bangla news

ভারতে ধর্মগুরুর ডেরা থেকে ৫০০ কোটি রুপির সম্পত্তি জব্দ 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১০-১৯ ১:০৪:২৩ পিএম
ভারতের ধর্মগুরু কালকি ভগবান  (বায়ে)। ছবি- সংগৃহীত 

ভারতের ধর্মগুরু কালকি ভগবান  (বায়ে)। ছবি- সংগৃহীত 

ভারতের প্রভাবশালী ধর্মগুরু ‘কালকি’ ভগবানের বিভিন্ন ডেরা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে অর্থ, হীরা ও স্বর্ণ মিলিয়ে ৫০০ কোটি রুপিরও বেশি অবৈধ সম্পত্তি জব্দ করেছে দেশটির আয়কর বিভাগ। 

গত বুধবার (১৬ অক্টোবর) থেকে শুরু করে শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) পর্যন্ত দেশটির তামিলনাড়ু, তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্রপ্রদেশের বিভিন্ন শহরে অভিযান চালিয়ে এ বিপুল পরিমাণ অর্থ ও সম্পত্তি উদ্ধার করা হয়। অভিযান এখনও অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। 

খবরে বলা হয়, এ অভিযানে গোপন চেকই জব্দ করা হয়েছে ৪০৯ কোটি রুপির। এছাড়া হীরা ও স্বর্ণ মিলিয়ে এ অর্থের পরিমাণ ৫০০ কোটিরও বেশি। ভগবান কালকির কাছে আরও কয়েকশ কোটি মূল্যের গোপন সম্পত্তি রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুধু দেশেই নয় কেনিয়ার বিভিন্ন শহরেও এ ধর্মগুরুর অনেক জমিজমার দলিলদস্তাবেজ পাওয়া গেছে। 

এক আয়কর কর্মকর্তা বলেন, তামিলনাড়ু থেকেই প্রায় ৯৩ কোটি রুপি, কয়েকটি মূল্যবান হীরা ও বিপুল পরিমাণ স্বর্ণালঙ্কার জব্দ করা হয়েছে। তদন্তে বিভিন্ন আশ্রমের নামে অসংখ্য ব্যাংক চেকের সন্ধান পাওয়া গেছে, এর বেশিরভাগই আশ্রমের আড়ালে তার বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান থেকে ইস্যু করা।    

ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের বেশকিছু রাজ্যে তুমুল জনপ্রিয় ধর্মগুরু কালকি ভগবান। ভক্তদের মধ্যে তিনি নিজেকে বিষ্ণুর অবতার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এখন পর্যন্ত তার ৪০টি ডেরা ও আশ্রমের সন্ধান পাওয়া গেছে। এর মধ্যে শুধু চেন্নাইয়েই রয়েছে জাঁকজমকপূর্ণ ২০টি ধর্মীয় স্থান। এর অনেকগুলোই পরিচালনা করেন তার ছেলে কৃষ্ণ। এসব আশ্রমে বিষ্ণুর পূজা ছাড়াও পূজারী ও ভক্তদের জীবনতত্ত্ব, দর্শনশাস্ত্র, যোগব্যায়ামসহ নানা আধ্যাত্মিক বিষয়ে শিক্ষা দেওয়া হয়। 

৭০ বছর বয়সী কালকি ভগবানের প্রকৃত নাম বিজয়কুমার নাইড়ু। সরকারি কেরানি হিসেবে কর্মজীবন শুরু করা নাইড়ুই কালে কালে হয়ে ওঠেন কালকি ভগবান। এর আগেও তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করা হয়। ২০১০ সালে জমি দখল, লোক ঠকানো ও নারী নির্যাতনের মামলায় তাকে গ্রেফতারও করা হয়। কিন্তু সে সময় সুনির্দিষ্ট প্রমাণের অভাব ও ভক্তদের চাপের মুখে তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় সরকার।

বাংলাদেশ সময়: ০০০০ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৯, ২০১৯
কেএসডি/এইচজে  

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-10-19 13:04:23