ঢাকা, রবিবার, ৮ বৈশাখ ১৪৩১, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১ শাওয়াল ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

নেপালের উপপ্রধানমন্ত্রী লামিছানের সবই গেল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৮, ২০২৩
নেপালের উপপ্রধানমন্ত্রী লামিছানের সবই গেল

নেপালের নির্বাচনে অংশ নিতে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ছেড়েছিলেন রবি লামিচানে। নির্বাচনে জয়ী হলে তাকে দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী করা হয়, এ ছাড়া দায়িত্ব দেওয়া হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের।

কিন্তু নাগরিকত্বের অবৈধ সনদ জমা দিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় সবই হারিয়েছেন তিনি।

নেপালের সংবাদমাধ্যমগুলো বলা হয়েছে, নির্বাচনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব আগেই ছেড়েছিলেন রবি লামিচানে, এখন নেপালেরটিও নেই। সঙ্গে হারিয়েছেন উপপ্রধানমন্ত্রীর পদ। পার্লামেন্টের সদস্য পদ খোয়ানোয় হারিয়েছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও।

শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) এ খড়্গ পড়ে লামিচানের ওপর। নাগরিকত্ব বিষয়ক জটিলতার জেরে সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ে একে একে সব হারিয়েছেন ন্যাশনাল ইন্ডিপেন্ডেন্ট পার্টির শীর্ষ এ নেতা।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র বিমল পৌদেল এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চের রায় অনুসারে গত বছরের (২০২২) জাতীয় নির্বাচনে নাগরিকত্ব বিষয়ক আইন লঙ্ঘনের প্রমাণ পাওয়া গেছে রবি লামিছানের বিরুদ্ধে। ফলে তিনি পার্লামেন্টের সদস্য পদসহ সব হারিয়েছেন।

রায়ে দেশটির সর্বোচ্চ আদালতের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ত্যাগ করার পর ৪৮ বছর বয়সী লামিচানে নেপালের নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করার কথা ছিল। কিন্তু তিনি নেপালি নাগরিকত্বের অবৈধ সনদ ব্যবহার করে ওই নির্বাচনে অংশ নেন। ফলে তার পার্লামেন্টের সদস্য পদ রহিত করা হলো। একই সঙ্গে তিনি আজ থেকে নেপালের নাগরিক নন।

সব হারালেও অবারও নির্বাচনে অংশ নেবেন রবি লামিছান। তবে এবার বৈধ উপায়ে। নেপালের এ রাজনৈতিকের আইনজীবী সুনিল পোখরেল জানিয়েছেন, রবির আসনে উপ-নির্বাচন হবে। তিনি সেটিতে অংশ নেবেন।   অল্প সময়ের মধ্যেই নিয়মিত জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করবেন তিনি। তারপরও দক্ষিণ নেপালে নিজ আসনে প্রার্থিতা করবেন।

সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর রবির প্রতিক্রিয়া জানার চেষ্টা করে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। তিনি এ বিষয়ে কথাও বলেন। রবি বলেছেন, যেহেতু আমি কোনো দেশেরই নাগরিক নই, তাই আদালতের রায় নিয়ে কোনো মন্তব্য করা আমার পক্ষে উচিত নয়, সম্ভবও নয়।

নেপালের প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকেও এ সম্পর্কে কোনো মন্তব্য বা প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ২০ নভেম্বর নেপালের পার্লামেন্ট প্রতিনিধি সভার নির্বাচনে এক সময়ের জনপ্রিয় নেপালি টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব রবি লামিছানের দল ২০টি আসনে জয়ী হয়। গত ডিসেম্বরে ক্ষমতাসীন জোট সরকারে নিজের দলসহ যোগ দেন তিনি। পরে তাকে নেপালের উপপ্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

সূত্র: আল জাজিরা

বাংলাদেশ সময়: ২১৩২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৮, ২০২৩
এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।