bangla news

কাশ্মীরে গণতন্ত্র নেই বিশ্বের দেখা জরুরি: ইইউ প্রতিনিধি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১০-২৯ ৮:১৮:০১ পিএম
কাশ্মীরের নিরাপত্তা পরিস্থিতি, ছবি: সংগৃহীত

কাশ্মীরের নিরাপত্তা পরিস্থিতি, ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে গিয়ে অবাধে ঘুরতে এমনকি স্থানীয় লোকজন, রাজনৈতিক নেতা ও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে বাধার সম্মুখীন হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্য এবং ব্রিটিশ এমপি ক্রিস ডেভিস। ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ২৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলে অন্তর্ভুক্ত হয়ে তিনিও উপত্যকাটির চলমান পরিস্থিতি দেখতে সেখানে গিয়েছিলেন।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) একটি বিবৃতিতে তিনি বলেন, কাশ্মীরে অবাধে ঘুরতে এবং স্থানীদের সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হয়নি আমাকে। আসলে ভারত সরকার কী লুকাতে চাইছে? আমি মোদী সরকারের জনসংযোগের কাজ করতে ইচ্ছুক ছিলাম না। সব ঠিক আছে, এরকম ভাব দেখাতেও ইচ্ছুক না। এটা স্পষ্ট যে, কাশ্মীরে গণতান্ত্রিক নীতি ধ্বংস করা হয়েছে। সারাবিশ্বের এটা দেখা প্রয়োজন।

এ লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক নেতা বলেন, যুক্তরাজ্যে কাশ্মীরের যারা বাস করছেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন তাদেরই পরিবারের লোকজন। আত্মীয়দের সঙ্গে নির্বিঘ্নে কথা বলতে চান তারা। নিজেদের কষ্টের কথা শোনাতেও চান তারা।

তিনি এও বলেন, আমি ভয় পাচ্ছি, এর পরিণতি ভালো হবে না। সামরিক শাসন  জারি করে এবং স্বাধীনতা কেড়ে নিয়ে মানুষের হৃদয় ও মন জয় করতে পারেনি ভারত সরকার। হিংসাত্মক প্রতিক্রিয়া হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে সেখানে।

এর আগে জম্মু ও কাশ্মীরের চলমান পরিস্থিতি দেখতে ভারতে এসে সোমবার (২৮ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং দেশের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোবালের সঙ্গে বৈঠক করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধি দল। এরপর মঙ্গলবার পশ্চিমা ২৮ দেশের জোটটির দল কাশ্মীর উপত্যকায় যায় পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে।

গত ৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের মাধ্যমে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেয় ভারত সরকার। এরপর কাশ্মীরের পরিস্থিতি সামাল দিতে এ পর্যন্ত ৪০০ রাজনৈতিক নেতাকর্মীকে আটক করে রাখা হয়েছে। সেইসঙ্গে বন্ধ করা হয় ইন্টারনেট সেবা, যা এখনো স্বাভাবিক হয়নি। কিছুদিন আগে মোবাইল ফোন সেবা চালু করা হলেও অনেকেই এটা ব্যবহার করতে পারছেন না বলে অভিযোগ করছে।

বাংলাদেশ সময়: ২০১২ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৯, ২০১৯
টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ভারত কাশ্মীর ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-10-29 20:18:01