ঢাকা, বুধবার, ২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১৮ মহররম ১৪৪৪

নিউইয়র্ক

শান্তিরক্ষায় শীর্ষে বাংলাদেশ, আঞ্চলিক কনসালটেশনের প্রথম সভা ঢাকায়

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৫৩৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৯, ২০১৫
শান্তিরক্ষায় শীর্ষে বাংলাদেশ, আঞ্চলিক কনসালটেশনের প্রথম সভা ঢাকায়

নিউইয়র্ক: জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ ২০১৪ সালে  শীর্ষস্থান অর্জন করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশের ৯ হাজার ৪০০ জন শান্তিরক্ষী বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের ১০টি শান্তিরক্ষা মিশনে কর্মরত আছেন।

বাংলাদেশ বর্তমানে অন্যতম শীর্ষ পুলিশ ও নারী শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশও।

বাংলাদেশ এ পর্যন্ত বিশ্বের ৩৯টি দেশের ৫৪টি শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নিয়েছে। এসব মিশনে ১ লাখ ২৭ হাজারের বেশি শান্তিরক্ষী অংশগ্রহণ করেছেন। বিশ্বশান্তি রক্ষায় বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে “ব্লু হেলমেট” হিসেবে সমাদৃত হচ্ছে।

২০১৪ সালে দ্বিতীয় স্থানে ভারত ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে পাকিস্তান। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে ভারতের সংখ্যা ৮ হাজার ১শ  ৪১জন এবং পাকিস্তানের রয়েছে ৭ হাজার ৯শ ২৬জন। এরপরে রয়েছে রুয়ান্ডা , যাদের সৈন্য সংখ্যা ৫হাজার ৬শ ৮৪ জন।

বৃহস্পতিবার(৮ জানুয়ারি’২০১৪) জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন এর সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ বিষয়টি জানানো হয়েছে।

বিশ্বশান্তি রক্ষা ও স্থিতিশীলতা জোরদারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় প্রত্যয় এবং এ লক্ষ্যে জাতিসংঘের আহবানের প্রতি তাঁর দ্রুত ও ইতিবাচক সাড়া দেয়ার কারণেই এ অর্জন সম্ভব হয়েছে বলেও এতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, বাঙালি শান্তিপ্রিয় জাতি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রণীত ১৯৭২ সালের সংবিধানে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় জাতিসংঘকে সর্বাত্মক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে। এরই আলোকে বর্তমান সরকার জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের অংশগ্রহণকে জোরদার করেছে।

বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা মানব কল্যাণে সাড়া দেয়ার পাশাপাশি শান্তিরক্ষীদের বিশ্ব সম্প্রদায়ে কাজ করার মতো দক্ষতা অর্জন করেছেন। তারা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছেন। যা দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

বাংলাদেশের রয়েছে বিশ্বমানের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট। বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের পেশাদারিত্ব, দক্ষতা ও নিষ্ঠা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে। তাঁরা “মডেল শান্তিরক্ষী” হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন।

গত সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ সম্মেলনে বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও রুয়ান্ডার সাথে যৌথভাবে “শান্তিরক্ষায় উচ্চ পর্যায়ের শীর্ষ সম্মেলন” আয়োজন করে। যেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকার প্রধানগণ অংশগ্রহণ করেছেন।

বাংলাদেশ শান্তিরক্ষায় সকল অংশীদারীর সাথে সম্পৃক্ত হয়ে কাজ করছে উল্লেখ করে এতে আরও বলা হয়, এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ আগামী ২০-২২ জানুয়ারি ঢাকায় “সেক্রেটারি জেনারেল’স হাই-লেভেল ইনডিপেনডেন্ট প্যানেল অন ইউএন পিস অপারেশনস” এর এশীয় আঞ্চলিক কনসালটেশনের প্রথম সভার আয়োজন করছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী এবং জাতিসংঘ মহাসচিবের হাই লেভেল প্যানেল সভাপতি, নোবেল বিজয়ী এবং তিমোর লেসবের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট হোসে রামোস হোরটা যৌথভাবে প্যানেল সদস্যদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। ২০ জন প্যানেল সদস্যের পাশাপাশি ৩১টি দেশের প্রতিনিধিরাও এতে অংশ নেবেন।

বাংলাদেশ সময়: ০৫৪০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৯, ২০১৫

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

নিউইয়র্ক এর সর্বশেষ

Alexa