ঢাকা, রবিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৬ মে ২০২৪, ১৭ জিলকদ ১৪৪৫

আগরতলা

ভালোবাসা ‘ফিরিয়ে দেওয়ার’ দাবিতে প্রেমিকের অবস্থান ধর্মঘট

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০১০৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ১, ২০১৯
ভালোবাসা ‘ফিরিয়ে দেওয়ার’ দাবিতে প্রেমিকের অবস্থান ধর্মঘট

আগরতলা (ত্রিপুরা): চাইলেই সবকিছু ফিরিয়ে দেওয়া যায় না। এই যেমন- ভালোবাসা। কেউ কাউকে ভালোবাসা দিয়ে পরে আবার তা ফেরত চাইলে দেওয়া অসম্ভব। কিন্তু সম্পর্ক ভেঙে দেওয়ায় এমন দাবি তুলেই প্রেমিকাকে চরম বিপত্তিতে ফেলেছেন এক যুবক। শুধু তাই নয়, ভালোবাসা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে প্রেমিকার বাড়ির সামনে রীতিমত অবস্থান ধর্মঘটে বসেছেন তিনি।  

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরের দিকে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের পশ্চিম জেলায় এ ঘটনা ঘটে।  

সরেজমিনে ঘটনাস্থল সিধাই থানার তুলাবাগান এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, আকাশ সরকার নামে এক যুবক প্ল্যাকার্ড নিয়ে একটি বাড়ির সামনে বসে আছেন।

তাতে লেখা ‘পূজা আমার ভালোবাসা ফিরিয়ে দাও। ’। লেখার পাশে সেঁটে দেওয়া প্রেমিকার সঙ্গে আকাশের অন্তরঙ্গ একটি ছবিও। এসব দেখে তাকে ঘিরে ভিড় জমিয়েছে কৌতূহলী মানুষজন।

আকাশ জানান, তিনি স্থানীয় মোহনপুর এলাকার স্বামী বিবেকানন্দ কলেজের ছাত্র। যে মেয়ের বাড়ির সামনে বসে আছেন, তিনি তার প্রেমিকা ও সহপাঠী। তার সঙ্গে দীর্ঘ সাত বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল মেয়েটির। কিন্তু হঠাৎই কোনো এক অজ্ঞাত কারণে মেয়েটি আর আকাশের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন না। তাই তিনি প্রেমিকাকে ভালোবাসা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়ে অবস্থান ধর্মঘটে বসেছেন।  

একপর্যায়ে কৌতূহলী জনতা আকাশ যে বাড়ির সামনে বসে আছেন সে বাড়ির লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে প্রেমঘটিত সম্পর্কের সত্যতা জানা যায়। ঘটনার কথা জানতে পেরে আকাশকে বাড়ির সামনে থেকে সরে যাওয়ার ব্যাপারে বোঝাতে ছুটে যায় মেয়েটির মাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা। কিন্তু ওই যুবক অবস্থান ধর্মঘট থেকে সরে দাঁড়াতে একেবারেই নারাজ। তার দাবি, দীর্ঘদিনের ভালোবাসা ফিরিয়ে দিলে তবেই তিনি সরবেন।  

ক্যাপশন- অবস্থান ধর্মঘটে আকাশ ও তার বন্ধুবান্ধব।  ছবি- বাংলানিউজ

আকাশের প্রেমিকা ও তার মায়ের বক্তব্য, ছেলেটির সঙ্গে মেয়েটির প্রেমের সম্পর্ক ছিল এটা ঠিক, কিন্তু তিনি অহেতুক মেয়েটিকে সন্দেহ করতেন। এমনকি সন্দেহের বশবর্তী হয়ে তার ওপর শারীরিক নির্যাতনও চালাতেন। তাই পরিবারের তরফে ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে মেয়েটিকে ওই সম্পর্ক থেকে সরে যেতে বলা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে মেয়েটিও ছেলেটির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে। এ ব্যাপারে আকাশের সঙ্গেও আলোচনা করা হয় বলে জানায় তারা। সে সময় আকাশ নিজের ভুল বুঝতে পেরে মেয়েটির সঙ্গে আর কোনো সম্পর্ক রাখবেন না জানিয়ে প্রতিশ্রুতি দেন বলেও দাবি মেয়ের পরিবারের। কিন্তু হঠাৎ করে তার এমন আচরণে তারা অবাক।

এদিকে শত চেষ্টাতেও আকাশকে বাড়ির সামনে থেকে সরাতে ব্যর্থ হয়ে সিধাই থানায় মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছে মেয়ের পরিবার। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আকাশকে বুঝিয়ে সরানোর চেষ্টা করে, কিন্তু তিনি নিজের দাবিতে অনড়।  

আকাশ জানান, অবস্থান ধর্মঘটের ব্যাপারে পাড়াপ্রতিবেশী থেকে শুরু করে বন্ধুবান্ধবরাও তার সঙ্গে আছেন। সব মিলিয়ে পুলিশও তার সরে যাওয়ার ব্যাপারে বেশি জোরজবরদস্তি করার সুযোগ পায়নি।  

অনেকের মতে, যেহেতু ছেলে ও মেয়ের মধ্যে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল, ফলে এখন সবার উচিত এ সম্পর্ক মেনে নেওয়া। এরই মাঝে এ দাবিতে বন্ধুবান্ধবসহ এলাকার বেশ কিছু লোকজন একাত্মতা ঘোষণা করে আকাশের সঙ্গে অবস্থান ধর্মঘটে বসেছেন।  

বাংলাদেশ সময়: ২১০২ ঘণ্টা, অক্টোবর, ২০১৯
এসসিএন/এইচজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।