবানির পশু জবাইয়ের জন্য ৩০টি স্থান নির্ধারণ করে রাখা হয়েছে। অলিগলিতে বাসাবাড়ি ব্যতীরেকে সবাই নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাই করছেন বলে জানিয়েছে সিসিক সূত্র।  

সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকায় কোরবানির উৎপন্ন বর্জ্য পরিষ্কার করতে ২ সহস্রাধিক পরিচ্ছন্নকর্মী প্রস্তুত রেখেছেন বলে জানিয়েছেন সিসিকের পাবলিক রিলেশন অফিসার আলিম শাহ।  

তিনি বলেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নগরের বর্জ্য পরিষ্কার নির্দেশনা দিয়েছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।  

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩০ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০২১
এনইউ/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa