ঢাকা, বুধবার, ৫ মাঘ ১৪২৮, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

খেলা

সালাউদ্দিনকে চান জেমি

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮২৬ ঘণ্টা, আগস্ট ১৭, ২০১০
সালাউদ্দিনকে চান জেমি

ঢাকা: কোচ জেমি সিডন্স এসে গেছেন। জাতীয় দলের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম নিয়ে তৎপড়তাও শুরু হয়ে গেছে।

একদল কোচিং স্টাফ নিয়ে ২২ আগস্ট থেকে মাঠে নেমে যাবেন সিডন্স।

ফিল্ডিং কোচ জুলিয়ান ফউন্টেইন চলে আসবেন বৃহস্পতিবার। বোলিং কোচ আসতে একটু সময় লাগতে পারে। তবে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচ একদিনের ক্রিকেট সিরিজ শুরুর আগে অবশ্যই সবাইকে পাবেন সিডন্স। সব কিছুই ছকে বাঁধা। শুধু জাতীয় দলের সাবেক ফিল্ডিং কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ছাড়া।  

বিশ্বকাপের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে সালাউদ্দিনকে সহকারী হিসেবে পেতে চাইছেন জেমি সিডন্স। তবে ফিল্ডিং কোচ নয়, স্পিনারদের কোচ হিসেবে। বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে সিডন্স বলেন,“আমি চাই সালাউদ্দিন আমাদের সঙ্গে থাকবে। সে স্পিনারদের সাহায্য করতে পারবে। ”

সদ্য মনোনীত বোলিং কোচ দক্ষিণ আফ্রিকান ল্যান্স ক্লুজনার মূলত পেস বোলারদের নিয়ে কাজ করবেন। কিন্তু বাংলাদেশ দলের আসল অস্ত্র স্পিন। উপমহাদেশের কন্ডিশনে স্পিনাররা বরাবরাই আধিপত্য দেখিয়ে আসছেন। সেজন্যই স্পিনারদের যথাযথভাবে গড়ে তুলতে সালাউদ্দিনের সহযোগিতা চান সিডন্স।
 
ফিল্ডিং কোচের দায়িত্ব পালন করলেও জাতীয় দলে স্পিনারদের নিয়েও কাজ করতেন সালাউদ্দিন। এনামুল হক জুনিয়রের গ্রীপিং ঠিক করে দেওয়া। আব্দুর রাজ্জাকের বোলিং অ্যাকশন শুধরে দেওয়া। নাঈম ইসলাম এবং বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ওয়ানডে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে দেখভালের দায়িত্ব সাবেক ফিল্ডিং কোচের কাধেই ছিলো।

কোচ হিসেবেও সালাউদ্দিন ক্রিকেটারদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। ফিল্ডিং এবং ব্যাটিংয়ের সময় ক্রিকেটাররা তাদের প্রিয় স্যারের শরণাপন্ন হতেন। এখনো হচ্ছেন। তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেনসহ অনেকেই ব্যক্তিগতভাবে সালাউদ্দিনের কাছে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন।

যদিও এই মুহূর্তে কন্ডিশনাল ক্যাম্প নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সালাউদ্দিন। এরপর ২০ আগস্ট থেকে বিকেএসপিতে একাডেমি দলের ক্যাম্পে দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

জাতীয় দলের ক্যাম্পে সালাউদ্দিনকে পাওয়া যাবে কী না এমন প্রশ্নের জবাবে জেমি সিডন্স  বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন,“বিসিবি কি সিদ্ধান্ত নেবে জানি না। তবে তাকে আমাদের দরকার। ”

মঙ্গলবার কন্ডিশনাল ক্যাম্প দেখতে গিয়ে সালাউদ্দিনের সঙ্গে কথা বলেছেন সিডন্স। জেনে নিয়েছেন সালাউদ্দিনের কোচিং সূচি। অবশ্য সাবেক ফিল্ডিং কোচকে সিডন্স তার ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার বিষয়ে কোন প্রস্তাব দেননি বলে বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে জানিয়েছেন সালাউদ্দিন।

এদিকে ছুটি শেষে অস্ট্রেলিয়া থেকে সোমবার রাতে ঢাকায় পৌঁছানোর পরের দিন মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) অফিসে এসেই ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগ থেকে প্রস্তুতির বিষয়ে খুটিনাটি সবকিছু জেনে নিয়েছেন সিডন্স।

আগামী ২১ আগস্ট ক্রিকেটারদের সঙ্গে জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির কর্মকর্তারা বৈঠক করবেন বলে জানান প্রধান কোচ। প্রাথমিক দলে ২৬ জন ক্রিকেটারকে রাখার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন তিনি। এই প্রশিক্ষণ শিবিরকে নাম দিয়েছেন ‘স্কিল ডেভলপিং ক্যাম্প’।

জাতীয় দল নির্বাচক আকরাম খান অবশ্য বলেছেন কোচের প্রত্যাশার চেয়েও কম ক্রিকেটার দেওয়া হতে পারে জাতীয় দলের প্রাথমিক ক্যাম্পে। ২২ থেকে ২৩ জন ক্রিকেটারদের নেওয়ার পক্ষে তারা। সর্বশেষ দলের সঙ্গে কন্ডিশনাল ক্যাম্প থেকে বাকিদের নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আকরাম খান।

নিউজিল্যান্ড এবং জিম্বাবুয়ে সফরে সেরাদের খেলানো হবে। তবে অন্যদেরকে বাদ দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন কোচ। ধারাবাহিকভাবে ক্রিকেটারদের এগিয়ে নেওয়াই তার লক্ষ্য। আপাতত দ্বি-পাক্ষিক ওয়ানডে সিরিজে মনোযোগ দিতে চান এই অস্ট্রেলিয়ান। বলেন,“বিশ্বকাপ বলে সুর তুলে লাভ নেই। প্রতিটি সিরিজে ভালো করলেই বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হয়ে যাবে। আমরা চাই জয়। নিজউজিল্যান্ড এবং জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুটি সিরিজ খুবই কাজে দেবে। ”

শুধু দুটি সিরিজেই শেষ নয়। বিশ্বকাপের আগে আরো সিরিজ খেলার সুযোগ পাবে জাতীয় দল। সিডন্স জানিয়েছেন জানুয়ারির শেষ দিকে ঢাকায় বিদেশি দল আসতে পারে। মোট কথা বিশ্বকাপের প্রস্তুতি আশানুরূপ হবে বলেই মনে করেন তিনি।

ওদিকে খালেদ মাহমুদ জাতীয় দলের সহকারী কোচ থাকবেন না এমন গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়েছেন সিডন্স। উল্টো বলেছেন সহকারী কোচ থাকলে বরং তার সুবিধাই হয়। বলেন,“আমার একার পক্ষে সবকিছু দেখভাল করা সম্ভব হবে না। সহকারী কোচ থাকলে ভালো হবে। আমি ভুল করলে সে তা ধরিয়ে দিতে পারবে।

বাংলাদেশ সময়: ২০০৬ ঘন্টা, আগস্ট ১৭, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa