ঢাকা, শনিবার, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০, ০২ মার্চ ২০২৪, ২০ শাবান ১৪৪৫

রাজনীতি

‘জনতার উত্তাল তরঙ্গ পুলিশ দিয়ে বন্ধ করা যাবে না’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৯, ২০২৩
‘জনতার উত্তাল তরঙ্গ পুলিশ দিয়ে বন্ধ করা যাবে না’

ঢাকা: বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সেক্রেটারি ড. মুহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, চলমান আন্দোলন রাজপথে রাজনৈতিক, নৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে অবৈধ, খুনি ও নৈশভোটের হাসিনা সরকার আদালতের ঘাড়ে বন্দুক রেখে প্রহসনের বিচার এবং ফরমায়েসি রায়ের মাধ্যমে সাজা দিয়ে বিরোধী আন্দোলন দমন করতে চায়।  

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীতে জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী উত্তর আয়োজিত গুম ও গুপ্ত হত্যার প্রতিবাদে এক বিক্ষোভ পরবর্তী সমাবেশে এসব কথা বলেন।

বিক্ষোভ মিছিলটি রামপুরা বাজার থেকে শুরু হয়ে মালিবাগ আবুল হোটেলের সামনে গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সহকারি সেক্রেটারি মাহফজুর রহমান, ডা. ফখরুদ্দীন মানিক, ঢাকা মহানগরী উত্তরের কর্ম পরিষদ সদস্য জিয়াউল হাসান, জামাল উদ্দীন, মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ ও মু. আতাউর রহমান সরকার, ছাত্রনেতা সালাহ উদ্দীন ও আব্দুর রহীম।

ড. রেজাউল করিম বলেন, জনগণ এসব রায় মানে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর স্যাংশনের কারণে হত্যার লাইসেন্স আর পাচ্ছে না। ফলে তারা জনগণে যৌক্তিক আন্দোলন দমন ও বিভ্রান্ত করার জন্য গুম, খুন, গুপ্তহত্যাসহ আদালতের অপব্যবহার শুরু করেছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের মনে রাখা উচিত জনতার এ উত্তাল তরঙ্গ ও দুর্বার আন্দোলন পুলিশ দিয়ে বন্ধ করা যাবে না। তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, যারা জনগণের ওপর জুলুম-নির্যাতন চালাচ্ছেন জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা হলে আদালতে তাদের বিচার করা হবে। যারা জনগণকে সহযোগিতা করবেন তাদের যথাযথভাবে পুরস্কৃত করা হবে।

তিনি বলেন, এ ইন্তেকাল কমিশনের অধীনে জনগণ কোনো নির্বাচন মেনে নেবে না। এ কমিশন মূলত লাশ। তাই এ দলদাস কমিশন বাতিল করে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। নির্বাচন দিতে হবে দলনিরপেক্ষ কেয়ারটেকার সরকার সরকারের অধীনে। অবিলম্বে আমিরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পওয়ার, সহকারি সেক্রেটারি জেনারেল এটি এম আজহারুল ইসলাম, মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান ও ঢাকা মহানগরী উত্তর আমীর মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন এবং মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সব জাতীয় নেতাদের মুক্তি দিতে হবে।  

তিনি সরকারকে সতর্ক করে বলেন, শেখ হাসিনার আবারও প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন জনগণ বাস্তবায়ন হতে দেবে না। জনতার তোপের মুখে আওয়ামী লীগ পালানোর পথ খুঁজে পাবে না। সরকারকে হঠকারিতা পরিহার করে অবৈধ তফসিল বাতিল, অবিলম্বে পদত্যাগ ও কেয়ারটেকার সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের আহ্বান জানান। অন্যথায় যেকোনো পরিস্থিতির দায়ভার সরকারকেই বহন করতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৯, ২০২৩
টিএ/জেএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।