ঢাকা, শনিবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৮ মে ২০২২, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

আগরতলা

ত্রিপুরায় সাত দিনব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিজেপি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৪৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৬, ২০২২
ত্রিপুরায় সাত দিনব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিজেপি

আগরতলা (ত্রিপুরা): ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর গাড়িবহর আটকে দেওয়ার প্রতিবাদে ত্রিপুরা জুড়ে চলছে বিক্ষোভ কর্মসূচি। এ ঘটনায় ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি সাতদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা।

বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় ত্রিপুরায় মশাল মিছিলের মধ্য দিয়ে এ কর্মসূচির সূচনা হয়।

রাজধানী আগরতলার কৃষ্ণনগর এলাকার ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপির কার্যালয়ের সামনে থেকে এ মশাল মিছিল শুরু হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক অতিক্রম করে সিটি সেন্টারের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

মিছিল শেষে সিটি সেন্টারের সামনে একটি সভার আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব, ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপির সম্পাদক টিংকু রায়, সম্পাদিকা পাপিয়া দত্ত, মন্ত্রী রামপ্রসাদ পাল, আগরতলা পৌর নিগমের মেয়র দীপক মজুমদার প্রমুখ।
 সভায় মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন, পাঞ্জাব প্রদেশে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। পাঞ্জাব হচ্ছে বীরের ভূমি, এ জায়গায় কাপুরুষের মতো কংগ্রেস সরকার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। নির্বাচন স্বচ্ছতাসহ প্রগতি উন্নয়ন কোনো কিছুতেই নরেন্দ্র মোদীকে হারাতে পারছে না। তাই এ ধরনের কাপুরুষের মতো ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিয়েছে কংগ্রেস নেতারা। কিন্তু মানুষ এসব ষড়যন্ত্রকারীদের ছাড়বে না।  

আগরতলা ছাড়াও রাজ্যের অন্যান্য স্থানে এদিন বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিক্ষোভ কর্মসূচির পাশাপাশি এদিন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব আগরতলার মাহেরকালী বাড়িতে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর দীর্ঘায়ু কামনা করে পূজা করেছেন।

গত বুধবার (৫ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী পাঞ্জাবে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য যাওয়ার সময় রাস্তায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করায় বাধ্য হয়ে তাকে ফিরে যেতে হয়।  

বাংলাদেশ সময়: ২১৪২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৬, ২০২২
এসসিএন/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa