ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৯ শাবান ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

অন্ধকার সুড়ঙ্গে পাথর চেটে তেষ্টা মেটানোর গল্প শোনালেন অনিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৪৮ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২৩
অন্ধকার সুড়ঙ্গে পাথর চেটে তেষ্টা মেটানোর গল্প শোনালেন অনিল ছবি: সংগৃহীত

ভারতের উত্তরাখণ্ডে ধসে পড়া সুড়ঙ্গের ধ্বংসস্তূপ থেকে ১৭ দিন ধরে আটকে থাকা ৪১ শ্রমিককে উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) রাতে সুড়ঙ্গ থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়।

সুড়ঙ্গে আটকে থাকা ৪১ জনের মধ্যে ছিলেন অনিল বেদিয়ার নামে এক শ্রমিকও। সংবাদ সংস্থা পিটিআইয়ের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে আটকে থাকা অবস্থা সম্পর্কে জানান তিনি।

তিনি বলেন, ধস নামার প্রায় ৭০ ঘণ্টা পরে উদ্ধারকারীদের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ হয়। তার আগে অন্তত দুদিন নরকযন্ত্রণা ভোগ করতে হয়েছে আমাদের। আমাদের কাছে খাবার বা পানি, কিছুই ছিল না। পানির পিপাসায় সুড়ঙ্গের পাথর বেয়ে গড়িয়ে পড়া ফোঁটা ফোঁটা পানি চেটে পান করেছি।  

অনিল বলেন, একদিন উদ্ধারকারীরা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ৬ ইঞ্চির একটি পাইপ দিয়ে মুড়ি পাঠানো হয়। সে খাবার খেয়ে ১০ দিন কাটাই আমরা। সময়টা দুঃস্বপ্নের মতো ছিল। বাঁচব বলে ভাবিনি। প্রথম আশার আলো দেখলাম যখন কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়।

সুড়ঙ্গের ৬০ মিটার পেছনে আটকে পড়েছিলেন শ্রমিকরা। তাদের উদ্ধারে চলতে থাকে নানা প্রচেষ্টা। দিন গড়াতে থাকে, দীর্ঘ হতে থাকে অপেক্ষার প্রহর। প্রথমে চেষ্টা করা হচ্ছিল ভূমি ধসের ফলে সুড়ঙ্গের ভেতরে যে মাটি-পাথর জমা হয়েছে, সেগুলো সরিয়ে শ্রমিকদের কাছে পৌঁছানোর। কিন্তু কিছুদূর যাওয়ার পরে ফের ধস নামে, তাই সেই পদ্ধতি বাতিল করা হয়। পরে মাটি কাটার যন্ত্র দিয়ে ধ্বংসাবশেষের ভেতরে গর্ত খোঁড়ার চেষ্টা হয়। সেই যন্ত্রও বিকল হয়ে যায়।

তারপর দিল্লি থেকে আরেকটি বড় মাটি কাটার যন্ত্র এনে ধ্বংসাবশেষের ভেতর দিয়ে ৯০০ মিলিমিটার ব্যাসের একটা পাইপ গুঁজে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছিল। এক পর্যায়ে সেই যন্ত্রও থমকে যায়।

এভাবে নানা প্রচেষ্টা বাধাগ্রস্ত হওয়ার পর সুড়ঙ্গের ভেতরে জমে থাকা ধসের শেষ অংশটি হাতে কাটা হয়। এরপর সুড়ঙ্গের ভেতরে ৯০০ মিলিমিটার একটি লোহার পাইপ গুঁজে দিয়ে তা দিয়েই বের করে আনা হয় শ্রমিকদের।

বাংলাদেশ সময়: ১১৪৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২৩
আরবি/এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।