ঢাকা, সোমবার, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সিঙ্গাপুর

সিঙ্গাপুরে ‘উৎকণ্ঠা’য় বাংলাদেশি প্রবাসীরা

আনোয়ার হোসেন, সিঙ্গাপুর করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬২২ ঘণ্টা, মে ৫, ২০১৬
সিঙ্গাপুরে ‘উৎকণ্ঠা’য় বাংলাদেশি প্রবাসীরা

সিঙ্গাপুর: গুপ্তহত্যা ও জঙ্গি তৎপরতার পরিকল্পনার অভিযোগে সম্প্রতি আটজন বাংলাদেশিকে আটকের পর সিঙ্গাপুরে এখন বাংলাদেশিদের নিয়ে চলছে তুমুল আলোচনা।

 

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ওই ঘটনার পর থেকে বাংলাদেশি কর্মীরা কয়েকজন একসঙ্গে জড়ো হয়ে কথা বললেই সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখা হচ্ছে তাদের।

বিভিন্ন কোম্পানির পক্ষ থেকে বাংলাদেশি কর্মীদের কর্মস্থলে বা আশপাশে একসঙ্গে বসে গল্প গুজব না করতে দেয়ালে নোটিশ টানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এতে চরম বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছেন বাংলাদেশিরা। অনেকে এ ধরনের আচরণকে অবমাননাকর বলেও মনে করছেন। তাই চরম উৎকণ্ঠায় সময় আছেন এসব শ্রমিক।

জানা যায়, মাত্র কয়েক মাস আগে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ২৭ বাংলাদেশি নাগরিককে দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয় সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

গত এপ্রিলে একই অভিযোগে আটজনকে আটক করার পর জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে যাচ্ছে সিঙ্গাপুর সরকার। আর তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসহ সবস্থরের জনসাধারণ।

তবে এক্ষেত্রে বলির পাঁঠা হতে হচ্ছে সিঙ্গাপুরে বসবাসকারী প্রায় দেড় লক্ষাধিক বাংলাদেশিকে। এরমধ্যে সবচেযে বেশি অবমাননার শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশি মুসলমানরা।

এরইমধ্যে সিঙ্গাপুরের ইমিগ্রেশন সিস্টেমে কঠোর নিরাপত্তার আওতায় আনা হয়েছে। সিঙ্গাপুরে প্রবেশের আগে আর বের হওয়ার সময় সব বিদেশির জন্য ফিঙ্গারপ্রিন্ট বাধ্যতামূলক করেছে সরকার।

বাংলাদেশি পাসপোর্টধারীদের প্রায়ই বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন অফিসারদের কঠোর জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়, কয়েকমাস আগে থেকেই বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুরের ভিসা ইস্যুর ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।  

সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, সম্প্রতি আটক আট বাংলাদেশির কয়েকজন দীর্ঘ ৮-১০ বছর ধরে সিঙ্গাপুরে বসবাস করছেন।

আটকের সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ, বোমা তৈরির এবং স্নাইপার রাইফেল ব্যবহারের নিয়মাবলী এবং বাংলাদেশের সরকারি ও উচ্চপদস্থ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার তালিকা জব্দ করা হয়।

ইসলামিক স্টেট অব বাংলাদেশ (আইএসবি) পরিচয়ে গঠিত এই জঙ্গি সংগঠনের মূল টার্গেট ছিলো বাংলাদেশের বিভিন্ন উচ্চ-পদস্থ সরকারি কর্মকর্তা।

এই সংগঠনের কর্মীরা  সময় মতো বাংলাদেশে ফিরে সেই সব কর্মকর্তাদের ওপর হামলা করার পরিকল্পনা করছিলো বলেও জানায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, প্রাথমিক তদন্তে সিঙ্গাপুরের অভ্যন্তরে এই জঙ্গিদের হামলার কোনো পরিকল্পনার আলামত না পেলেও ভবিষ্যতে যে কারো প্ররোচনায় তারা দেশটির নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াত বলে মনে করছে সরকার।

তাই ভবিষ্যৎ নিরাপত্তার স্বার্থে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করা এবং সংগঠনের মূল উৎপাটন করে তাদের সহযোগিতা প্রদানকারী সবাইকে বিচারের মুখোমুখি করতেই তাদের বিরুদ্ধে আটকাদেশ দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে সিঙ্গাপুরের  কারাগারে আটক রয়েছেন ওই ৮ বাংলাদেশি।

সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশ হাইকমিশন‍ার মাহবুব উজ জামান জানান, গত এপ্রিলে ১৩ বাংলাদেশিকে আটক করা হয়। এরমধ্যে ৫জনকে ২৯ এপ্রিল বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়। আর ৮জনকে দ্বিতীয় পর্যায়ের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪২ ঘণ্টা, মে ০৫, ২০১৬
এমএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa