ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৮ মে ২০২৪, ১৯ জিলকদ ১৪৪৫

অফবিট

ভেসে চলে গ্রাম

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৫৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭
ভেসে চলে গ্রাম ভাসমান গ্রাম।

ঢাকা: টটোরা নামে এক প্রকারের নলখাগড়ার ওপরই গড়ে উঠেছে গ্রাম। ৪ থেকে ৮ ফুট স্তরের নলখাগড়ার ওপরে গড়া গ্রামে বসত ঘর, পর্যবেক্ষণ টাওয়ার, মাছ জিইয়ে রাখার পুকুর। পুরো হ্রদজুড়েই বছর ভর ভেসে বেড়ায় গ্রামগুলো।

আন্দিজ পর্বতমালার উচ্চভূমিতে পৃথিবীর সর্বোচ্চ নাব্য হ্রদ টিটিকাকায় এসব গ্রাম ভাসছে শত শত বছর ধরে। পেরু ও বলিভিয়ার মধ্যবর্তী এ হ্রদে এসব গ্রাম এখন পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ।

ভাসমান গ্রাম।  শুধু গ্রাম নয়, টটোরা পেঁচিয়ে নৌকাও তৈরি করে উরস আদিবাসীর লোকেরা। জলযুদ্ধে অদক্ষ ইনকাদের আক্রমণের মুখে যারা এভাবে ভাসমান গ্রাম বানিয়ে টিকে থাকার কৌশল নিয়েছিলো সুদূর অতীতে। তারপর থেকে এসব ভাসমান গ্রামই হয়ে উঠেছে তাদের জীবন ও জীবিকা।

তাদের মাছ ধরার ফাঁদ, খেলনা, বাঁশি, মাদুর, তোষক সবই তৈরি হয় টটোরা থেকে। অশিক্ষত আদিবাসী গোষ্ঠীর নিপুন শিল্পকর্ম দেখে বিস্মিত হতে হয়।

ভাসমান গ্রাম।  ৩৮১০ মিটার উচ্চতায় ৮০৮৮ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের হ্রদ টিটিকাকায় এসব ভাসমান গ্রাম জীবন্ত বিস্ময়ই বটে।

বাংলাদেশ সময়: ০৫৫০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭
জেডএম/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।