ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৪ মে ২০২২, ২২ শাওয়াল ১৪৪৩

আগরতলা

প্লাস্টিক দিয়ে আগরতলায় তৈরি হচ্ছে রাস্তা

সুদীপ চন্দ্র নাথ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০০১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩০, ২০২১
প্লাস্টিক দিয়ে আগরতলায় তৈরি হচ্ছে রাস্তা আগরতলার রাস্তার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে প্লাস্টিক। ছবি: বাংলানিউজ

আগরতলা (ত্রিপুরা): ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায় পরীক্ষামূলকভাবে একটি রাস্তা প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে। প্রতিদিন আগরতলা শহরে প্লাস্টিকের যে জঞ্জাল উৎপন্ন হয়, এ জঞ্জাল দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে রাস্তাটি।



বর্তমান বিশ্বে বিপুল পরিমাণে প্লাস্টিক সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে। যা পাহাড়ের চূড়া থেকে শুরু করে সমুদ্রের তলদেশ পর্যন্ত জমছে।

বলতে গেলে প্লাস্টিক এখন পরিবেশ বিজ্ঞানীদের কাছে মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছে। তারা মানুষের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন প্লাস্টিকের ব্যবহার কমানোর জন্য। অপরদিকে বিজ্ঞানীরা উৎপাদিত প্লাস্টিককে রিসাইকেল করে অন্যান্য কাজে ব্যবহার করা যায় কিনা এ নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছেন।

বর্তমানে রিসাইকেল করা প্লাস্টিকের অন্যতম একটি ব্যবহারে তৈরি হচ্ছে রাস্তা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্লাস্টিকের দূষণ থেকে মুক্ত হওয়ার মাধ্যম হিসেবে রাস্তা তৈরির কাজে প্লাস্টিক ব্যবহার করা হচ্ছে। এবার এ তালিকা ঢুকে পড়লো ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্য ত্রিপুরা। ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলার বি কে রোডটি পরীক্ষামূলক ভাবে তৈরি করা হচ্ছে প্লাস্টিক দিয়ে। পশ্চিম জেলার জেলা শাসক ডা. শৈলেশ কুমার যাদব বাংলানিউজকে জানান,  প্রায় ৭০০ মিটার দীর্ঘ প্লাস্টিকের রাস্তাটি তৈরি করা হচ্ছে আগরতলা স্মার্ট সিটি মিশনের অধীনে। এটি তৈরিতে খরচ ধরা হয়েছে প্রায় ৭০ লাখ টাকা। প্রথাগতভাবে বিটুমিন দিয়ে রাস্তা তৈরি করা হয়। বিটুমিনের সঙ্গে সর্বোচ্চ ৬০ শতাংশ প্লাস্টিক মিশিয়ে রাস্তাটি তৈরি করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে রাস্তাটির প্রায় বেশির ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। আনুষাঙ্গিক যেসব কাজ বাকি রয়েছে এগুলো সম্পূর্ণ হয়ে গেলে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজ্যের প্রথম প্লাস্টিকে মোড়া রাস্তার উদ্বোধন করা হবে। সাধারণ বিটুমিনের তৈরি রাস্তার চেয়ে প্লাস্টিকের তৈরি রাস্তার বাড়তি সুবিধা রয়েছে।

তিনি জানান, প্লাস্টিকের তৈরি রাস্তা অনেক বেশি টেকসই। আর সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে নিত্যদিন ব্যবহারের ফলে যেসব প্লাস্টিক বর্জ্য হিসেবে ডাম্পিং স্টেশনে যাচ্ছে এমন পরিত্যক্ত প্লাস্টিক দিয়েই রাস্তা তৈরি করা হচ্ছে। তিনি আরও জানান, আগরতলা পুরনিগম এলাকায় বর্তমানে প্রতিদিন প্রায় ১৯ টন প্লাস্টিক বর্জ্য হিসেবে ডাম্পিং স্টেশনে যায়। এ প্লাস্টিকগুলোকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়। প্রথম এবং দ্বিতীয় শ্রেণির প্লাস্টিক আবার শিল্প-কারখানায় ব্যবহারের জন্য বিক্রি করা হয়। আর পরিত্যক্ত তৃতীয় ভাগ বা সবচেয়ে নিম্নমানের প্লাস্টিক যেগুলো কারখানায় পুনঃব্যবহারের অযোগ্য প্লাস্টিকগুলো আগরতলার রাস্তার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে।

আগরতলা শহরের প্রথম প্লাস্টিকের তৈরি রাস্তা যদি টেকসই এবং তুলনামূলক ভালো হয় তাহলে আগামীদিনে আরও নতুন নতুন রাস্তা তৈরি করা হবে প্লাস্টিক দিয়ে বলেও জানান জেলা শাসক ডা. শৈলেশ।

প্রসঙ্গত, উত্তর-পূর্ব ভারতের একমাত্র মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলং শহরে বর্তমানে একটি প্লাস্টিকের রাস্তা রয়েছে। আগরতলা হচ্ছে উত্তর-পূর্ব ভারতের দ্বিতীয় শহর যেখানে প্লাস্টিকের রাস্তা তৈরি হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৫৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩০, ২০২১
এসসিএন/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa