ঢাকা, শনিবার, ৩০ চৈত্র ১৪৩০, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৩ শাওয়াল ১৪৪৫

ইসলাম

বায়তুল মোকাররমে বসুন্ধরার ইফতার: যেখানে ঘুচে যায় ধনী-গরিবের ব্যবধান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ১, ২০২৪
বায়তুল মোকাররমে বসুন্ধরার ইফতার: যেখানে ঘুচে যায় ধনী-গরিবের ব্যবধান

ঢাকা: ইফতারের সময় যত এগিয়ে আসে, রোজাদারের সংখ্যাও তত বাড়তে থাকে, সেই সঙ্গে বাড়তে থাকে স্বেচ্ছাসেবকদের তৎপরতা। দোয়া-দরুদ পড়তে থাকেন সবাই।

অপেক্ষা ইফতারের সময়ের জন্য। সময় হতেই সবাই একসঙ্গে রোজার সমাপ্তি টেনে করেন ইফতার।

সোমবার (১ এপ্রিল) বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে দেখা গেল এমন চিত্র। পবিত্র রমজানজুড়ে বায়তুল মোকাররমে রোজাদারদের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা করেছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। প্রথম রোজা থেকে প্রতিদিন তিন হাজারের বেশি রোজাদারকে ইফতার করানো হচ্ছে এখানে।  

বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি), বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) প্রেসিডেন্ট ও বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মুসল্লি কমিটির প্রধান উপদেষ্টা সায়েম সোবহান আনভীরের পক্ষ থেকে এই ইফতার বিতরণ করা হচ্ছে।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মুসল্লি কমিটির সভাপতি হাজী মো. ইয়াকুব আলী এবং সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মানিক উপস্থিত থেকে রোজাদারদের মাঝে ইফতারসামগ্রী বিতরণ করেন।

ইফতারের এই আয়োজনে সন্ধ্যায় ধনী-গরিবের ব্যবধান ঘুচে যায়। সমাজের বিভিন্ন স্তরের, বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এখানে পাশাপাশি বসে ইফতার করেন।

এই ইফতারে কেবল পুরুষ রোজাদাররাই নন, প্রতিদিন অংশগ্রহণ থাকে শত শত নারী রোজাদারেরও। মসজিদে নারীদের জন্য সংরক্ষিত অংশে ইফতার করেন তারা। বায়তুল মোকাররম মুসল্লি কমিটির স্বেচ্ছাসেবকদের তত্ত্বাবধানে তাদের এই ইফতার উপহার দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মুসল্লি কমিটির সভাপতি হাজী মো. ইয়াকুব আলী বাংলানিউজকে বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের তত্ত্বাবধানে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে প্রতিদিন তিন হাজার রোজাদারের মাঝে ইফতার উপহার দেওয়া হয়। এছাড়া সারা দেশেই বসুন্ধরা গ্রুপের উদ্যোগে ইফতার বিতরণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে প্রতিদিন যারা ইফতার করেন, তাদের মধ্যে শতাধিক রোজাদার নারীও অংশ নেন। মসজিদে নারীদের জন্য ইবাদতের যে সংরক্ষিত জায়গা রয়েছে, মসজিদের স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সেখানে তাদের জন্য আমাদের ইফতার বক্স পাঠানো হয়। প্রতিদিন আমরা প্রায় ১৫০ থেকে ২০০টি ইফতার বক্স তাদের জন্য পাঠাই। এটি তাদের জন্য আমাদের এই রমজানের উপহার।

তিনি বলেন, এছাড়া বর্তমানে ইতেকাফে বসেছেন অনেকেই। তাদেরসহ গতকাল থেকে আমরা প্রায় ২০০টি ইফতার বক্স এই মা-বোনদের জন্য পাঠাচ্ছি। তারা ইফতার পেয়ে অত্যন্ত আনন্দিত এবং সন্তুষ্ট। তারা এই ইফতার পাওয়ায় বসুন্ধরা গ্রুপসহ আমাদের সবার জন্য প্রতিদিন আল্লাহর কাছে দোয়া করেন। আর এখানে অংশ নেন সমাজের বিভিন্ন শ্রেণির মুসলিম নারীরা। এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের যে, আমরা প্রতিদিন এসব মানুষের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা করতে পারছি।

মিজানুর রহমান মানিক বলেন, এ বছর তৃতীয়বারের মতো রমজানে বসুন্ধরা গ্রুপের উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ইফতার বিতরণ করা হচ্ছে। প্রতিদিন তিন হাজার রোজাদারকে ইফতার করানো হচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে। এখানে সবাই মিলে একসঙ্গে পরিবারের মতো ইফতার করতে পারেন, এটা আমাদেরও ভালো লাগে। বিশেষ করে এই ইফতারে ধনী-গরিব এক কাতারে শামিল হয়ে যান।

বাংলাদেশ সময়: ২০৫২ ঘণ্টা, এপ্রিল ০১, ২০২৪
এইচএমএস/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
welcome-ad