ঢাকা, রবিবার, ১ বৈশাখ ১৪৩১, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪ শাওয়াল ১৪৪৫

আগরতলা

ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর জনসম্পর্ক কর্মসূচি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২১৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৯
ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর জনসম্পর্ক কর্মসূচি ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর জনসম্পর্ক কর্মসূচি। ছবি: বাংলানিউজ

আগরতলা (ত্রিপুরা): ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব তার প্রশাসনিক কাজের ব্যস্ততার মধ্যেও নিজ নির্বাচনী কেন্দ্র জনসম্পর্ক অভিযান কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছেন।

এ কর্মসূচির অংশ হিসেবে প্রতি রোববার সাপ্তাহিক ছুটির দিন তিনি নিজ বিধানসভা কেন্দ্র বনমালীপুরের যে কোনো বাড়িতে চলে যান এবং সেখানে মধ্যাহ্নভোজন করেন। তিনি আকস্মিকভাবেই যে কোনো বাড়িতে ঢুকে পড়েন এবং সেই বাড়িতে যা রান্না করা থাকে তা দিয়েই ভোজন করেন।

সম্প্রতি নিয়মভাবে তিনি এ কর্মসূচি চালিয়ে আসছেন।

রোববার (২৯ ডিসেম্বর) তার ব্যতিক্রম ছিল না। এদিন তিনি ধলেশ্বর এলাকার প্রণব দেবনাথ'র বাড়িতে চলে যান এবং পরিবারের সদস্যদের জন্য যা রান্না হয়েছিল তা দিয়েই দুপুরের খাবার সেরে নেন।

প্রণব দেবনাথের গৃহবধূ এ বিষয়ে বাংলানিউজকে জানান, হঠাৎ করে বাড়িতে মুখ্যমন্ত্রী আসায় অবাক হয়ে যাই। ভাবতেই পারেননি যে মুখ্যমন্ত্রী এভাবে তার বাড়িতে ভোজন করতে আসবেন। বাড়িতে যা রান্না করা ছিল তা দিয়েই মুখ্যমন্ত্রী পরম তৃপ্তি সহকারে খেয়েছেন। খাবার শেষে পরিবারের সবার সঙ্গে ছবি তুলে মুখ্যমন্ত্রী বেরিয়ে পড়েন অন্য কাজে। ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর জনসম্পর্ক কর্মসূচি।  ছবি: বাংলানিউজ
 এভাবে প্রতি রোববার তিনি বনমালীপুরের কোনো না কোনো বাড়িতে উপস্থিত হয়ে ভোজন করেন।  

জনসম্পর্ক কর্মসূচির বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বাংলানিউজকে জানান, তার এ কর্মসূচির অন্যতম কারণ হলো নিজ বিধানসভা এলাকার জনগণের সঙ্গে জন সম্পর্ক গড়ে তোলা।
 
তিনি বলেন, অন্য বিধানসভা এলাকার জনগণ তাদের বিধায়ককে যতটা কাছে পান। তিনি তার কাজের কারণে নিজ বিধানসভা এলাকার জনগণকে সেভাবে সময় দিতে পারেন না। এজন্য তিনি এভাবেই সাধারণ মানুষের বাড়িতে ছুটে যাচ্ছেন এবং তাদের খোঁজ-খবর নেন।
 
কি দিয়ে খাওয়ালো এটা বড় নয়, সাধারণ মানুষ যে আন্তরিকতার সঙ্গে তাকে খাওয়াচ্ছে এটাই তার কাছে বড় প্রাপ্তি বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭১০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৯
এসসিএন/আরআইএস/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।