ঢাকা, সোমবার, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

তথ্যপ্রযুক্তি

ডিজিটালাইজেশনের ফলে দেশে দুর্নীতি কমেছে: পলক

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২৪৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২০, ২০১৯
ডিজিটালাইজেশনের ফলে দেশে দুর্নীতি কমেছে: পলক

রাজশাহী: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ডিজিটালাইজেশনের ফলে দেশে দুর্নীতি কমেছে এবং সেবার মান বাড়ছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার পরই দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন এবং সে উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজশাহীর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অর্থায়নে নির্মিত ‘মোবাইল গেম অ্যান্ড অ্যাপস টেস্টিং ল্যাব’র  উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পলক একথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, প্রযুক্তি নির্ভর ও জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে ইন্টারনেট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।  

প্রধানমন্ত্রী প্রযুক্তি শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আইটি ল্যাব স্থাপন করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।

পলক বলেন, আমাদের উদ্ভাবনী মেধাকে এমনভাবে কাজে লাগাতে হবে যাতে বিশ্ব বাংলাদেশকে একটি প্রযুক্তি নির্ভর মেধাবী জাতি হিসেবে বিবেচনা করতে পারে। আর বাংলাদেশের প্রত্যেকটি হাইটেক পার্ক হবে একটি করে অর্থনৈতিক অঞ্চল।  

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইন্টারনেট শেয়ার করার আগে সত্য-মিথ্যা যাচাই শেষে ইন্টারনেট শেয়ার করতে হবে। কোনো রকম ভুল তথ্য দিয়ে অপপ্রচার, গুজব ও কাউকে বিভ্রান্ত না করার জন্য সবার প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাই।  

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এখান থেকে পেছানোর সুযোগ নেই। আমাদের তরুণ শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল বাংলাদেশের অংশ হতে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। তাদের নিত্যনতুন উদ্ভাবন করতে হবে, যা দিয়ে মানুষের কল্যাণ হয়।  

তিনি বলেন, আমাদের রয়েছে আট কোটি যুবক, যাদের প্রযুক্তিজ্ঞানে দক্ষ করতে পারলে কিংবা দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে পারলে আমরা বিশ্বে রোল মডেল হবো। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে এ বিষয়ে কাজ করতে হবে। দক্ষ মানুষ তৈরির গুরু দায়িত্বটা তাদেরই নিতে হবে। এক্ষেত্রে সব ধরনের সহযোগিতা করবে ইউজিসি।  

অনুষ্ঠানে রবেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এম ওসমান গণি তালুকদার, উপদেষ্টা ড. এম সাইদুর রহমান, অধ্যাপক ড. কামরুজ্জামান, অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কের প্রকল্প পরিচালক এ কে এ এম ফজলুল হক এবং রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) রেজিস্টার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. সেলিম হোসেন বক্তব্য রাখেন।

দুপুরে প্রতিমন্ত্রী রাজশাহী প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক, রাজশাহী ও আইসিটি বিভাগ কর্তৃক বাস্তবায়িত ‘মোবাইল গেম অ্যান্ড অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট সেন্টার’র উদ্বোধন করেন। বিকেলে তৃতীয় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস-২০১৯ এর মূল প্রতিপাদ্য ‘সত্য-মিথ্যা যাচাই আগে, ইন্টারনেটে শেয়ার পরে’ বিষয়ক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক প্রকল্পের অর্থায়নে প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে ল্যাব দুইটি স্থাপন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ২১৪০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৯
এসএস/আরবি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa