ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ আষাঢ় ১৪২৬, ২৫ জুন ২০১৯
bangla news

করাচিতে রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৭ জন নিহত

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-১০-১৮ ১:১১:৫৯ এএম

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের রাজধানী করাচিতে শনিবার রাতে রাজনৈতিক সহিংসতায় কমপক্ষে ২৭ জন নিহত এবং ৬০ জনেরও বেশি আহত হয়েছে। রোববার অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচন শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

ইসলামাবাদ: পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের রাজধানী করাচিতে শনিবার রাতে রাজনৈতিক সহিংসতায় কমপক্ষে ২৭ জন নিহত এবং ৬০ জনেরও বেশি আহত হয়েছে। রোববার অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচন শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

নিহতদের বেশির ভাগই দুই রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দী মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম) ও আওয়ামি ন্যাশনাল পার্টির (এএনপি) সমর্থক।

দুটি দলই পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতৃত্বাধীন সিন্ধু কোয়ালিশনের সদস্য। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারি এ কোয়ালিশনের সহসভাপতি।

সিন্ধু প্রদেশে এএনপি’র প্রধান শাহী সাইদ শনিবার সন্ধ্যায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ‘আমরা নির্বাচন বয়কট করবো। কারণ প্রাদেশিক সরকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে। এ পরিবেশে নির্বাচনে অংশ নেওয়া যুক্তিসঙ্গত মনে করি না আমরা।’

এমকিউএম-এর কেন্দ্রীয় নেতা ওয়াসিম আফতাব বলেন, ‘এ প্রদেশের ৯৪টি আসনের উপ-নির্বাচনে আমরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবো, এ ভয়ে এএনপি নির্বাচনে অংশ নিতে চাচ্ছে না’।

এ ধরনের পাল্টাপাল্টি বক্তব্যের পরপরই শহরের বিভিন্ন স্থানে উভয় দলের সদস্যদের মধ্যে এলোপাতাড়ি সহিংসতা বেঁধে যায় বলে জানায় সেখানকার পুলিশ। উভয় দলের উত্তেজিত কর্মী-সমর্থকরা পাঁচটি গাড়িও ভাঙচুর করে।

এর আগে সিন্ধু সরকারের একজন মুখপাত্র রোববার ভোটগ্রহণের সময় আত্মঘাতী বোমা হামলা হতে পারে বলে সতর্ক করে দিলেও নির্ধারিত সময়ে ভোটগ্রহণের ঘোষণা দেয় নির্বাচন কমিশন।

পুলিশ অফিসার ফয়েজ লেগহারি বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের যৌথবাহিনী ও তত্ত্বাবধায়ক মোতায়েন করা হয়েছে। নির্বাচনও স্বাভাবিকভাবে সম্পন্ন হয়েছে।’

এএনপির দাবি অনুযায়ী নির্বাচনে সেনা মোতায়েন না করায় তারা নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে।

এমকিউএম দলের এক প্রার্থী সাফুল্লাহ খালিদ বলেন, ‘প্রতিপক্ষ ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে বাধা দিলেও তারা সফল হচ্ছে না।’

উল্লেখ্য, এমকিউএম বহুদিন ধরে সিন্ধু প্রদেশের নিযন্ত্রণ তাদের হাতে রেখেছে।

বাংলাদেশ স্থানীয় সময়: ১০৪৫ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৮, ২০১০

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2010-10-18 01:11:59