ঢাকা, শনিবার, ৮ মাঘ ১৪২৮, ২২ জানুয়ারি ২০২২, ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ইসলাম

প্রকাশিত হচ্ছে জাপানিজ ভাষায় অনূদিত কোরআন শরিফ

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৪৯ ঘণ্টা, মার্চ ১, ২০১৫
প্রকাশিত হচ্ছে জাপানিজ ভাষায় অনূদিত কোরআন শরিফ

আগামী রমজান মাসে জাপানিজ ভাষায় অনূদিত কোরআন শরিফ প্রকাশ করবে মদিনায় অবস্থিত ‘কিং ফাহাদ কোরআন প্রিন্টিং কমপ্লেক্স। ’

সম্প্রতি সৌদি আরবের ইসলাম বিষয়ক ওয়েব সাইট www.alweeam.com এমনই একটি খবর দিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ‘কিং ফাহাদ কোরআন প্রিন্টিং কমপ্লেক্সে’র পরিচালক মুহাম্মাদ সালেম বিন শাদিদ আল আওফি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘হিব্রু ও জাপানিজ ভাষায় কোরআন অনুবাদের কাজ আমাদের হাতে রয়েছে।

ইতোমধ্যেই জাপানিজ ভাষায় কোরআন অনুবাদের কাজ সমাপ্ত হয়েছে এবং বর্তমানে তা সম্পাদনা ও রিভিশনের কাজ চলছে। আশা করঠি আগামী রমজান মাসে আমরা এ অনুবাদ প্রকাশ করতে সক্ষম হবো।

খবরে আরও বলা হয়েছে, হিব্রু ভাষায় কোরআন অনুবাদের কাজও ইতোমধ্যে সমাপ্ত হয়েছে এবং সেটাও সম্পাদনা ও রিভিশনের জন্য বিশেষজ্ঞদের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। অনুবাদ ও সম্পাদনা সংক্রান্ত কাজসমূহ শেষ হলে তা প্রকাশের জন্য ছাপাখানায় প্রেরণ করা হবে।

সৌদি আরবের নিজস্ব অর্থায়নে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ওই দেশের ভাষায় বিনামূল্যে কোরআনের অনুবাদ ও তাফসির প্রকাশ করে আসছে। ১৯৯৩ সালে ‘কিং ফাহাদ কোরআন প্রিন্টিং কমপ্লেক্সে’ বাংলা ভাষায় ‘তাফসিরে মাআরেফুল কোরআন’ ছাপিয়ে বিতরণ করে। তাফসির মাআরেফুল কোরআনের মূল তাফসিরকারক হলেন মুফতি শফি (রহ.)। বাংলায় অনুবাদ করেছেন মাসিক মদীনার সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দিন খান।

এরই ধারাবাহিকতায় মদিনায় অবস্থিত ‘কিং ফাহাদ কোরআন প্রিন্টিং কমপ্লেক্স’ বর্তমানে আরও বেশ কিছু ভাষায় কুরআন অনুবাদের কাজ হাতে নিয়েছে। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে, ড্যানিশ, আমাযিগি, ফিলিপিনো, তাজিকি, কুর্দি, মালায়, নেপালি, কান্নরি, তামিল ও তেলেগু ইত্যাদি।

উল্লেখ্য, ‘কিং ফাহাদ কোরআন প্রিন্টিং কমপ্লেক্সে’ এ নাগাদ ৬৩টি ভাষায় অনূদিত কোরআন শরিফ প্রকাশ করেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫০ ঘন্টা, মার্চ ০১, ২০১৫

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa