ঢাকা, মঙ্গলবার, ১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৬ আগস্ট ২০২২, ১৭ মহররম ১৪৪৪

রাজনীতি

সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে: মোশাররফ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪০৫ ঘণ্টা, জুলাই ১, ২০২২
সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে: মোশাররফ

ঢাকা: গায়ের জোরে যে সরকার ক্ষমতা দখল করে বসে আছে সেই সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

শুক্রবার (১ জুলাই) সকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে খালেদা জিয়া-মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, নজরুল ইসলাম খান, রুহুল কবির রিজভীসহ অসুস্থ দলীয় নেতাকর্মীদের সুস্থতা কামনায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. মোশাররফ বলেন, দেশের গণতান্ত্রিক, দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী শক্তির সামনে আজকে চ্যালেঞ্জ। এই যে গায়ের জোরের সরকার দেশে-বিদেশে যে আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জনজীবন অতিষ্ঠ। তাই এদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। এ সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে। অবৈধ সংসদ বাতিল করতে হবে। নির্দলীয়, নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে।  

তিনি বলেন, দেশের জনগণ নিজের হাতে নিজের ভোট দেবে ইভিএম মেশিনের মাধ্যমে নয়। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে স্বসম্মানে দেশে এনে রাজনীতি করার পরিবেশ তৈরি করতে হবে। এইসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য আজকে বিএনপিকেই নেতৃত্ব দিতে হবে। আমরা বিভিন্ন দলের সঙ্গে আলাপ করছি আপনারা জানেন। আজকে সাধারণ জনগণ প্রস্তুত। কিন্তু নেতৃত্ব দিতে হবে বিএনপিকে। আর নেতৃত্ব দিতে হবে ঢাকা মহানগরকে। আমরা পাকিস্তান আমলে আইউব খানের পতন ঘটিয়েছি এই ঢাকায়। ৯০সালে এরশাদের পতন আপনারা ঘটিয়েছেন এই ঢাকা শহরে। অতএব ঢাকা শহরেই এ সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে।

তিনি বলেন, গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী খালেদা জিয়া একটি বানোয়াট মামলায় ফরমায়েশী রায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত এবং বর্তমানে প্রশাসনিক আদেশে সাময়িক মুক্ত। তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। কিছুদিন আগে তার অস্ত্রপচার করা হয়েছে। অত্যন্ত খারাপ অবস্থায় তিনি বাসায় অবস্থান করছেন।

তিনি বলেন, আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া কেন অসুস্থ। তাকে একটি বানোয়াট মামলায় ফরমায়েশী রায়ে কারারুদ্ধ রেখেছিল। সেই নির্জন কেন্দ্রীয় কারাগারে যেখানে কোনো মানুষ ছিল না, এমনি একটি কারাগারে একাকীত্বের একটি অমানবিক পরিবেশে রাখা হয়েছিল। যে নেত্রী হেঁটে কারাগারে গিয়েছিলেন সেই নেত্রী যখন সাময়িক মুক্ত হন তখন সম্পূর্ণ অসুস্থ। অর্থাৎ এ সরকার দেশনেত্রীকে কারাগারে রেখে তিলে তিলে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে। তিনি এমন অসুস্থ যে চিকিৎসকরা বার বার সুপারিশ করেছে যে বাংলাদেশে তার আর উন্নত চিকিৎসা নাই। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানো প্রয়োজন। কিন্তু সরকার কর্ণপাত করেনি।

সরকারের অবহেলার কারণে চতুর্থবারের মতো কোভিড সংক্রমণ হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আমাদের একমাস আগে কিন্তু চীনে নতুন করে এই ওয়েভ সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। পাত্তা দেওয়া হয়নি। আজকে আবার করোনা বেড়ে যাচ্ছে। আমাদের নেতারা আক্রান্ত। এখানে সরকারের ব্যর্থতা রয়েছে।

সারাদেশের ১৭/১৮টা জেলা গঙ্গার পানির নিচে জানিয়ে ড. মোশাররফ বলেন, এবারের বন্যা ১২২বছরের রেকর্ড ভেঙেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে আবার সিলেট বিভাগে পানি বৃদ্ধি পাছে। পানিগুলো আমাদের ওপরের দেশ থেকে আসছে। বাংলাদেশের চারদিকে ফারাক্কাসহ ৫৪টা নদীতে বাধ দেওয়া আছে। বর্ষাকালে যখন অতিবৃষ্টি হয় তখন আমাদের ওপরের দেশের স্বার্থে গেট খুলে দেওয়া হয়। আবার এ বাধের কারণে শুষ্ক মৌসুমে পানি না আসায় নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে গেছে। সুরমা বেসিন ভরাট হয়ে গেছে। তাই পানি সরার জায়গা পায় না। যখন আমাদের পানির প্রয়োজন নাই তখন ভাসিয়ে দেওয়া হয়। আর যখন পানির প্রয়োজন হয় তখন দেওয়া হয় না। সরকার এসব নিয়ে কথা বলে না। তারা কিভাবে জোর করে ক্ষমতায় থাকবে সেটা নিয়ে ভাবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবদুস সালামের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনুর পরিচালনায় দোয়া মাহফিলে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মীর সরাফত আলী সপু, সাইফুল আলম নীরব, মীর নেওয়াজ আলী প্রমুখ।

সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের আহ্বায়ক মাওলানা শাহ মো. নেছারুল হক।

বাংলাদেশ সময়: ১৪০২ ঘণ্টা, জুলাই ০১, ২০২২
এমএইচ/এনএইচআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa