bangla news

বিয়ে শেষে সালাম-মুসাফাহার রীতি

1401 |
আপডেট: ২০১৫-০৪-০৮ ৮:৫২:০০ এএম

কাউকে সালাম প্রদানের উপযুক্ত সময় হলো, দেখা-সাক্ষাতের শুরুতে। কুশল বিনিময়ের প্রাথমিক ধাপ হলো সালাম বিনিময়। সেই সঙ্গে মুসাফাহাও (হ্যাণ্ডশেক) করা হয় সাক্ষাতের শুরুতে।

কাউকে সালাম প্রদানের উপযুক্ত সময় হলো, দেখা-সাক্ষাতের শুরুতে। কুশল বিনিময়ের প্রাথমিক ধাপ হলো সালাম বিনিময়। সেই সঙ্গে মুসাফাহাও (হ্যাণ্ডশেক) করা হয় সাক্ষাতের শুরুতে।

অনেক জায়গায় এটাকে খুব গুরুত্বসহকারে পালনও করা হয়। অনেক জায়গায় এই প্রচলন দেখা যায় যে, বিয়ের খুতবা ও ইজাব-কবুল হওয়ার পর বর দাঁড়িয়ে উপস্থিত সবাইকে সালাম দেয় এবং বিশেষ বিশেষ ব্যক্তির সঙ্গে মুসাফাহা-মুয়ানাকা (কুলাকুলি) করে। যদি সে নিজে না করে তবে কোনো মুরব্বি তাকে ইশারা করে বলে, সবাইকে সালাম দাও।

বস্তুত এটা একটি অযাচিত প্রথা। কারণ, এ বিষয়টি সবার জানা যে, সালাম ও মুসাফাহা করতে হয় সাক্ষাতের শুরুতে। বিদ্যমান অবস্থায় এটা স্পষ্ট যে, বিয়ের অনুষ্ঠান চলাকালে বর তো মজলিসের শুরুতেই উপস্থিত হয়। আর আসার পর সালাম-মুসাফাহাও অবশ্যই করে থাকে। তাহলে আবার দ্বিতীয়বার সালাম-মুসাফাহা কেন?

আসলে এটা অন্যান্য রসম-রেওয়াজের (প্রথা) মতো একটি রসম। এটা সুন্নত নয়, আবার যুক্তিযুক্ত কোনো কাজও নয়। ইজাব-কবুলের পর সুন্নত আমল হচ্ছে, নব দম্পতির জন্য বরকতের দোয়া।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৫৩ ঘন্টা, এপ্রিল ০৮, ২০১৫
এমএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2015-04-08 08:52:00