ঢাকা, রবিবার, ১০ ভাদ্র ১৪২৬, ২৫ আগস্ট ২০১৯
bangla news

তাপদাহের মধ্যে আরাফাত ময়দানে ‘শান্তির বৃষ্টি’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৮-১০ ৮:১৩:৫২ পিএম
বৃষ্টির জন্য দু’হাত তুলে শুকরিয়া আদায় করেন অনেকে। ছবি: সংগৃহীত

বৃষ্টির জন্য দু’হাত তুলে শুকরিয়া আদায় করেন অনেকে। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: হজের দ্বিতীয় দিনে ‘লাব্বাইক, আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠেছিল আরাফাত ময়দান। তীব্র গরম উপেক্ষা করেই সৃষ্টিকর্তার সান্নিধ্য লাভের আশায় সেখানে হাজির হয়েছেন ২০ লাখেরও বেশি ধর্মপ্রাণ মুসলমান। তবে, গরমে খুব বেশিক্ষণ কষ্ট করতে হয়নি তাদের। দুপুরের তীব্র রোদের মধ্যেই হঠাৎ আকাশ কালো করে নেমে আসে এক পশলা বৃষ্টি।

শুক্রবার (৯ আগস্ট) থেকে শুরু হয়েছে হজের আনুষ্ঠানিকতা। সেদিন মিনায় অবস্থান করে রাতেই আরাফাতের ময়দানের দিকে যাত্রা করেন সবাই। মূলত জিলহজের ৯ তারিখে এ ময়দানে অবস্থান করাই হজ। 

আরও পড়ুন> ‘লাব্বাইক লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

শনিবার (১০ আগস্ট) আরাফাত ময়দানে হাজির হয়ে কেউ পাহাড়ের ওপর, কেউ নিচে, কিংবা অন্য কোনো সুবিধাজনক জায়গায় বসে ইবাদত শুরু করেন। কিন্তু দুপুর পার হতেই হঠাৎ শুরু হয় তুমুল বৃষ্টি ও বজ্রপাত। 

অনেকের মতে, গরমের মধ্যে এমন বৃষ্টি আল্লাহর রহমত। বান্দার কষ্ট লাঘবের জন্যই তিনি রোদের মধ্যে বৃষ্টি দিয়েছেন।

আরও পড়ুন> হজে যেসব স্থানে দোয়া কবুল হয়

বৃষ্টি-বজ্রপাত হলেও হজের আনুষ্ঠানিকতার কোনো পরিবর্তন হবে না। নিয়ম অনুযায়ী, সূর্যাস্তের পর আরাফাত ময়দান থেকে মুজদালিফার ময়দানে যাবেন তারা। সেখানে মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করবেন। মুজদালিফায় খোলা আকাশের নিচে সারারাত অবস্থানের পর রোববার (১১ আগস্ট) শয়তানের স্তম্ভে নিক্ষেপের জন্য পাথর সংগ্রহ করবেন।

শুকরিয়া আদায় করছেন এক হাজি। ছবি: সংগৃহীত

ফজরের নামাজ শেষে বড় জামারায় (প্রতীকী বড় শয়তান) পাথর নিক্ষেপ করতে মিনায় যাবেন তারা। শয়তানকে সাতটি পাথর মারার পর হাজিরা সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টি অর্জনে পশু কোরবানি দিয়ে মাথা মুণ্ডাবেন। সেলাইবিহীন দুই টুকরো কাপড় বদল করবেন। এরপর স্বাভাবিক পোশাক পরে মিনা থেকে মক্কায় গিয়ে পবিত্র কাবা শরিফ বিদায়ী তাওয়াফ করবেন। 

আরও পড়ুন> পবিত্র হজের প্রাচীন-দুর্লভ ২৫টি ছবি

অবশ্য মক্কায় গিয়েই হজযাত্রীরা প্রথমে একবার পবিত্র কাবা ঘর তাওয়াফ করেন। বিদায়ী তাওয়াফের পর ইহরাম ত্যাগ করার কাজ সম্পন্ন করবেন তারা। কাবার সামনের দুই পাহাড় সাফা ও মারওয়ায় সাঈ (সাতবার দৌড়াবেন) করবেন। সেখান থেকে আবার মিনায় যাবেন তারা। মিনায় যতদিন থাকবেন, ততদিন তিন (বড়, মধ্যম, ছোট) শয়তানের উদ্দেশে ২১টি পাথর নিক্ষেপ করবেন।

আরও পড়ুন> জান্নাতি পাথর ‘হাজরে আসওয়াদ’-এর ইতিহাস

বাংলদেশ সময়: ২০১০ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০১৯
একে

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-08-10 20:13:52