ঢাকা, রবিবার, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

রাজনীতি

প্রধানমন্ত্রী অবান্তর কথা বলেন: রিজভী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫২০ ঘণ্টা, অক্টোবর ২, ২০২২
প্রধানমন্ত্রী অবান্তর কথা বলেন: রিজভী

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নাকি অবান্তর কথা বলেন। তিনি নিজের ভয়ঙ্কর অপরাধকে আড়াল করতে বিএনপির বিরুদ্ধে অমূলক কথা বলেন।

জনগণ ও গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে সরকার প্রধান আজীবন ক্ষমতা ধরে রাখতে চান। এসব মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

রোববার (২ অক্টোবর) দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব মন্তব্য করেন বিএনপির এ নেতা।

রিজভী বলেন, ওয়াশিংটনে অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার ভয়ঙ্কর অপরাধকে আড়াল করার জন্য বিএনপির বিরুদ্ধে অবান্তর-অমূলক কথা বলেছেন। তার অপরাধ সুপরিকল্পিত। এই অপরাধ দেশের জনগণের ও গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে। কারণ, তিনি আজীবন ক্ষমতা ধরে রাখতে চান। আর এই ক্ষমতা ধরে রাখতে গিয়ে তিনি গুম, খুন, ক্রসফায়ারের মতো অপরাধ করছেন। তবে, এসব করে পার পাওয়া যাবে না। তাদের অপরাধের জন্য দেশের মানুষের আদালতে এ সরকারের বিচার হবে।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ মহাসচিব বলেন, ওয়াশিংটনে এক মতবিনিময় সভায় অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি আমলের দুর্নীতি আর নৃশংসতা সবাইকে জানতে হবে। কেন তিনি একথা বলছেন? প্রতিবছর লক্ষ কোটি টাকা পাচার, একটা দরজা জানালার পর্দার দাম ২২ লাখ টাকা? খিচুড়ি রান্না শেখার জন্য, পুকুর কাটার জন্য সব সরকারি কর্মকর্তারা বিদেশে যাচ্ছেন। হাজার হাজার বছর ধরে এদেশের মানুষ নিজের অভিজ্ঞতা-জ্ঞান দিয়ে যা করেছেন জনগণের টাকায় ট্রেনিং নেওয়ার জন্য যেটা এখন সেটি তারা (আমলা) শিখে আসছেন!

বিএনপির এ মুখপাত্র বলেন, বিএনপির আমলে কোনো দুর্নীতি-নৃশংসতা হয়নি। বানোয়াট অপরাধ, মিথ্যা কাহিনী বিএনপির বিরুদ্ধে নিশিরাতের ভোট করে ১৩-১৪ বছর ক্ষমতায় থেকে সমস্ত মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করে অপপ্রচারের যে ঢালাও কাহিনী তারা মানুষকে শুনিয়েছে; সেটি মানুষ বিশ্বাস করেনি। বিধায় আজকে তারা যে মহা দুর্নীতির মহাকীর্তি অর্জন করেছে এটা নিয়ে যে দেশে বিদেশের মানুষের মুখে ছি ছি পড়ে গেছে। তাদের সকল অপকর্ম বিদেশের মানুষের মুখে মুখে এটি ঢাকার জন্য প্রধানমন্ত্রী ওয়াশিংটনে মতবিনিময় সভায় এই অবান্তর-অমূলক কথা বলেছেন।

রিজভী আরও বলেন, তারা যে ক্ষমতায় আছে তাদের কোনো নির্বাচনী বৈধতা নেই। তাদের এই অবৈধ সত্ত্বার কারণে আজ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং দেশের মানুষের কাছ থেকে ধিক্কার পাচ্ছে। তা আড়াল করার জন্য তারা নানা ধরনের কথা বলছে। সরকারের নৃশংসতার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে যে নিষেধাজ্ঞা এসেছে সেটিকে আড়াল করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ওয়াশিংটনের মতবিনিময় সভায় বলেছেন।

বিএনপি’র আমলে যদি সত্যিকার অর্থেই কোনো অন্যায় হতো, যদি কোনো ধরনের নৃশংসতা হতো তাহলে তো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে এক ধরনের নিষেধাজ্ঞা আসতো? এমন কোনো নিষেধাজ্ঞা আসেনি। উনি (প্রধানমন্ত্রী) যেভাবে নাটক তৈরি করেন; বাংলাদেশে আর কেউ কোনো দিন পারেনি। তিনি মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন; র‌্যাব পুলিশ দিয়ে গণমাধ্যমকে হুমকি দিতে পারেন। তারপরও তো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় চোখ বন্ধ করে রাখেনি। আজকে সারা পৃথিবীর মানুষ জানে শেখ হাসিনার নিষ্ঠুর নির্যাতনের কথা। তার অপশাসন ও কুকীর্তির কথা। তিনি আজকে গোটা জাতিকে জিম্মি করে রেখেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫২০ ঘণ্টা, অক্টোবর ২, ২০২২
এমএইচ/এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa