bangla news

সাকা চৌধুরীর দাবি সিসিসি নির্বাচনে ভোটচুরির মহাপরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-০৬-০৫ ৮:২১:০৫ পিএম

বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাংসদ সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী দাবি করেছেন, বিগত সংসদ নির্বাচনের মতো চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন(সিসিসি) নির্বাচনেও ভোট চুরির মহাপরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এ কারণে চট্টগ্রামের পুলিশ প্রশাসনে একজন চিহ্নিত ও বিতর্কিত ব্যক্তিকে রাখা হয়েছে।

চট্টগ্রাম: বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাংসদ সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী দাবি করেছেন, বিগত সংসদ নির্বাচনের মতো চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন(সিসিসি) নির্বাচনেও ভোট চুরির মহাপরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এ কারণে চট্টগ্রামের পুলিশ প্রশাসনে একজন চিহ্নিত ও বিতর্কিত ব্যক্তিকে রাখা হয়েছে।

তিনি আজ বুধবার দুপুরে চট্টগ্রামে তার গুডস্হিলের বাসায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

নির্বাচন কমিশনের(ইসি) প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে ইসির কর্মদতায় ধানের শীষের ভোট কিভাবে নৌকায় রুপান্তরিত হয়েছে তা সবাই জানে। সিসিসি নির্বাচনেও ভোট কেড়ে নেওয়াসহ প্রতিপকে হয়রানি করার জন্য চট্টগ্রামের পুলিশ প্রশাসনে বিতর্কিত ব্যক্তিকে রাখা হয়েছে।
ওই বিতর্কিত কর্মকর্তার নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, ওই ছোটখাটো কর্মকর্তার নাম আমার মুখ দিয়ে বলে তাকে সম্মানিত করতে চাইনা। আওয়ামী লীগের প্রার্থীর ( মহিউদ্দিন চৌধুরীর)সঙ্গে ওই কর্মকর্তার নিবিড় সর্ম্পক রয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।  

সরকার ও ইসির প্রতি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, ‘মনে রাখবেন এটা ১২ আউলিয়ার চট্টগ্রাম। এখানে হিসেব করে চলতে হবে। আমি চাই না চট্টগ্রামে এমন কোনো ঘটনা ঘটুক যাতে সরকার বিপর্যস্ত হয়, বিব্রত হয়। সুষ্ঠু ও নিরপে নির্বাচন চাই। বেহুদা নির্বাচন দেখতে চাইনা।’ ইসি ও আইনশৃঙখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নিরপেভাবে দায়িত্ব পালনের আহবান জানান তিনি।

নির্বাচনে সেনা মোতায়েন প্রসঙ্গে সাকা চৌধুরী বলেন, ২০০৮ সালের নির্বাচনে তো সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল ভোটের ফলাফল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য। ওই  সময় সেনাবাহিনীর যেসব সদস্য সক্রিয় সহযোগিতা করেছিলেন ২০০৯ সালের ২৫শে ফেব্র“য়ারিতে বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় তারা এর  প্রতিদান পেয়েছেন। আশা করি, এবার তারা ওই ঘটনার অভিজ্ঞতা নিয়ে মাঠে নামবে।

সংবাদ সম্মেলনে সাকা চৌধুরীর ছোট ভাই উত্তর জেলা বিএনপি সভাপতি  গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক লায়ন আসলাম চৌধুরী, জাতীয় পার্টি নেতা জাহাঙ্গীর আলম ও জামায়াতে ইসলামীর সাবেক সাংসদ শাহাজাহান চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।  

আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদককে গ্রেফতার ও পত্রিকা বন্ধ করে দেওয়ার সমালোচনা করে তিনি বলেন, সরকার সংবাদ মাধ্যমের টুটি চেপে ধরেছে। এটা ২০১০ সালের বাকশালী প্রক্রিয়া, এর আগে সিএসবি ও চ্যানেল ওয়ান বন্ধ করা হয়েছে, গতকাল আমার দেশ পত্রিকা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এখন কেউ জানেনা কখন কাকে গ্রেফতার করা হবে। একমাত্র রাব্বুল আলামিন ও শেখ হাসিনার গোযেন্দা সংস্থ্ াজানে ।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৯ঘণ্টা, জুন ০২’ ২০১০ইং
এইচএস/এনএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2010-06-05 20:21:05