ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১ আশ্বিন ১৪২৮, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭ সফর ১৪৪৩

আন্তর্জাতিক

৩৭০ ধারা রদ, রাজ্যের মর্যাদা হারালো জম্মু-কাশ্মীর

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১৯ ঘণ্টা, আগস্ট ৫, ২০১৯
৩৭০ ধারা রদ, রাজ্যের মর্যাদা হারালো জম্মু-কাশ্মীর জম্মু ও কাশ্মীরে এখন উত্তপ্ত পরিস্থিতি, ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা অনুযায়ী বিশেষ মর্যাদা পেয়ে জম্মু ও কাশ্মীর দেশটির অন্যান্য যেকোনো রাজ্যের চেয়ে বেশি স্বায়ত্বশাসিত ছিল। এমনকি পররাষ্ট্রসহ কয়েকটি মন্ত্রণালয় ছাড়া বাকি সব সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে ওই রাজ্যকে দেওয়া হয়েছিল আলাদা ক্ষমতা। কিন্তু এবার সব বাতিল হয়ে গেছে দেশটির সংবিধানের এই ৩৭০ ধারা রদ করে দেওয়ার মাধ্যমে। এরইমধ্যে এ ধারা রদ করার বিজ্ঞপ্তিতে সই করে ফেলেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোভিন্দ।

তবে শুধু এসব সুবিধা বাতিলই নয়, এ রাজ্যটিকেও ভেঙে দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের মর্যাদা আর নেই।

কেননা, এই জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যে অন্তভুক্তই হয়েছিল এই ৩৭০ ধারা পেয়ে। এখন অঞ্চলটি কেন্দ্রশাসিত। তবে বিধানসভা থাকবে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, দেশটির সংবিধানের ৩৭০ ধারা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীর নিজেদের সংবিধান ও একটি আলাদা পতাকার স্বাধীনতাও পেয়েছিল।

সোমবার (০৫ আগস্ট) সংসদে ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ চলমান কাশ্মীর সংকট এবং তুমুল বিতর্কের মধ্যে এ ধারা বাতিল করে অঞ্চলটির বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে ভারতীয় বিজেপি সরকার একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে, যাতে ইতোমধ্যে সই করেন দেশটির রাষ্ট্রপতি।

এদিকে, সংবিধানের এ ধারাটি বাতিল করে দেওয়াটা ছিল ক্ষমতাসীন বিজেপির পুরানো রাজনৈতিক এজেন্ডাগুলোর অন্যতম একটি। আর এ সিদ্ধান্তের ফলে অঞ্চলটিতে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেবে বলে মনে করা হচ্ছে।

এখন থেকে জম্মু এবং কাশ্মীর দু’টি আলাদা ‘ইউনিয়ন টেরিটরি’ বা কেন্দ্রীয়ভাবে শাসিত অঞ্চল হিসেবে পরিচিত হবে। আর লাদাখ কেন্দ্রশাসিত তৃতীয় একটি এলাকা হিসেবে বিবেচিত হবে। তবে এর বিধানসভাও থাকবে না।

আরও পড়ুন>> কী আছে জম্মু-কাশ্মীরের সেই ৩৭০ ধারায়

বাংলাদেশ সময়: ১৭১৪ ঘণ্টা, আগস্ট ০৫, ২০১৯
টিএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa