ঢাকা, শনিবার, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ০৫ রজব ১৪৪৪

আগরতলা

আইনি জটিলতায় চালু হয়নি আগরতলা-ঢাকা-কলকাতা বাস সার্ভিস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৮, ২০২২
আইনি জটিলতায় চালু হয়নি আগরতলা-ঢাকা-কলকাতা বাস সার্ভিস

আগরতলা (ত্রিপুরা): আগরতলা থেকে কলকাতা ভায়া ঢাকা বাস সার্ভিস পুনরায় চালু করার পরিকল্পনা হলেও আইনি জটিলতায় বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) তা চালু করা সম্ভব হয়নি।

করোনা মহামারির জন্য প্রায় দুই বছর বন্ধ থাকার পর পুনরায় আগরতলা থেকে সরাসরি কলকাতার ভায়া ঢাকা যাত্রীবাহী বাস সার্ভিস চালু করার সিদ্ধান্ত নেয় ত্রিপুরা সরকার পরিচালিত ত্রিপুরা সড়ক পরিবহন নিগম (টিআরটিসি)।

সেই মোতাবেক এদিন নির্ধারণ করা হয়। এজন্য ১৬ জন যাত্রী টিকিটও ক্রয় করে ছিল।
 
এদিন রাজধানী আগরতলার কৃষ্ণনগর এলাকার আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনাল থেকে এ সার্ভিসের সূচনার জন্য উপস্থিত ছিলেন আগরতলা পৌর নিগমের মেয়র দীপক মজুমদার, আগরতলার বাংলাদেশ সহকারী হাই কমিশনের সহকারী হাইকমিশনার আরিফ মোহম্মদ, ত্রিপুরা সড়ক পরিবহন নিগমের মেয়র দীপক মজুমদার, ত্রিপুরা সড়ক পরিবহন নিগমের (টিআরটিসি) ম্যানেজিং ডিরেক্টর রাজেশ কুমার দাসসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।  

ফুল দিয়ে সাজিয়ে বাস চালুর প্রস্তুতি নিলেও তার সম্ভব হয়নি কেন সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ত্রিপুরা সরকারের তরফে ভারত সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রকের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে সঠিক সময়ে অনুমোদনের আবেদন পত্র পাঠানো হয়নি। তাই বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন আসেনি। এর ফলে এদিন বাস সার্ভিস চালু করা সম্ভব হয়নি।
 
আগরতলার বাংলাদেশ সহকারী হাই কমিশনের সহকারী হাইকমিশনার আরিফ বলেন, উভয় দেশ যেহেতু এ বাস সার্ভিস পুনরায় চালু করার বিষয়ে আগ্রহী। তাই দ্রুত আইনি বিষয়গুলো মিটিয়ে আবার বাস চালু হবে। এজন্য তিনি সব ধরনের সহযোগিতা করবেন বলেও আশ্বাস দিয়েছেন।

টিআরটিসির ম্যানেজিং ডিরেক্টর রাজেশ কুমার দাস বাংলানিউজকে বলেন, শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন উভয় দিক থেকে বাস চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এজন্য দুটি বাস প্রস্তুত রাখা হয়েছে। টিআরটিসি এ সার্ভিস দেবে।

তিনি বলেন, বাসগুলো কলকাতার সল্টলেক এলাকার করুনাময়ী আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনাল থেকে আগরতলা হয়ে ঢাকার কমলাপুরে যাবে। আগরতলা থেকে কলকাতা পৌঁছাতে সময় লাগবে ১৮ থেকে ১৯ ঘণ্টা, তবে ইমিগ্রেশন কাউন্টারের কাজ দ্রুত শেষ হলে কিছু সময় আগে পৌঁছানো যায়। এজন্য ইমিগ্রেশন কাউন্টারগুলোতে চিঠি দিয়ে অনুরোধ করা হয়েছে। যাতে বাসযাত্রীদের জন্য আলাদা একটি কাউন্টার করা হয়।
  
আগরতলা থেকে ঢাকার ভাড়া ৫০০ রুপি এবং বাংলাদেশের ভ্রমণ কর ৫০০ রুপি, মোট এক হাজার রুপি। আর আগরতলা থেকে কলকাতা পর্যন্ত বাস ভাড়া এক হাজার ৮০০ রুপি, সেই সঙ্গে বাংলাদেশের ভ্রমণ কর ৫০০ রুপি। মোট খরচ দুই হাজার ৩০০ রুপি।  

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৮, ২০২২
এসসিএন/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa