ঢাকা, বুধবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৬ রজব ১৪৪৪

তথ্যপ্রযুক্তি

ইন্টারনেট আসক্তিকে পাঠাভ্যাসে পরিণত করবে ‘লেটস রিড’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৪১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০২২
ইন্টারনেট আসক্তিকে পাঠাভ্যাসে পরিণত করবে ‘লেটস রিড’

ঢাকা: শিক্ষার্থীদের মধ্যে ইন্টারনেটের আসক্তি কমিয়ে ইন্টারনেটের নিরাপদ ও উৎপাদনশীল ব্যবহার নিশ্চিত করতে জাগো ফাউন্ডেশন এবং দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় শুরু হয়েছে ভার্চ্যুয়াল লার্নিং অ্যাপ্লিকেশন ‘লেটস রিড’। এই অ্যাপে শিক্ষার্থীদের জন্য শ্রেণি বা গ্রেড অনুযায়ী থিমভিত্তিক বহু বই রয়েছে, যা ই-বুক হিসেবে বিনামূল্যে পড়া যাবে।

এই প্রকল্পের অংশ হিসেবে দেশের পাঁচ জেলা—রাজশাহী, খুলনা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা এবং বরিশালে সরাসরি কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। যাতে শিশুদের মধ্যে নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার প্রচার করা হচ্ছে এবং তাদের পিতামাতার সাথে শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল ও ব্লেন্ডেড শিক্ষার প্রচার বৃদ্ধি করেছে। এরই মধ্যে এই অ্যাপ্লিকেশনে আড়াই হাজারের বেশি শিক্ষার্থী এবং আড়াই হাজার অভিভাবক সরাসরি অ্যাক্সেস তৈরি করেছে। এই অঞ্চলগুলোতে স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেটের অপেক্ষাকৃত ভালো অ্যাক্সেস থাকায় প্রকল্পটি পরিচালনা করা হয়। এই পাঁচটি জেলার মোট ২৫০ জন তরুণ স্বেচ্ছাসেবক সরাসরি ২৫টি স্কুলে কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য কাজ করেছে। কার্যক্রমটি একটি নিরাপদ অনলাইন পরিবেশ তৈরি করেছে এবং গল্পের ছলে শিক্ষার্থীদের গ্রেড-ভিত্তিক পড়ার দক্ষতা উন্নত করেছে।

স্বেচ্ছাসেবকরা নির্বাচিত স্কুলগুলোতে ভ্রমণ করে এবং ইন্টারনেট সুরক্ষা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবং উৎপাদনশীল স্ক্রিন টাইম প্রচার করতে বিভিন্ন সেশনে শিক্ষার্থীদের লেটস রিড অ্যাপ্লিকেশন থেকে প্রশিক্ষণ দেয়। তরুণ স্বেচ্ছাসেবকরা প্রয়োজনীয় নির্দেশিকা লিফলেটসহ তাদের পিতামাতার ফোনে অ্যাপটি ডাউনলোড করার জন্য শিক্ষার্থীদের গাইড করে।

অভিভাবকদের একজন বলেন, যেহেতু আমার সন্তান ‘লেটস রিড’ অ্যাপটি ব্যবহার করা শুরু করেছে, আমি তাদের পড়ার দক্ষতার উল্লেখযোগ্য উন্নতি লক্ষ্য করেছি। তারা তাদের ফোনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গেম খেলতো, কিন্তু এখন তারা গল্প পড়তে আগ্রহী। অ্যাপটিতে পড়ার জন্য নতুন গল্প এবং বই আছে। আমার সন্তানকে পড়ার আনন্দের মধ্য দিয়ে বড় হতে এবং শিখতে দেখে আমি খুবই আনন্দিত।

দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ কাজী ফয়সাল বিন সিরাজ বলেন, এশিয়া ফাউন্ডেশন বিশ্বাস করে যে শিশুদের চরিত্র এবং থিম-সহ বই দরকার, যা তাদের জীবনকে প্রতিফলিত করে এবং বিশ্বকে অন্বেষণ করার সুযোগ দেয়। একটি সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশের জন্য কৌতূহলী এবং শিক্ষিত পাঠক তৈরি করতে, শিশুদের মানসম্পন্ন বইয়ের অ্যাক্সেস থাকতে হবে। দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশন, জাগো ফাউন্ডেশনের সাথে অংশীদারত্বে পিতামাতা, শিক্ষক এবং সম্প্রদায়ের লোকেদের কাছে লেটস রিড উদ্যোগটি চালু করেছে, যেখানে শিশুদের বিনামূল্যে বই অন্বেষণ করার দুর্দান্ত সুযোগ রয়েছে। অফলাইন ব্যবহারের জন্য প্রতিটি বই ডাউনলোড এবং মুদ্রণ করা যেতে পারে।

জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক করভী রাকসান্দ বলেন, আমাদের শিশুদের নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার এবং উৎপাদনশীল স্ক্রিন টাইম সম্পর্কে সচেতন করার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য লেটস রিড টুগেদার একটি উদ্যোগ। তারা গল্প, রঙিন ছবি, আকর্ষণীয় চরিত্র এবং তাদের জীবনের সাথে সম্পর্কিত থিম দিয়ে ভরা বিভিন্ন ধরনের ই-বুক খুঁজে পেতে পারে এই অ্যাপে। জাগো ফাউন্ডেশন, এশিয়া ফাউন্ডেশনের সাথে সহযোগিতায়, শিশুদের, তাদের পিতামাতা এবং সম্প্রদায়ের সদস্যদের সরাসরি প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ তৈরি করার জন্য এই কার্যক্রমের সূচনা করেছে। আমি আশা করি এটি যাদের প্রয়োজন তাদের সকলের উপকারে আসবে।

রাজশাহীর একটি স্কুলের একজন শিক্ষক বলেন, একজন শিক্ষক হিসেবে, ‘লেটস রিড’ অ্যাপটি আমার শিক্ষার্থীদের ওপর যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে তা আমি নিজে দেখেছি। তারা ক্লাস আলোচনায় বেশি ব্যস্ত থাকে এবং পাঠ্যগুলোকে উচ্চতরভাবে বুঝতে ও বিশ্লেষণ করতে সক্ষম হয়।

বাংলাদেশ সময়: ২১৪০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০২২
এমআইএইচ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa