bangla news

করোনা ভাইরাস: সঙ্কট আতঙ্কে চুরি ৬০০ টয়লেট টিস্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০২-১৭ ৪:১৫:৩১ পিএম
সুপার শপ থেকে টিস্যু কিনছেন ক্রেতারা

সুপার শপ থেকে টিস্যু কিনছেন ক্রেতারা

চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। ভাইরাসটির সংক্রমণ থেকে রেহাই পেতে লোকজনকে বিভিন্ন পরামর্শ দিচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। যার মূল বার্তা হলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা।

আর তা মানতে গিয়ে টিস্যু পেপারের সঙ্কটে পড়ে চীনের পার্শ্ববর্তী দেশ হংকং। কয়েকদিন আগে দেশটির বিভিন্ন সুপার স্টোরে টিস্যুর সঙ্কট দেখা দেয়। অনেকে স্টোরে টিস্যু রাখার সেলফ খালি পেয়ে নিরাশ হয়ে ফিরে যান।

এর মধ্যে সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) মজার এক ঘটনার জন্ম দিয়েছেন একদল চোর। তারা একটি স্টোরের সামনে ডিস্ট্রিবিউটরের রাখা ছয়শ টয়লেট টিস্যুর রোল চুরি করে নিয়ে যান। ওই দলে ছিলেন তিন সদস্য।

তবে তড়িৎ পদক্ষেপে তাদের মধ্যে দুইজনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। বাকি একজনকে খোঁজা হচ্ছে। 

এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, সোমবার সকালে হংকংয়ের মং কক জেলায় সুপার মার্কেটে সরবরাহ করার জন্য একটি বিপণনকারী প্রতিষ্ঠানের একজন কর্মী টয়লেট টিস্যু নিয়ে যান। মোট ৫০টি প্যাকের মধ্যে ছিলো এসব টিস্যু রোল। ওই কর্মী টিস্যুগুলো সুপার মার্কেটের সামনে রাখলে এক পর্যায়ে তিন সদস্যের একদল চোর টিস্যুগুলো নিয়ে সটকে পড়ে।

এ বিষয়ে স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, চুরির ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর ঘটনাস্থল থেকে একটু দূরে একটি গেস্ট হাউজ থেকে চুরি যাওয়া টয়লেট টিস্যুগুলো উদ্ধার করা হয়। একইসঙ্গে ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুইজনকে আটক করা হয়। জড়িত অপর ব্যক্তিকে খোঁজা হচ্ছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর দ্রুতই তা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। কোভিড-১৯ নাম পাওয়া ভাইরাসটির কবলে এখন পর্যন্ত এক হাজার সাতশ ৭০ জন মানুষ মারা গেছেন, আক্রান্ত হয়েছেন ৭১ হাজার জন। এর মধ্যে হংকংয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৭ জন। এ শহরে ভাইরাসটিতে মারাও গেছেন একজন। চীনের বাইরে হংকং ছাড়া আরো চারটি দেশে চারজন মানুষ প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে মারা গেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১৩ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০
জেডএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   করোনা ভাইরাস
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-02-17 16:15:31