ঢাকা, শনিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০ শাওয়াল ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

‘ইয়েলো ভেস্ট’ আন্দোলনকারীদের উপর পুলিশের হামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২৩১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯
‘ইয়েলো ভেস্ট’ আন্দোলনকারীদের উপর পুলিশের হামলা ফ্রান্সজুড়ে ছড়িয়ে পড়া ‘হলুদ জ্যাকেটধারীদের’ আন্দোলনে সাড়া দিনে দিনে কমে যাচ্ছে

ফ্রান্সে ‘ইয়েলো ভেস্ট’ (হলুদ জ্যাকেটধারী) আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে তাদের লক্ষ্য করে কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। রাজধানী প্যারিসসহ লিওন ও বর্ডাক্স শহরে আন্দোলনের ১৪তম সপ্তাহে বিক্ষোভকারীরা আগুন ধরানোর চেষ্টা করলে তাদের ছত্রভঙ্গ করতেই এ পদক্ষেপ নেয় পুলিশ।

এদিকে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভিড়ের মধ্যে এক চালক দ্রুতগতিতে তার গাড়ি চালিয়ে যাওয়ার সময় ৪ আন্দোলনকারী আহত হয়েছেন।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দিনের শুরুতে বিক্ষোভকারীরা প্যারিসের আর্ক ডি ট্রিওমফে-তে জড়ো হয়েছিলেন।

একপর্যায়ে তারা আইফেল টাওয়ারের দিকে রওনা দেওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয়। বিকেলের দিকে প্যারিসের কেন্দ্রস্থলে বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়।

অন্যদিকে, লিওন ও বর্ডাক্স শহরে বিক্ষোভকারীরা আগুন ধরালে পুলিশ তাদের লক্ষ্য করে কাঁদুনে গ্যাস ছুড়ে।  

একটি সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিক্ষোভকারীরা অনলাইন শপ অ্যামাজনের একটি ডিপো অবরোধ করে রেখেছিলেন এবং টলাউজ শহরের দক্ষিণে পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করছিলেন।  

তবে ‘ইয়েলো ভেস্ট’ আন্দোলনের পক্ষে সমর্থন দিনে দিনে কমে যাচ্ছে বলে চলতি সপ্তাহের একটি জরিপে উঠে এসেছে। জরিপে অংশ নেওয়া বেশিরভাগই বলছেন, তারা চেয়েছিলেন হিংসাত্মক এ আন্দোলনের সমাপ্তি হোক।

শনিবারের বিক্ষোভে অংশ নেওয়া কয়েকজন বলেছেন, দেশের সবার জীবনমান উন্নত করার লক্ষ্যে তারা এই মানবিক আন্দোলনে অংশ নিয়েছিলেন। মেডেলেনি (৩৩) নামে এক আন্দোলনকারী বলেন, এটি একটি মানবিক আন্দোলন। আমরা সবার জন্যই এটি করছি। তাই এখন যদি কেউ বিরক্ত হয়, তাহলে সেটি তার জন্যই খারাপ।

এরইমধ্যে আন্দোলনটির নেতাকর্মীদের মধ্যেও মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। আর সরকারের অনুমান অনুযায়ী, আন্দোলনটিতে অংশকারীদের সংখ্যা ৩ লাখ থেকে কমে গত সপ্তাহে মাত্র ৫১ হাজারে নেমেছে।

২০১৮ সালের নভেম্বরে জ্বালানির কর বৃদ্ধির প্রতিবাদে ফ্রান্সজুড়ে ‘ইয়েলো ভেস্ট’ আন্দোলন শুরু হয়। তবে পরবর্তীতে এটি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর অর্থনৈতিক নীতিবিরোধী আন্দোলনে রূপ নেয়।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৬ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৯
এসএ/জেডএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।