ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২২ মে ২০২৪, ১৩ জিলকদ ১৪৪৫

তথ্যপ্রযুক্তি

বাচ্চাদের স্মার্টফোন আসক্তি তাড়াতে অ্যাপলকে তাগিদ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬০৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৮, ২০১৮
বাচ্চাদের স্মার্টফোন আসক্তি তাড়াতে অ্যাপলকে তাগিদ আইফোনে আসক্ত একটি ছোট বাচ্চা। ছবি:সংগৃহীত

ঢাকা: বিশ্বব্যাপী বাচ্চারা এখন দিনকে দিন স্মার্টফোনে আসক্ত হয়ে পড়েছে। তাদের পড়াশোনা, নিয়মিত খেলাধুলা লাটে উঠছে। এর ফলে বাচ্চাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ব্যাপারটা সবাইকে ভাবিয়ে তুলেছে। কিন্তু ‘বেড়ালের গলায় ঘণ্টা’টা বাঁধবে কে!

হ্যাঁ, এবার এগিয়ে এসেছে অ্যাপল স্মার্টফোনের খোদ বিনিয়োগকারীরাই। অ্যাপল স্মার্টফোনে ২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে এমন দুটি বৃহৎ বিনিয়োগকারী গ্রুপ অ্যাপল কোম্পানিকে নতুন এক সফটওয়্যার তৈরির তাগিদ দিয়েছে।

যে সফটওয়্যার বাচ্চাদের স্মার্টফোন ব্যবহারের সময়সীমা সীমিত করে দেবে। এ ব্যাপারে তারা আইফোন (iPhone) মেকার অ্যাপল কোম্পানিকে আনুষ্ঠানিক পত্র পাঠিয়েছে।

জ্যানা পার্টনারস ও ক্যালিফোর্নিয়া টিচার্স পেনশন ফান্ড-এর তরফ থেকে সপ্তাহান্তে পাঠানো এই পত্রে বাচ্চাদের আইফোন ব্যবহারের সময়সীমা কমিয়ে দেবার উপযোগী একটি ‘ডিজিট্যাল লক’ উদ্ভাবনের তাগিদ দেওয়া হয়েছে। আইফোনসহ বিভিন্ন হালফিল প্রযুক্তি ব্যবহারকারী কিশোর কিশোরীদের ওপর এসবের প্রভাব নিয়ে কাজ করছেন যেসব বিশেষজ্ঞ, তারা এই আহবানকে স্বাগত জানিয়েছেন।

জ্যানা পার্টনারস ও ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট টিচার্স রিটায়ারমেন্ট সিস্টেম (CalSTRS) তাদের পত্রে আইফোনের অতিরিক্ত ব্যবহার বাচ্চাদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর যে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে, সেদিকটা অ্যাপল কোম্পানিকে বিবেচনা করে দেখতে অনুরোধ জানিয়েছে।

এতোদিন অ্যাপল বিষয়টা জেনেও কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তারা আরো বলেছে, অ্যাপল এ বিষয়ে ব্যবস্থা না নিলে তাদের সার্বিক ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং এর স্টকমার্কেট ভ্যালু কমে যাবে।

রয়টার্সের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, স্মার্টফোন ব্যবহারকারী বাচ্চাদের অর্ধেকই স্বীকার করেছে তারা আইফোনে আসক্ত হয়ে পড়েছে।

লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স-এর মনোবিদ্যার প্রফেসর সোনিয়া লিভিংস্টোন বিবিসিকে বলেন, শুনে ভালো লাগছে যে বিনিয়োগকারীরাই এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন।  

তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে ফোনটির নির্মাতা, সোশ্যাল মিডিয়া কোম্পানি এবং ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার-- সবাইকে এ বিষয়ে সুর মেলাতে হবে, একমত হতে হবে। ...সবারই একটা ভারসাম্যময় জীবন দরকার। কিন্তু যেভাবে এই ফোনের ডিজাইন করা হয়েছে, তাতে অভিভাবকরা বাচ্চাদের নিয়ে যারপরনাই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছেন।
বাংলাদেশ সময়: ২২০০ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৮, ২০১৮
জেএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।