ঢাকা, বুধবার, ৩ বৈশাখ ১৪৩১, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৭ শাওয়াল ১৪৪৫

রাজনীতি

বিএনপি আবারও দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে: নজরুল ইসলাম 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৫২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
বিএনপি আবারও দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে: নজরুল ইসলাম 

ঢাকা: গণতন্ত্র ফেরানোর আন্দোলনে ‘সরকারের পরিবর্তন অবশ্যই হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেছেন, বিএনপি বাকশালের (একদলীয় শাসন ব্যবস্থা) গোরস্তানের ওপর বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে।

এই বিএনপি সামরিক স্বৈরশাসনের অবসানে সংসদীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে। কাজেই এই বিএনপি ইনশাল্লাহ আগামী দিনে আবারও বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করবে।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর গোপীবাগে কারাবন্দি অবস্থায় নিহত ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতা ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুলের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতের পর সাংবাদিকদের কাছে এসব মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা পরিবর্তন চাই এবং বিশ্বাস করি এই পরিবর্তন অবিসম্ভাবী, অবশ্যই হবে ইনশাল্লাহ। রাজনৈতিক কর্মসূচি বিভিন্ন সময়ের দাবিতে বিভিন্ন ধরনের হয়। আমরা অনেক আন্দোলনে বিজয়ী হয়েছি, স্বৈরাচারী এরশাদ পতনের আন্দোলনে আমরা বিজয়ী হয়েছি। ১/১১ সরকার জরুরি অবস্থার মধ্যে নির্বাচন করতে চেয়েছিল। আমাদের বাধার মুখে পারে নাই।  

সরকার পরিবর্তনের একদফার যুগপৎ আন্দোলন সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা যুগপৎ আন্দোলন করছি, সেই যুগপৎ আন্দোলন এখনো চলছে। তারা আমাদেরকে অভিযুক্ত করে যে, আমরা আন্দোলনে আর পারছি না। কয় বছর হয়েছে? বিএনপি ক্ষমতার বাইরে ১৭ বছর। আরও ১০/১২ বছর আগের থেকেই বলছে, বিএনপির কোমর ভাঙা, বিএনপি আন্দোলন করতে পারে না। তারা (আওয়ামী লীগ) ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসেছে। তাদের কি কোমর ভাঙা ছিল নাকি সোজা ছিল?

এরপর তিনি বলেন, যাদের ২১ বছর লাগে ক্ষমতায় আসতে তাদের এই অভিযোগ করার কোনো অধিকার নাই যে, বিএনপি পারে না। ২২ বছরের সময়ে যেন বলে, তার আগে না। আমরা তাদেরকে বলব যে কোনোভাবেই হোক ক্ষমতা দখল করে বসে আছেন, আপনারা সুশাসন দেন। এভাবে কোনো বোন, এভাবে কোনো ভাই তারা যেন আর্তনাদ না করে। কেউ অপরাধ করলে নিশ্চয় তার শাস্তি হবে কিন্তু এটা কি?

বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর সরকারের দমন-পীড়নের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এটা কোনো দেশ! আপনি যেকোনো সময়ে না জানিয়ে কাউকে উঠিয়ে নিয়ে যাবেন! যেখানে সেখানে ফেলে রাখবেন, চিকিৎসা দেবেন না, অসুস্থ মানুষ বিনা চিকিৎসায় মারা যাবে! এটা কোনো রাষ্ট্রের নীতি হতে পারে না। রাষ্ট্রের একটা দায়িত্ব আছে। রাষ্ট্র পরিচালনায় যারা দায়িত্বে আছেন তাদের একটা কর্তব্য আছে। কিন্তু কোনো দায়িত্ব-কর্তব্য পালন করা হচ্ছে না।

বিএনপির এ জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, অত্যাচার-নিপীড়ন এভাবে চলতে পারে না। যদি চলতো মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশ স্বাধীন হতো না। যদি অত্যাচারীরা চিরদিন অত্যাচার করতে পারত তাহলে ফেরাউন-নমরুদের পতন হতো না, হিটলার-মুসলিনের পতন হতো না। যারা মজলুমের ওপর নিপীড়ন করেছে তাদের বিচার হবে। আমরা মজলুমদের রক্তের বিনিময়, তাদের প্রাণের বিনিময় এদেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করব ইনশাল্লাহ। আমরা নিজেরাও চেষ্টা করব এবং যারা মজলুম কষ্টে আছেন তাদের ফরিয়াদ কখনও বৃথা যাবে না।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে যাতে এই ধরনের অত্যাচার-নিপীড়ন থেকে মুক্তি পায়, সরকার যেন সহায়তা করে, পুলিশ যেন জনগণের সেবা করে। আর সেই রকম একটা সমাজ আমরা প্রতিষ্ঠা করব।

প্রসঙ্গত, গত ২৪ অক্টোবর গ্রেপ্তার হন ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতা ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল। ২৪ নভেম্বর কাশিমপুরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হলে তাকে সোহরাওয়ার্দী হৃদ্‌রোগ ইন্সটিটিউটে আনার পর চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৯ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
টিএ/এসএএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।