ঢাকা, শনিবার, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ১২ জুন ২০২১, ০১ জিলকদ ১৪৪২

আন্তর্জাতিক

‘সংকট পরিস্থিতি’ অনুশীলনে প্রাণ দিল ২২ রোগী!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৪২ ঘণ্টা, জুন ৯, ২০২১
‘সংকট পরিস্থিতি’ অনুশীলনে প্রাণ দিল ২২ রোগী!

ভারতের আগ্রার একটি নামি বেসরকারি হাসপাতালে ইচ্ছাকৃত অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ রাখলে কোভিড, নন-কোভিড মিলিয়ে ২২ রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে উত্তর প্রদেশের স্বাস্থ্যবিভাগ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া এক ভিডিওতে প্রতিষ্ঠানের মালিকের স্বীকারোক্তিমূলক মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে পরশ হাসপাতালের মালিক অরিঞ্জয় জেইন বলেন, “তখন অক্সিজেনের তীব্র সংকট ছিল। মোদি নগরেও কোনো  অক্সিজেন ছিল না। আমরা রোগীর স্বজনদের তাদের রোগী ফিরিয়ে নিয়ে যেতে বলেছিলাম, কিন্তু কেউই রোগী ডিসচার্জ করাতে প্রস্তুত ছিল না। তাই আমরা ঠিক করলাম অক্সিজেনের ‘সংকট পরিস্থিতি’ নিয়ে একটি অনুশীলনমূলক পরীক্ষা চালাবো। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ২৬ এপ্রিল সকাল ৭টা থেকে ৫ মিনিটের জন্য অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ রাখি। ২২ জন রোগী হাঁপাতে শুরু করে এবং তাদের শরীর নীল হতে থাকে। তারপর বাকি ৭৪ জন রোগীর স্বজনদের নিজেদের অক্সিজেন সিলিন্ডার আনিয়ে নিতে বলা হয়। ” 

এ ব্যাপারে অরিঞ্জয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভিডিওতে তার বক্তব্যের ভুল উপস্থাপন করা হয়েছে, রোগীদের আরো ভালো সেবা দিতেই এই ড্রিল বা অনুশীলনের আয়োজন করেছিলেন।  

তিনি বলেন, ২৬ তারিখে ৪ জন আর ২৭ তারিখ ৩ জন কোভিড রোগী মারা যান।  অক্সিজেন সংকটে মারা যাওয়া রোগীর সংখ্যা ২২ জন  কিনা জানতে চাইলে; সঠিক সংখ্যা তার জানা নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সেদিন মারা যাওয়া রোগীদের একজন ছিলেন আগ্রার জিভানি মান্দি এলাকার বাসিন্দা মৈনক চাওলার দাদা। ঘটনার বর্ণনায় তিনি বলেন, পরশ হাসপাতালে সেদিন অনেক রোগী মারা গিয়েছিল। ওই ভিডিওতে হাসপাতালের মালিক যেভাবে গুরুতর অসুস্থ রোগীদের অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ করার মত তার অমানবিক কাজের বর্ণনা দিয়েছে তা ভয়ঙ্কর। এটি হত্যাকাণ্ড। হাসপাতালের মালিকের বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষের কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।  

সূত্র: দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া

বাংলাদেশ সময়: ২২৩৮ ঘণ্টা, জুন ০৯, ২০২১
এমএম/আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa