ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৮ জানুয়ারি ২০২২, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

খেলা

নির্বাচকদের মেয়াদ তিন মাস

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২০৪ ঘণ্টা, জুলাই ৩০, ২০১০
নির্বাচকদের মেয়াদ তিন মাস

ঢাকা: জাতীয় দলের তিন নির্বাচক আবারো উপেক্ষিত হলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) কর্মকর্তাদের কাছে। মাত্র তিন মাসের জন্য মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে রফিকুল আলমের নেতৃত্বাধীন নির্বাচক কমিটির।



বৃহস্পতিবার বিসিবির নির্বাহী কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। অথচ ক্রিকেট পরিচালানা কমিটির তরফ থেকে ২০১১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত নির্বাচকদের মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছিলো। কার্যনির্বাহী কমিটি বিষয়টিকে আমলে নেয়নি।

তিন নির্বাচক রফিকুল আলম, আকরাম খান ও জাহিদ রাজ্জাক মাসুমের মেয়াদ শেষ হয় ৩০ জুনে। এর পর বোর্ডের কাছ থেকে সাড়া না পেলেও নিজেদের দায়িত্ব চালিয়ে গেছেন তারা। বর্ধিত মেয়াদের একমাস শেষ হতে চলেছে। সামনে দুই মাস জাতীয় দল নিয়ে কাজ করার সুযোগ থাকছে তাদের সামনে। অর্থাৎ নিউজিল্যান্ড দলের বাংলাদেশ সফর পর্যন্ত থাকবেন তিন নির্বাচক।

অল্প সময়ের জন্য নির্বাচকদের দায়িত্ব দেওয়ার করণ জানানো হয়নি বিসিবির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে। এমন কি কার্যনির্বাহী কমিটির সভার আগে নির্বাচকদের সঙ্গে আলোচনারও প্রয়োজন বোধ করেননি পরিচালকরা।

নতুন মেয়াদে তিন মাসের জন্য দায়িত্বে থাকবেন কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে প্রধান নির্বাচক রফিকুল আলম বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন,“তিন মাস বেড়েছে মন্দ কি। আমরাই তো দায়িত্ব পালন করে আসছি। এরপরেও হয়তো বাড়ানো হবে। ”

এ বিষয়ে বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে আকরাম খান বলেন,“আমরা আশা করেছিলাম বিশ্বকাপ পর্যন্ত দায়িত্ব বাড়ানো হবে। এতো অল্প সময়ের জন্য কেন দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে বুঝতে পারছি না। তবে শুনেছি আমাদের সঙ্গে আলোচনার পর নতুন করে সিদ্ধান্ত নেবেন কর্মকর্তারা। ”

এভাবে উপেক্ষিত হওয়ায় এর আগে নির্বাচকের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন অভিষেক টেস্টের অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। তার জায়গায় নেওয়া হয় জাহিদ রাজ্জাক মাসুমকে।

নির্বাচকদের নিয়ে লুকোচুরি খেললেও কম্পিউটার অ্যানালিস্ট নাসির আহমেদের মেয়াদ ঠিকই ২০১১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ বিষয়ে দক্ষ লোক না থাকায় কোন রকম ঝুঁকি নেননি বিসিবি কর্তাব্যক্তিরা।    

সভায় আরো সিদ্ধান্ত হয়, বাংলাদেশ এ দলের কার্যক্রম পরিচালনা এবং দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সিনিয়র সহ-সভাপতি মাহাবুবুল আনামকে। পরিচালক গাজী আশরাফ হোসেন লিপুকে দেওয়া হয়েছে জিপি-বিসিবি দায়িত্ব।

অবশেষে জাতীয় দলের জন্য মনোবিজ্ঞানী নিয়োগ দিচ্ছে বিসিবি। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় মালয়েশিয়ার সেইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়াবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সৌমেন্দ্র সাহা জাতীয় দলের পরামর্শক হিসেবে কাজ করবেন।

নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মঞ্জুর আহমেদ এবং এফসিএ ও সিএফও রফিকুল ইসলামের নিয়োগের বিষয়টিও অনুমোদন দেওয়া হয় বৃহস্পতিবারের সভায়।

এছাড়া বিসিবি কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন, আসন্ন নিউজিল্যান্ড-বাংলাদেশ হোম সিরিজে ইউডিআর এস পদ্ধতি ব্যাহার সম্পর্কেও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় ইংল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড ও স্কটল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ দলের পারফরমেন্স মুল্যায়ন করে প্রতিবেদন উপস্থাপন করেছেন হেড অব ডেলিগেশন। প্রতিবেদনের সুপারিশগুলো গুরুত্ব সহকারে নেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ২৩৪৬ ঘন্টা, জুলাই ২০১০


বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa