ঢাকা, রবিবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

রাজনীতি

সরকার ব্যর্থতা ঢাকতে ক্রমাগত হামলা করছে: সাকি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ২০, ২০২০
সরকার ব্যর্থতা ঢাকতে ক্রমাগত হামলা করছে: সাকি জোনায়েদ সাকি

ঢাকা: সরকার ব্যর্থতা ঢাকতে ক্রমাগত হামলা করছে বলে অভিযোগ করেছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি। তিনি বলেন, ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের ভেতর দিয়েই এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে।

খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল রক্ষার আন্দোলনে পুলিশের হামলা ও নেতাকর্মীদের গ্রেফতার এবং ধর্ষণবিরোধী লংমার্চে পুলিশ ও সরকারি দলের হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে গণসংহতি আন্দোলন।

সমাবেশে জোনায়েদ সাকি বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলো রক্ষা এবং আধুনিকায়ন করে পুনরায় চালু করার দাবিতে পাটকলগুলোর শ্রমিকরা এবং প্রগতিশীল রাজনৈতিক দলগুলো আন্দোলন করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল বাম গণতান্ত্রিক জোটের আহ্বানে সারা দেশে রাজপথ ও রেলপথ অবরোধের কর্মসূচি ছিল। খুলনায় পাটশিল্প রক্ষা সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহ্বানে খুলনার শিল্পাঞ্চলে রাজপথ রেলপথ অবরোধের কর্মসূচি ছিল। সকাল থেকে খুলনার আটরা শিল্পাঞ্চলে শ্রমিকরা শান্তিপূর্ণভাবে সমবেত হয়েছেন এবং তাদের কর্মসূচি পালন করেছেন।

তিনি বলেন, সেখানে পুলিশ বেপরোয়াভাবে লাঠিচার্জ করেছে এবং শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। শুধু তাই নয়, সেখান থেকে পুলিশ ১৫ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। টিয়ারগ্যাস ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়। জুটমিলগুলোর কলোনিতে ঘরে ঘরে ঢুকে নির্যাতন চালানো হয়েছে ও গ্রেফতার করা হয়েছে।

গণসংহতি আন্দোলন ফুলতলা থানা কমিটির আহ্বায়ক অলিয়ার রহমান এবং ছাত্র ফেডারেশন খুলনা জেলা আহ্বায়ক আল আমিন শেখসহ পাটশিল্প রক্ষা সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের সদস্য সচিব জনার্দন দত্ত নান্টুসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে গ্রেফতারের নিন্দা জানান জোনায়েদ সাকি।

তিনি আরো বলেন, সারা দেশে অব্যাহত ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ নামে মঞ্চ তৈরি করে আন্দোলন করে আসছিলেন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন এবং বিভিন্ন নারী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা কর্মীরা। গত ১৬ ও ১৭ মার্চ ঢাকা থেকে নোয়খালীর বেগমগঞ্চ অভিমুখে লংমার্চে ফেনীতে পুলিশ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের যৌথ হামলা হয়। এতে শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। তারপর বিভিন্ন জায়গায় এ লং মার্চে সরকারের গুন্ডাতন্ত্রের ন্যক্কারজনক হামলা হয়েছে।

বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলনের রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য ফিরোজ আহমেদ, তাসলিমা আখতার, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য বাচ্চু ভূঁইয়া, মনিরউদ্দীপ পাপ্পু, জুলহাসনাইন বাবু, কেন্দ্রীয় সদস্য দীপক রায় এবং কেন্দ্রীয় সংগঠক রণজিৎ মজুমদার ও সৈকত মল্লিকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ সময়: ২০১০ ঘণ্টা, অক্টোবর ২০, ২০২০
ইএআর/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa